ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১

কঙ্গনার দাবি

আনন্দকণ্ঠ ডেস্ক

প্রকাশিত: ০০:২৯, ১ জুন ২০২৩

কঙ্গনার দাবি

কঙ্গনা

বলিউডের অন্যতম বিতর্কিত অভিনেত্রী তিনি। নিজের পেশার জন্য যত না চর্চায় থাকেন তিনি, তার থেকে বেশি থাকেন বিতর্কের কারণে। যে কোনো বিষয়েই নিজের মতামত দিতে পছন্দ করেন অভিনেত্রী। রাজনীতি হোক বা সামাজিক বিষয় হোক, তার বিচার-বুদ্ধির আওতার বাইরে নেই কোনোকিছুই। এবারও তার ব্যতিক্রম হলো না। অভিনেত্রীদের পারিশ্রমিক নিয়ে মুখ খুলেছেন তিনি। বলিউড থেকে হলিউড, অভিনেতা-অভিনেত্রীদের মধ্যে পারিশ্রমিক বিতর্ক বহু পুরনো। সম্প্রতি, ইনস্টাগ্রামে একটি ছোট্ট ক্লিপ শেয়ার করেছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। যেখানে তিনি বলেছেন-বলিউডে ৬০টি ছবিতে কাজ করে ফেলার পরও অভিনেতাদের পারিশ্রমিকের মাত্র ১০ শতাংশই তাকে দেওয়া হতো। প্রিয়াঙ্কার সেই ভিডিও ক্লিপ শেয়ার করে ইনস্টাস্টোরিতে নিজের মতামত তুলে ধরছেন কঙ্গনা।

প্রিয়াঙ্কাকে সমর্থন করে কঙ্গনা লেখেন, ‘এটা খুব সত্যি কথা যে আমার আগে নায়িকারা শুধু এই পুরুষতান্ত্রিক নিয়মের কাছে নতিস্বীকার করে এসেছেন। ইন্ডাস্ট্রিতে বেতনের সমতার জন্য আমিই প্রথম লড়াই করেছিলাম এবং সবচেয়ে ঘৃণ্য জিনিসের মুখোমুখি হয়েছিলাম। সেসময় আমাকেও বিনামূল্যে কাজ করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। তবে তখন পারিশ্রমিকের বিষয়ে আমিই তখন উদ্যোগ নিয়ে কথা বলি। আমি নিশ্চিতভাবে বলতে পারি যে বেশিরভাগ প্রথম সারির মহিলারা অন্যান্য সুবিধা পেলেও বিনামূল্যে ছবি করতে রাজি হয়েছেন, কারণ তারা ভয় পেতেন যে ছবিটা বুঝি হাতছাড়া হয়ে যাবে। এখন আবার তারাই দাবি করেন, যে তারাই সব থেকে বেশি পারিশ্রমিক পান।’ ২০০৮ সালে ফ্যাশান ছবিতে একসঙ্গে কাজ করেছিলেন কঙ্গনা ও প্রিয়াঙ্কা। যে ছবির জন্য এই দুই অভিনেত্রীকেই জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত করা হয়।

বেশ কিছুদিন আগে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া যখন বলিউডের রাজনীতি এবং এক সময় তাকে কোণঠাসা করে দেওয়া নিয়ে মুখ খুলেছিলেন, তখনো তার হয়ে সওয়াল করেছিলেন কঙ্গনা। প্রিয়াঙ্কা তার কোণঠাসা হওয়া নিয়ে কারোর নাম না করলেও কঙ্গনাই প্রথম করণ জোহরের নাম ফাঁস করেন। যদিও প্রিয়াঙ্কা-করণের সম্পর্কের বিষয়টা বলিউডে বহুদিন ধরেই ‘ওপেন সিক্রেট’। কঙ্গনা বলেছিলেন, কেউ না বললেও সকলেই জানেন করণই প্রিয়াঙ্কাকে একঘরে করেছিলেন, যে কারণে এক সময় তিনি দেশ ছাড়তে বাধ্য হন। এদিকে মানুষের হাত থেকেই এই পৃথিবীকে বাঁচানোর অনুরোধ রাখলেন কঙ্গনা।

সম্প্রতি সমাজ মাধ্যমের পাতায় একটি ভিডিও শেয়ার করেন বলিকন্যা। সেই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, মাউন্ট এভারেস্ট বেস ক্যাম্পে তাবুর বাইরে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে জঞ্জাল। পলিথিন ব্যাগ থেকে শুরু করে প্লাস্টিকের বোতল, কী নেই সেই জঞ্জালের স্তূপে! পাহাড়ের পাথুরে জমির দেখা নেই, সেখানে শুধুই জঞ্জাল। ভিডিওর বিবরণীতে লেখা, ‘এভারেস্ট বন্ধ করে আগে এদিকে নজর দেওয়া হোক।’

×