ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ০৫ অক্টোবর ২০২২, ২০ আশ্বিন ১৪২৯

৫ বছর বয়স থেকে ক্রিকেট বিশ্বে ঝড় তুলছেন যুবরাজ 

মিশিগান প্রতিনিধি, যুক্তরাষ্ট্র থেকে  

প্রকাশিত: ১৫:২২, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২; আপডেট: ১৩:৪৬, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২

৫ বছর বয়স থেকে ক্রিকেট বিশ্বে ঝড় তুলছেন যুবরাজ 

যুবরাজ তালুকদার

বাংলাদেশী বংশোভূত, ব্রিটিশ নাগরিক এক উদীয়মান স্বপ্নবাজ ক্রিকেট তারকার নাম যুবরাজ তালুকদার | যে কিনা মাত্র ৫ বছর বয়সেই বর্তমান বিশ্বের একমাত্র জনপ্রিয় খেলা ক্রিকেটের দিকে ঝুকে পড়ে এবং ব্যাট হাতে একের পর এক অসাধারণ নৌপণ্য প্রদর্শন করতে থাকে. এমন সম্ভাবনাময় প্রতিভা দেখে বাবা-মা, আত্মীয় স্বজন এমনকি ইংল্যান্ডের প্রায় সকল ক্রিকেট টিম গুলো তাকে শুধু উৎসাহ সৃষ্টি নয়, যুবরাজের স্বপ্ন বাস্তবায়নেও ওদের নিষ্কণ্ঠক হাত প্রসারিত করে. ফলে শিশু থেকে কিশোরে পদার্পন এই যুবরাজ এই বয়সেই ক্রিকেট প্রেমিক হাজার হাজার নারী পুরুষের মন কেড়ে নিতে সক্ষম হয়. অত্যন্ত মেধাবী ও হাস্যোজ্জ্বল যুবরাজ এখন তার ভবিষ্যৎ স্বপ্ন বাস্তবায়নের দিকে এগুচ্ছে.

তার বয়স এখন মাত্র ২০ | টগবগে ও আত্মবিশ্বাসী ক্রিকেটার যুবরাজ যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগানের বিগ মার্চেন্ট ইমরাজ তালুকদার টিপুর আপন ভাতিজা এবং শিল্প প্রতিষ্ঠান, গ্যাস, চা-বাগান সহ নানা জীব বৈচিত্র ও অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ বাংলাদেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ জেলা হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ বিরামচর এলাকার বাসিন্দা এবং বর্তমান ইংল্যান্ড প্রবাসী বিপ্লব তালুকদার ও শাহ বিউটির পুত্র. মা ইংল্যান্ডে জন্ম গ্রহণ ও পুত্র একই দেশে জন্ম হওয়ার সুবাধে যুবরাজ এখন ব্রিটিশ নাগরিক

সে এখন ইংল্যান্ডের জনপ্রিয় ক্রিকেট টিম ওয়ারউইকসিরে কাউন্টির একজন অলরাউন্ডার ওপেনিং ব্যাট্সম্যান এবং লেগ স্পিন বোলার.সেরা পারফরমেন্স এর জন্য যুক্তরাষ্ট্রের বিডি কমিউনিটি টুর্নামেন্ট ড্রিম টাচ ডলার,স্টেলার ইউনাইটেড, মিশিগান মোটর সিটি চ্যাম্পিয়ানশিপ টুর্নামেন্ট (এমএসসি) সহ ইংল্যান্ডের বিভিন্ন নাগরিক সংস্থা ও টিম গুলোর পক্ষ থেকে যুবরাজকে একের পর এক ওয়ার্ডে ভূষিত করা হয়.বিশ্ব ক্রিকেট তারকা লান বেল,এন্ড্রো ফ্লিন্টফ,মঈন আলীদের মতো ইংল্যান্ডের বহু নামকরা প্লেয়ারদের সাথে যুবরাজ ক্রিকেট খেলেছে.

