ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ২৪ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

যৌন রোগের চিকিৎসা

ডা. বুলবুল রহমান

প্রকাশিত: ০০:৫২, ১৬ এপ্রিল ২০২৪

যৌন রোগের চিকিৎসা

যৌন সমস্যা বর্তমানে একটি জটিল সমস্যা হিসেবে দেখা দিয়েছে

যৌন সমস্যা বর্তমানে একটি জটিল সমস্যা হিসেবে দেখা দিয়েছে। এ রোগীর হার দিন দিন বেড়েই চলেছে। এই সুযোগে দেশের আনাচে-কানাচে গড়ে উঠেছে নানা রং-বেরঙের পোস্টার দিয়ে বিভিন্ন দাওয়া খানা ও চমকপ্রদ চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান। যেখানে চিকিৎসার নামে করা হয় বিভিন্নভাবে প্রতারণা। হতাশাগ্রস্ত যুবসমাজ আরও বেশি হতাশাগ্রস্ত হচ্ছে। একপর্যায় তারা মনে করে এ রোগের মনে হয় আর চিকিৎসা নেই। অতিরিক্ত হস্তমৈথুন, যৌনবাহিত রোগ (সিফিলিস, গনোরিয়া) রক্তে সেক্স-হরমোনের ভারসাম্যহীনতা।

এছাড়াও রয়েছে ডায়াবেটিস, দুশ্চিন্তা, টেনশন, অবসাদ, ও অপুষ্টি, যৌনরোগ বা এইডস ভীতি। সেক্স-এডুকেশনের অভাব, বয়সের পার্থক্য, পার্টনারকে অপছন্দ। নারীর ত্রুটিপূর্ণ যৌনাসন, মানসিক ও শারীরিক সমস্যা ইত্যাদি কারণে এ রোগ বা সমস্যা  হতে পারে। এ সমস্যা যে কোনো বয়সেই হতে পারে, সে ক্ষেত্রে লজ্জা, অবহেলা, আজ কাল, না করে জটিল হওয়ার পূর্বেই দ্রুত চিকিৎসা নেওয়া আবশ্যক।
নানা ধরনের যৌনরোগ
সব সময় যে অবাধ সঙ্গমের ফলেই এই ধরনের রোগ হয় তা নয়, কোনো একজন আক্রান্ত ব্যক্তির সঙ্গে বহুবার শারীরিক সম্পর্কের ফলেও এই রোগ হতে পারে। কিছু যৌন রোগের নাম ও লক্ষণ।
১) ক্ল্যামিডিয়া : যোনি এবং পুরুষাঙ্গ থেকে অস্বাভাবিক ক্ষরণ এই রোগের লক্ষণ। গড়ে ৫০ শতাংশ পুরুষ ও ৭০ শতাংশ মহিলাদের মধ্যে এই রোগ দেখা যায়। দ্রুত চিকিৎসা করলে সেরে ওঠা সম্ভব। ক্ল্যামিডিয়া হলে খুব সহজেই অন্যান্য যৌনরোগ বাসা বাঁধে শরীরে।  
২) গনোরিয়া : সচরাচর ক্ল্যামিডিয়া এবং গনোরিয়া একই সঙ্গে হয়। যোনি বা পুরুষাঙ্গ থেকে অস্বাভাবিক ক্ষরণ, মূত্রত্যাগ করার সময় যন্ত্রণা ইত্যাদি এই রোগের লক্ষণ। চিকিৎসা না করলে সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়ে এই রোগ।
৩) যৌনাঙ্গে হার্পিস : ৮০ শতাংশ মানুষ যাদের যৌনাঙ্গে হার্পিস রয়েছে তারা জানেন না যে তাদের শরীর আসলে একটি বিশেষ ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত। অজান্তেই তারা সঙ্গী বা সঙ্গিনীর শরীরে সংক্রামিত করেন এই ভাইরাস। যৌনাঙ্গে ছোট ছোট ফোস্কার মতো র‌্যাশ এই রোগের লক্ষণ। ফোস্কা পড়ার বেশ কয়েক ঘণ্টা আগে থেকে চুলকানির অনুভূতি হয় যৌনাঙ্গে। একটি নির্দিষ্ট সময় অন্তর বার বার এই র‌্যাশগুলো বেরুতে থাকে।
৪) সিফিলিস : প্রাচীনকাল থেকেই এই রোগে আক্রান্ত হয়েছে মানুষ। ঠিক সময়ে ধরা পড়লে সাম্প্রতিক কালে সহজেই সারানো যায় এই রোগ। কিন্তু রোগ বেড়ে গেলে তা সাংঘাতিক যন্ত্রণাদায়ক। যৌনাঙ্গ, পায়ু এবং মুখে আলসার হয়, এমনকী চোখ এবং মস্তিষ্কও আক্রান্ত হয়। যৌনরোগগুলোর মধ্যে অন্যতম মারণ রোগ। তবে প্রাথমিক অবস্থায় এই রোগের লক্ষণ শরীরে চট করে ধরা পড়ে না।
৫) যৌনাঙ্গে আঁচিল বা ওয়ার্ট : যৌনাঙ্গ এবং পায়ুর আশপাশে আঁচিলের মতো র‌্যাশ এক ধরনের যৌন রোগ। একত্রে একসঙ্গে অনেকগুলো আঁচিল দেখা যায়। হিউম্যান প্যাপিলোমাভাইরাস, যা সার্ভিক্যাল ক্যান্সারের কারণ এবং যৌন সংসর্গে এক শরীর থেকে অন্য শরীরে ছড়ায়, তাই এই রোগের জন্ম দেয়। অনেক সময় এই আঁচিলগুলো ফোস্কার মতো হয় আবার অনেক সময় এগুলো আলসারেও পরিণত হতে পারে।
৬) হেপাটাইটিস বি : অনেকেই হয়তো জানেন না, এই রোগটিও যৌন সংসর্গের ফলে ছড়ায়। 
একইভাবে ছড়াতে পারে হেপাটাইটিস এ এবং হেপাটাইটিস সি তবে তার সংখ্যা খুবই কম। লিভার সংক্রান্ত জটিলতা, মূত্রের রং পরিবর্তন, গা বমি ভাব ইত্যাদি এই রোগের লক্ষণ হতে পারে।
৭) এইচআইভি : এইচআইভি ভাইরাস মরণব্যাধি নয় কিন্তু এই রোগের মূল লক্ষণ শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা ভেঙে পড়া। তাই এই ভাইরাস শরীরে থাকলে অন্য যে কোনো কঠিন রোগ হলে তা ভয়াবহ আকার ধারণ করে। তাই শুরুতেই চিকিৎসক এর পরামর্শ নিয়ে রাখা উচিত। 

লেখক : সিনিয়র কনসালটেন্ট  (বিএইচএমএস) ঢাকা, (বিশেষ  প্রশিক্ষণ : ইন্ডিয়া)চেম্বার: জার্মান হেল্থ এইচ-২৩,
আমতলী, (তৃতীয় তলা) ফ্লাইওভারের পশ্চিম পাশের নিচে,  এয়ারপোর্ট রোড, ঢাকা। মোবাইল : ০১৭১৪-২৫-১৫-১৫
০১৭১৬-৯৩-৯০-৭৬

×