ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১

বন্যায় যখন প্লাবিত আমিরাত, তখন মানুষের পাশে দাঁড়াতে ব্যস্ত বাসিন্দারা

প্রকাশিত: ১৪:৫৮, ১৮ এপ্রিল ২০২৪; আপডেট: ১৫:৪২, ১৮ এপ্রিল ২০২৪

বন্যায় যখন প্লাবিত আমিরাত, তখন মানুষের পাশে দাঁড়াতে ব্যস্ত বাসিন্দারা

প্রবল বৃষ্টিপাতের মাঝেও মানুষকে উদ্ধারে কাজ করে আরব আমিরাতের বাসিন্দারা। 

প্রতিকূলতার পরিপ্রেক্ষিতে, মানবতার প্রকৃত চেতনা প্রায়ই উজ্জ্বল হয়ে ওঠে। গত মঙ্গলবার রেকর্ড করা ইতিহাসের সবচেয়ে ভারী বৃষ্টিপাতে প্লাবিত হয় সংযুক্ত আরব আমিরাত। আর এসময়ে মানুষের পাশে দাঁড়ানো অনেকের অবিশ্বাস্য সাহস, সহানুভূতি ও নিঃস্বার্থতার গল্প উঠে এসেছে। কঠিন সময়ে একসাথে দাঁড়িয়ে আরব আমিরাতের বাসিন্দারা প্রচুর প্রশংসাও পেয়েছেন।

রাস্তাগুলো জলপথে রূপান্তরিত হয়ে যানবাহনগুলো অচল হয়ে গেলে বেশ কিছু হিতৈষী আত্মা প্রবেশ করে আটকে পড়া গাড়িচালকদের উদ্ধার করেছে, লোকেদের বাড়িতে পৌঁছাতে সাহায্য করেছে, ক্ষতিগ্রস্ত গাড়ি ও ঘরগুলো ঠিক করে দিয়েছে৷

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে হওয়া একটি ভিডিওতে একদল যুবকককে দেখা গেছে, যারা প্লাবিত রাস্তায় ডুবে যাওয়া গাড়িতে আটকে পড়া লোকদের উদ্ধার করছে। পরে যাত্রীদের নিরাপদ স্থানে পৌঁছে দেয়।

অন্যান্য আরো ভিডিওতে দেখা যায়, লোকজন কীভাবে বিড়ালদের ডুবে যাওয়া থেকে উদ্ধার করেছিল।

এদিকে, বেশকিছু বাসিন্দাও অভাবী অপরিচিতদের জন্য তাদের দরজা এবং হৃদয় খুলে দিয়েছিলেন। ঝড়ের কবলে পড়াদের আশ্রয়, খাবার এবং তাদের সান্ত্বনা দিয়েছিলেন।

মুডনের বাসিন্দা মনিকা প্রসাদ এবং তার সহকর্মী কারামায় কাজ থেকে বাড়ি ফেরার পথে আটকা পড়েছিলেন। মনিকা বলেন, ‘আমার সহকর্মী ডেবি গাড়িটি চালাচ্ছিলেন, যেটি আমাদের বসের গাড়ি ছিল। তিনি আমাদেরকে তার এসইউভি দেওয়ার জন্য সদয় ছিলেন। কারণ, আমরা ডেবির হ্যাচব্যাক ব্যবহার করতে ভয় পেয়েছিলাম। কিন্তু জাবেল এলাকা থেকে আমরা আল আইন রোডে উঠতে পারিনি। আমরা দীর্ঘ সময় ধরে চেষ্টা করেছি এবং অবশেষে যখন আমরা বুঝতে পারি যে আমরা আটকা পড়ে যাচ্ছি এবং ডুবে যাচ্ছি, আমরা একটি ভিলার দরজায় নক করার সিদ্ধান্ত নিই।

তিনি আরো বলেন, ততক্ষণে কয়েক ঘণ্টা কেটে গেছে এবং নারীরা প্রায় কান্নায় ভেঙে পড়েন। আমরা ভিলার পরিবারকে তাদের কম্পাউন্ডে পার্ক করার অনুমতি দেওয়ার জন্য অনুরোধ করার কথা ভেবেছিলাম। তবে, আমিরাতি পরিবার অত্যন্ত দয়ালু ছিল। বাড়ির মহিলাটি খোলা বাহুতে আমাদের স্বাগত জানালেন। তারা আমাদের সাথে ভালো ব্যবহার করেছে। ঘণ্টা দুয়েক পরে, আমরা আবার বাড়ি ফিরে যাওয়ার জন্য আমাদের ভাগ্য চেষ্টা করার কথা ভেবেছিলাম কারণ আমরা আমাদের পরিবারের কাছে পৌঁছাতে চেয়েছিলাম যারা বাড়িতে বিদ্যুৎ বিভ্রাট এবং অন্যান্য সমস্যার সাথে লড়াই করছিল। কিন্তু রাস্তার অবস্থা আরও খারাপ হয় এবং সমস্ত রাস্তা জলমগ্ন হয়ে পড়ে। তারপর আমিরাতি পরিবার আমাদের আমাকে একটা আলিঙ্গন করল এবং তার বাড়িতে থাকতে বলল। তাদের প্রতি আমার গভীর শ্রদ্ধা রয়েছে এবং তাদের ধন্যবাদ জানানোর ভাষা নেই। দুবাইতে এটি আমার ১৬ বছরের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর দিন ছিল, তবে এই শহরের প্রতি আমার ভালোবাসা দ্বিগুণ বেড়ে গেছে।