 মা ইংল্যান্ডে জন্ম গ্রহণ ও পুত্র একই দেশে জন্ম হওয়ার সুবাধে যুবরাজ এখন ব্রিটিশ নাগরিক. তবে নিজের দেশের ভাষা বাংলাকে সে তার কণ্ঠ থেকে হারিয়ে যেতে দেয়নি. বাংলাতে কিছু কিছু কথা বলা বা বুঝতে পারা তার পক্ষে সম্ভব হলেও জন্ম সূত্রে ব্রিটিশ নাগরিক হওয়ায় যুবরাজ মূলত ইংলিশেই কথা বলে. সে এখন ইংল্যান্ডের ব্রহ্মসগ্রব ইন্ডিপেন্ডেন্ট স্কুল এন্ড লৌখবরগস ইউনিভার্সিটিতে ফুল স্কলারশিপ নিয়ে লেখাপড়া করছে. সেই সাথে ক্রিকেট খেলাকেও সে তার এক নম্বর চয়েজ ও পেশা হিসেবে বেঁচে নিয়েছে. বয়স বাড়ার সাথে সাথে মা--বাবা,আত্মীয় স্বজন, প্রতিবেশীদের অনুপ্রেরণায় যুবরাজ প্রিয় খেলা ক্রিকেট নিয়ে শুরু করে ব্যাপক অনুশীলন. এক পর্যায়ে এই অনুশীলন ইংল্যান্ডের নামকরা মাঠ গুলোতে পর্যন্ত গড়ায়.
 এভাবে অসাধারণ মেধা ও প্রজ্ঞায় ভরপুর যুবরাজের পারফর্মেন্স ও নাম নানা শ্রেণীর মানুষ ও ইংল্যান্ডের ক্রিকেট টিম গুলোতে আলোচনায় উঠে আসে. ডাক পরে ইংল্যান্ডের জাতীয় সহ অন্যান্য বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় ক্রিকেট টিম থেকে. কোন টিম যুবরাজকে কার টিমে ভিড়াবে এ নিয়ে রীতিমতো হৈ চৈ পড়ে যায়. সেই সাথে যুবরাজকে নিয়ে আলোচনার সূত্রপাত ঘটে পুরো ইংল্যান্ড জুড়ে. এক পর্যায়ে তা ইংল্যান্ডের গন্ডি পেরিয়ে আমেরিকা, দুবাই, শ্রীলংকা, সিঙ্গাপুর এমনকি বাংলাদেশ সহ বিশ্বের বিভিন্ন কর্নারে ঝড় তুলে. শুধু তাই নয়, যুবরাজ ইংল্যান্ড ছাড়াও আমেরিকার মিশিগান সহ বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য এমনকি অন্যান্য কয়েকটি দেশেও প্রতিবছর অনুষ্ঠিত নানা ক্রিকেট চ্যাম্পিয়ানশিপ টুর্নামেন্টে অংশ নিচ্ছে. ইতিমধ্যে স্কটল্যান্ড, শ্রীলংকা, ইন্ডিয়া, দুবাই ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথেও তার খেলার সৌভাগ্য হয়েছে. যুবরাজ প্রতিবছর ইংল্যান্ড থেকে বাংলাদেশে যায় এবং সেখানে বিশ্বসেরা ওয়ালরাউন্ডার সাকিবুল হাসানের মাসকো ক্রিকেট একাডেমি, সংশ্লিষ্ট একাডেমির জনপ্রিয় কোচ এমডি সালাউদ্দিনের সাথেও প্রেক্টিসে নিয়মিত অংশ নিচ্ছে. এছাড়া দিপু রায় ক্রিকেট একাডেমিতেও প্রেক্টিসে সে অংশ নেয়.
এদিকে জনকণ্ঠের এই প্রতিবেদকের সাথে একান্ত আলাপচারিতায় যুবরাজ তার স্বপ্ন ও বর্তমান এক প্রত্যাশার কথা জানিয়ে বলেন, সে  এখন বাংলাদেশে বিপিএলএ খেলতে আগ্রহী. যুবরাজ ও তার পরিবারের সদস্যদের রয়েছে বাংলাদেশ স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা ও ভালবাসা.সে তার আবেগাপ্লুত কণ্ঠে দীর্ঘদিনের প্রত্যাশার কথা জানিয়ে বলে, বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথেও সে দেখা করতে চায়. প্রধানমন্ত্রীকে যুবরাজ জানাতে চায় যে,সেই শিশুকাল থেকেই বিশ্ব ক্রিকেটে তার স্বপ্ন বাস্তবায়ন ও স্থান করে নেয়ার একটাই ইচ্ছে, সে তার প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ, মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুকে পরিচিত করা. এছাড়া যুবরাজ নিজ বাংলাদেশেও খেলতে এবং ক্রিকেটের মান উন্নয়নে বাংলাদেশর পাশেও দাঁড়াতে চায়,এমন একটি আগ্রহ প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টিতে এনে তার স্বপ্ন বাস্তবায়নের কথা ক্রিকেট প্রেমিক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জানিয়ে তার একান্ত সান্নিধ্য পেতে চায়. 

