ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯

মাকে হত্যা করে রক্তের মধ্যেই বসে রইল ছেলে!

প্রকাশিত: ১৮:৪৯, ৮ আগস্ট ২০২২; আপডেট: ০০:১৬, ৯ আগস্ট ২০২২

মাকে হত্যা করে রক্তের মধ্যেই বসে রইল ছেলে!

হত্যা

মাকে হত্যার পর সারারাত রক্তের মধ্যেই বসে থাকার অভিযোগ উঠেছে ছেলে উত্তমের বিরুদ্ধে। সোমবার (৮ আগস্ট) গভীর রাতে ভারতের জলপাইগুড়ির ডুয়ার্সের তেলিপাড়া চা-বাগান এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতের মেয়ে জানান, প্রতিদিন সকালে তার বাড়িতে চা খেতে আসতেন তার মা বাবলি ওঁরাও (৬২)। সোমবার (৮ আগস্ট) সকালে তার মা না আসায় নিজেই ডাকতে গিয়ে ভয়ঙ্কর ঘটনার সাক্ষী হলেন তিনি। ঘরে ঢুকে দেখেন, মেঝেতে পড়ে রয়েছে মায়ের নিথর দেহ। রক্তে ভেসে যাচ্ছে ঘর। মায়ের দেহের পাশেই বসে রয়েছেন তার ভাই উত্তম। পরে তিনিই তার ভাইকে পুলিশে ধরিয়ে দেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বাবলির মেয়ের বিয়ে হয়েছে পাশেই। রোজ সকালে তিনি মেয়ের বাড়িতে চা খেতে যেতেন। কিন্তু সোমবার সকালে মা না আসায় মেয়ে বাড়িতে চলে এসে ঘরে মায়ের দেহ পড়ে থাকতে দেখে চিৎকার করে ওঠে। পরে আশেপাশের লোকজন ছুটে আসেন। পরে বানারহাট থানার পুলিশ ছেলে উত্তমকে গ্রেফতার করে। 

পুলিশের ধারণা, টাকা নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে গতকাল রবিবার রাতে মাকে খুন করেন ছেলে। খুনের পর রাতে ওই ঘরেই মায়ের দেহের পাশে রাত কাটায় ছেলে উত্তম। সম্প্রতি ২০ হাজার টাকা নিয়েও মা ও ছেলের মধ্যে কাটাকাটি হয়েছে। বাবলি সেই টাকা দিতে না পারায় তাকে খুন করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, নিহতের দেহ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বৃদ্ধার পরিবারের বাকি সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন, বাবলি প্রতিদিন সকালে মেয়ের ঘরে চা খেতে যেতেন। সোমবার সকালে তিনি না যাওয়ায় সন্দেহ হয় মেয়ের। পরে ঘরে এসে মায়ের মৃত দেহ দেখতে পান তিনি। এ ঘটনায় ছেলে উত্তমকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সূত্র: আনন্দবাজার।