দীপক মোহন, তাদের মধ্যে ছিলেন যারা আটকে পড়া লোকদের নিয়ে এসে তাদের বাড়ি বা অন্যান্য নিরাপদ স্থানে নামানোর জন্য সারা রাত বন্যার সময় রাস্তায় সাহস দেখিয়েছেন। দীপক যিনি মঙ্গলবার রাতে প্রায় ১৫ জনকে নিরাপদে পৌঁছে দেন। তিনি বলেন, ‘আজ সকাল পর্যন্ত আমি লোকদের নিরাপদে নিয়ে যাচ্ছিলাম। আমি কয়েক ঘণ্টা ঘুমিয়েছিলাম এবং আমি একই কাজ করার জন্য রাস্তায় আবার ফিরে এসেছি।

হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপের মাধ্যমে যারা তার কাছ থেকে সাহায্য পেয়েছিলেন তাদের মধ্যে একজন মহিলা ডাক্তার এবং দুজন নার্স অন্তর্ভুক্ত ছিল, যাদের মধ্যে একজন গর্ভবতী। গর্ভবতী নার্স আল খাইল গেটে থাকেন। কিন্তু, আমরা আল কোওজের ওই এলাকায় প্রবেশ করতে পারিনি। অবশেষে তাদের সবাইকে কারামার নিরাপদ স্থানে নামিয়ে দিতে হলো। প্রায় দুই ঘণ্টা লেগেছে।

একজন বয়স্ক কাজাখস্ত দম্পতি এবং তাদের মেয়ে, যারা সংযুক্ত আরব আমিরাতে বেড়াতে এসেছেন তাদেরও তিনি উদ্ধার করেছিলেন। দীপক বলেন, ‘তারা দুবাই মলের কাছে প্লাবিত রাস্তায় দাঁড়িয়ে ছিল। কাকা কাঁপছিলেন। তারা ঠিকমতো ইংরেজি বলতে পারত না। কিন্তু তারা একরকম বুঝতে পেরেছিল যে আমি তাদের একটি বিনামূল্যে লিফট অফার করছি। তারপর আমি তাদের মানখুলে তাদের হোটেলে নামিয়ে দিয়েছিলাম।’ 

দীপক আরো জানান, তিনি একজন ভারতীয় মহিলা এবং তার হুইলচেয়ারে আবদ্ধ মাকেও সাহায্য করেছিলেন যারা দুবাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসার পরে আটকা পড়েছিলেন।

কয়েক ঘণ্টা ধরে বন্যার কারণে শেখ জায়েদ রোডে শত শত গাড়িচালক যখন ট্র্যাফিক জ্যামে আটকা পড়েছিল, তখন একটি চালক পরিষেবা সংস্থার সহ-প্রতিষ্ঠাতা নাসির আমির কোরেশি একটি সম্প্রচার বার্তা পাঠিয়েছিলেন, যা একাধিকবার ফরওয়ার্ড করা হয়েছিল। 

ফয়জল বিন মুহাম্মদ, যিনি ডিআইএফসি মেট্রো স্টেশন থেকে জুমেইরাহ ভিলেজ সার্কেল (জেভিসি) পর্যন্ত ২০ দিন বয়সী এক দম্পতি সহ বেশ কয়েকজন আটকা পড়া বাসিন্দাকে উদ্ধার করতে সহায়তা করেছিলেন, বলেছেন তার ফার্ম আল ঘুসাইস এবং মুহাইস্নাহ ২-এর বাসিন্দাদের জন্য বিনামূল্যে পার্কিংয়ের জায়গাও সরবরাহ করেছে। তিনি বলেন, ‘আমরা এই সম্প্রদায়ের সহায়তার প্রস্তাব দিয়েছিলাম একটি ছোট অঙ্গভঙ্গি হিসাবে লোকেদের কঠিন সময়ে হাতের প্রয়োজনের বোঝা কমানোর জন্য। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত আল নাহদা এবং মুহাইসনাতে আমাদের দুটি কেন্দ্রে বিনামূল্যে এবং নিরাপদ পার্কিং দিয়ে তাদের আচ্ছাদিত করতে পেরে আমরা খুশি।’

জেসি চামি, জেভিসি-তে বসবাসকারী একজন লেবানিজ প্রবাসী, আমাদের বিল্ডিংয়ের অনেক অ্যাপার্টমেন্ট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যতবারই প্রবল বৃষ্টি হয়, রক্ষণাবেক্ষণ সত্ত্বেও আমরা জলের ছিদ্র অনুভব করি। এবারও ভাগ্যক্রমে গতবারের মতো বিদ্যুতের বাক্স থেকে হয়নি। তবুও আমি ভয় পেয়েছিলাম কারণ সেখানে প্রচুর পানি ছিল এবং আমার বাড়িতে একটি কুকুর আছে। আমি নিরাপত্তার কাছে গেলে তারা আমাকে ফারেস নামে এক প্রতিবেশীর সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্য নম্বর দেয়। পরে তিনি সব ঠিকস করে দেন। 

সূত্র: গালফ নিউজ। 

এম হাসান

×