বলাবাহুল্য, চলতি বছরে মিশিগানে অনুষ্ঠিত যুক্তরাষ্ট্রের একমাত্র জননন্দিত ক্রিকেট সংস্থা মোটর সিটি (এসএমসি) ক্রিকেট টুর্নামেন্ট চ্যাম্পিয়ানশিপ খেলায়  মিশিগান ইউনাইটেড টিমের পক্ষে অংশ নিতে মোটা অংকের ডলারের বিনিময়ে ডাক পড়ে যুবরাজের.ফলে যুবরাজ এই টুর্নামেন্টে উক্ত টিমের হয়ে অংশ নেয় এবং বাংলাদেশের জাতীয় দলের সেরা প্লেয়ার ইমরুল কায়েস, নাসির হোসেন, সৈয়দ রাসেল, তাপস বিশ্বাস ও কামরুল ইসলাম রাব্বির সাথে কয়েকটি ম্যাচ খেলে অসাধারণ পারফর্মেন্স দেখতে সক্ষম হয়. এমন পারফর্মেন্স সকলেই বিস্মিত হন. এছাড়া তার আগে মিশিগানে অনুষ্ঠিত মিশিগান বিডি কমিউনিটি কাপ-২০২২ এ যুবরাজ অংশ নিয়ে সর্বোচ্চ ৭৫ রান করে এবং তার দলকে চ্যাম্পিয়ান ট্রফি এনে দিতে সক্ষম হয়.
বিগত ২০১৪, ২০১৭ এবং ২০১৯ সালে ইংল্যান্ডের বার্মিংহামে অনুষ্ঠিত ক্রিকেট খেলায় পর পর তিনবার সেরা প্লেয়ার নির্বাচিত হন যুবরাজ. সে এ পর্যন্ত ৩৫ টি হাফ ও ১২টি ফুল সেঞ্চুরি করেছে | এমনকি এ পর্যন্ত তার সর্বোচ্চ রান ১৩৬.
উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের একমাত্র জনপ্রিয় ক্রিকেট সংস্থা এসএমসি'র উদ্দ্যেগে সম্প্রতি মিশিগানে অনুষ্ঠিত চ্যাম্পিয়ানশিপ টুর্নামেন্টে অংশ নিতে ইংল্যান্ড থেকে এসেছিলেন যুবরাজ. মিশিগানে এমন বিরল সম্মান প্রদর্শন, ভালবাসা, আতিথিয়েতা নিয়ে যুবরাজ জনকণ্ঠের এ প্রতিবেদককে বললেন, মিশিগান প্রবাসী বাংলাদেশিদের এহেন ভালবাসা আগামী দিন গুলোতে তার প্রতিটি খেলা ও স্বপ্ন বাস্তবায়নে অনুপ্রেরণা যুগাবে.

টিএস