মঙ্গলবার ১২ মাঘ ১৪২৮, ২৫ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

নিখোঁজের তিনদিন পর ঢাবি শিক্ষকের লাশ উদ্ধার

নিখোঁজের তিনদিন পর ঢাবি শিক্ষকের লাশ উদ্ধার
  • গ্রেফতার ১

স্টাফ রিপোর্টার, গাজীপুর ॥ নিখোঁজের ৩দিন পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক সাইদা গাফফার (৭১)-এর লাশ গাজীপুর থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার মহানগরীর দক্ষিণ পাইনশাইল এলাকার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক আবাসন প্রকল্পের একটি ঝোপের ভেতর থেকে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় তাঁর লাশ উদ্ধার করা হয়। তাকে শ্বাসরোধে খুন করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় নিহতের নির্মাণাধীন বাড়ির রাজমিস্ত্রির হেলপারকে গ্রেফতার

করা হয়েছে। নিহত সাইদা গাফফার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টি ও খাদ্যবিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক এবং একই বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক মৃত কিবরিয়া উল খালেকের স্ত্রী। গ্রেফতারকৃতের নাম আনারুল ইসলাম (২৫)। সে গাইবান্ধার সাদুল্লাহপুর থানার বুর্জুগ জামালপুর গ্রামের আনসার আলীর ছেলে।

জিএমপির কাশিমপুর থানার ওসি মাহবুবে খোদা ও নিহতের পরিবার জানান, ২০১৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অবসর গ্রহণ করেন অধ্যাপক সাইদা গাফ্ফার। তিনি গত প্রায় ১১ মাস ধরে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের পানিশাইল এলাকার মোশারফ হোসেন মৃধার বাড়িতে ভাড়া বাসায় থাকতেন। ভাড়া বাসায় থেকে তিনি একই এলাকাস্থিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক আবাসন প্রকল্পের ভেতরে বাড়ি নির্মাণ করছিলেন। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে নিখোঁজ হন তিনি। তার বাসার দরজা খোলা ছিল। পরে নিখোঁজের বিষয়টি তাঁর ছেলেকে মোবাইলে ফোনে জানান বাড়ির ঠিকাদার আনোয়ার হোসেন। রাত সোয়া ৯টায় অধ্যাপক সাইদার ছেলে ও মেয়ে সাদিয়া আফরিন কাশিমপুরে এসে মাকে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। স্বজনরা বিভিন্নস্থানে খোঁজাখুঁজি করেও তাঁর সন্ধান পায়নি। এ ব্যাপারে তাঁর মেয়ে সাহিদা আফরিন বুধবার কাশিমপুর থানায় একটি সাধারণ ডাইরি করেন।

জিএমপির কাশিমপুর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) শেখ মিজানুর রহমান জানান, সাধারণ ডাইরি করার পর নির্মাণাধীন বাড়ির প্লটে গিয়ে খোঁজখবর নেয়া হয়। তদন্তের নানা তথ্যের ভিত্তিতে ওই প্লটে কর্মরত রাজমিন্ত্রির যোগালি আনারুলকে গাইবান্ধার সাদুল্লাহপুর থেকে বৃহস্পতিবার রাতে আটক করা হয়। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে অধ্যাপক সাইদা গাফ্ফারকে হত্যার কথা স্বীকার করে আনারুল। শুক্রবার তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে নির্মাণাধীন ওই বাড়ির পার্শ্ববর্তী (আনুমানিক ২০০ গজ দূরে) একটি ঝোপের ভেতর থেকে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় অধ্যাপক সাইদার লাশ উদ্ধার করা হয়। ময়নাতদন্তের জন্য নিহতের লাশ শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে সাউদ ইফখার বিন জহির বাদী হয়ে অজ্ঞাত কয়েকজনসহ আনারুলকে আসামি করে শুক্রবার থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

পুলিশ কর্মকর্তা আরও জানান, ঘটনার সময় প্রফেসর সাইদা গাফফারের হাতে থাকা টাকা ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে আনারুল। এসময় তাকে বাঁধা অধ্যাপক সাইদার গলার ওড়না পেঁচিয়ে তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে। পরে লাশ ওই ঝোপের ভেতর লুকিয়ে রেখে পালিয়ে যায় বলে আনারুল প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে। এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে।

শীর্ষ সংবাদ:
আগুন যেন অপ্রতিরোধ্য ॥ একের পর এক দুর্ঘটনা ঘটেই চলেছে         শাবি ভিসির পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলন অব্যাহত         উলন বিদ্যুত উপকেন্দ্র পুড়ে ছাই         ইসি গঠনের বিলে দুই পরিবর্তনের সুপারিশ         খাদ্য মজুদ ২০ লাখ টন ছাড়িয়েছে         কিউকমের ২০ গ্রাহক ফেরত পেলেন আটকে থাকা টাকা         মধ্য ফেব্রুয়ারির আগে করোনা নিয়ন্ত্রণের বাইরে যেতে পারে         অর্ধেক জনবলে অফিস চলা শুরু         করোনায় আরও ১৫ জনের মৃত্যু         শিক্ষা আইন চূড়ান্ত শীঘ্রই সংসদে উঠবে ॥ শিক্ষামন্ত্রী         স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না গণপরিবহনে         কুমার নদে বিলীন মন্দিরসহ ১১ স্থাপনা         মধ্যপ্রাচ্যগামী এয়ার টিকেটের মূল্য তিনগুণ বেড়েছে         এবারের পুলিশ সপ্তাহে পুরনো দাবিগুলোই উত্থাপনের উদ্যোগ         দক্ষতা মূল্যায়নের মূল ভিত্তি হবে পারফরমেন্স         শিক্ষকদের বরখাস্তের ১৮০ দিনের মধ্যে অভিযোগ নিষ্পত্তির নির্দেশ         ঢাকায় ওমিক্রনের নতুন ৩ সাব-ভ্যারিয়েন্ট         করোনায় মৃত্যু ১৫, শনাক্ত ১৪৮২৮         আন্দোলনকারীদের অর্থ সংগ্রহের ৬ ‘অ্যাকাউন্ট বন্ধ’         ভূমি নিয়ে আসছে নতুন আইন