ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ২৪ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১

রাসেল ভাইপার বাদ, রাত কাটিয়ে আলোচনায় সাকলায়েন-পরীমনি

প্রকাশিত: ১৫:৫৬, ২৫ জুন ২০২৪

রাসেল ভাইপার বাদ, রাত কাটিয়ে আলোচনায় সাকলায়েন-পরীমনি

পরী মনির সঙ্গে সম্পর্কের জেরে চাকরি হারিয়েছেন গোলাম সাকলায়েন

সকালেই খবর এসেছে, চিত্রনায়িকা পরী মনির সঙ্গে সম্পর্কের জেরে চাকরি হারিয়েছেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) গুলশান বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনারের (এডিসি) দায়িত্বে থাকা গোলাম সাকলায়েন। 

পরীকাণ্ডে আলোচনা শুরুর পর প্রথমে সাকলায়েনকে ডিবি থেকে সরিয়ে মিরপুরের পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্টে (পিওএম) সংযুক্ত করা হয়েছিল। পরে সেখান থেকে তাকে ঝিনাইদহ ইনসার্ভিস ট্রেনিং সেন্টারে বদলি করা হয়। এবার পরীকাণ্ডে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো হলো সেই সাকলায়েনকে।

বিষয়টি নজরে এসেছে পরীরও। তবে সেসব নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি এই নায়িকা। তবে ইঙ্গিত করে একটি পোস্ট দিয়েছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

লিখেছেন, ‘বাই বাই রাসেলস ভাইপার, ওয়েলকাম পরী মনি।

এটা লেখার কারণও পরিষ্কার। গত কয়েক দিন ধরে সামাজিক মাধ্যমে আলোচনায় আছে বিষধর সাপ রাসেলস ভাইপার। বিষধর এই সাপের নানা কিছু এসেছে গণমাধ্যমেও। এমনকি এই সাপের কামড়ে মৃত্যু হওয়ার বিষয়টিও আলোচনায়।

তবে সকাল থেকে যেহেতু পরী মনি ও সাকলায়েন কাণ্ড সামনে এসেছে, তাই অনেকের মতো পরীও ধারণা করছেন রাসেলস ভাইপার ইস্যু আপাতত বন্ধ হয়ে যাবে। সবার আলোচনার বিষয় হয়ে উঠবে পরী মনি। এ কারণেই এই নায়িকা আগাম ইঙ্গিত দিয়ে জানিয়ে দিয়েছেন, ‘বাই বাই রাসেলস ভাইপার, ওয়েলকাম পরী মনি। ’

উল্লেখ্য, গত ১৩ জুন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের শৃঙ্খলা-২ শাখা থেকে উপসচিব রোকেয়া পারভিন জুঁই স্বাক্ষরিত এক আদেশে গোলাম সাকলায়েনকে বাধ্যতামূলক অবসর প্রদান করা হয়। শৃঙ্খলা শাখার প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, সাকলায়েন ধারাবাহিকভাবে নায়িকা পরী মনির বাসায় নিয়মিত রাত্রি যাপন করতে শুরু করেন।

বিভিন্ন সময়ে (দিনে ও রাতে) নায়িকা পরী মনির বাসায় সাকলায়েন অবস্থান করেছেন বলে মোবাইলের ফরেনসিক রিপোর্ট দেখে প্রমাণ পাওয়া যায়।

আশুলিয়ায় বোট ক্লাবের উদ্যোক্তাদের একজন ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদের বিরুদ্ধে চিত্রনায়িকা পরী মনি ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে মামলা করেন।

ওই মামলার তদন্তের তদারক কর্মকর্তা ছিলেন গোলাম সাকলায়েন। গোলাম সাকলায়েনের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে, পরী মনিকে নিয়ে রাজারবাগের বাসায় গিয়েছিলেন তিনি। সেখানে পরী মনি ও গোলাম সাকলায়েন ১৮ ঘণ্টা সময় কাটান। মামলার তদন্ত করতে গিয়ে পরী মনির সঙ্গে গোলাম সাকলায়েনের সখ্য তৈরি হয় বলে গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে উঠে এসেছিল।

বিসিএস পুলিশ ৩০তম ব্যাচের এই কর্মকর্তা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়ালেখা করেছেন। অনার্স শেষ করেই বিসিএসে উত্তীর্ণ হন তিনি। এরপর ৩০তম ব্যাচের পুলিশে প্রথম হয়েছিলেন তিনি।

এবি 

×