সোমবার ১৭ শ্রাবণ ১৪২৮, ০২ আগস্ট ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

রবির কিরণে সিক্ত শৈলজারঞ্জন মজুমদার

রবির কিরণে সিক্ত শৈলজারঞ্জন মজুমদার
  • বিচারপতি ওবায়দুল হাসান

একজন ছাত্র শৈলজারঞ্জন মজুমদার। তার শিক্ষাগুরু ছিলেন আচার্য্য প্রফুল চন্দ্র, বিজ্ঞানী সত্যেন্দ্রনাথ বোস, দিনেন্দ্র নাথ ঠাকুর ও কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। রসায়ন শাস্ত্রের একজন ছাত্র হয়ে উঠলেন রবীন্দ্র বিশেষজ্ঞ। যিনি মনে করতেন তার নিজের গুণ বলতে কিছু নেই। তিনি রবির কিরণে আলোকিত একজন মানুষ মাত্র। এই অঞ্চলে রবীন্দ্র চর্চার মাধ্যমে বিশুদ্ধ সংস্কৃতির বিকাশে তিনি চিরকাল একজন উজ্জ্বল পুরুষ। প্রতি বছর জুলাইয়ের এই সময়ে মননে তার কীর্তি ঘুরে ফেরে।

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের একজন একান্ত অনুগত ভাবশিষ্য শৈলজারঞ্জন মজুমদারকে নিয়ে আজকের এই লেখা। পূর্ব বাংলায় রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে যারা সাধারাণ মানুষের কাছে পরিচিত করে তুলেছিলেন, তাদের মধ্যে শৈলজারঞ্জন মজুমদার ও দেবব্রত বিশ্বাসের নাম উল্লেখযোগ্য। দেবব্রত বিশ্বাস ছিলেন কিশোরগঞ্জের মানুষ। তিনি রবীন্দ্র সঙ্গীত গেয়ে এই সঙ্গীতকে পূর্ব বাংলাসহ সমগ্র বঙ্গের মানুষের কাছে জনপ্রিয় করতে অসামান্য অবদান রেখেছেন। অপরদিকে শৈলজারঞ্জন মজুমদার ছিলেন শুদ্ধ রবীন্দ্র সঙ্গীত প্রচারের একজন ভ্যানগার্ড। রবীন্দ্রনাথের জীবদ্দশায় ১৯৩৪ সালে তিনি প্রথম রবীন্দ্র সঙ্গীত ‘মম মন উপবনে’ গানের স্বরলিপি তৈরি করেন। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্র শৈলজারঞ্জন মজুমদার রসায়ন শাস্ত্রে মাস্টার্সে প্রথম শ্রেণীতে প্রথম স্থান অধিকার করেন, সম্ভবত ১৯২৪-১৯২৫ সালের দিকে। ১৯৩২ সালে শান্তি নিকেতনে রসায়ন শাস্ত্রের অধ্যাপক হিসেবে যোগদান করার মধ্য দিয়ে শৈলজারঞ্জন মজুমদার সরাসরি কবি গুরুর সান্নিধ্যে আসার সুযোগ পান। ছাত্র জীবন থেকেই শৈলজারঞ্জন ছিলেন একজন রবীন্দ্রভক্ত। ১৯৩২ সাল থেকে কবিগুরুর প্রয়াণকাল পর্যন্ত তিনি তাঁর সরাসরি সান্নিধ্যে থেকে অনেক গান, নৃত্যনাট্য প্রভৃতির স্বরলিপি তৈরি করেছেন।

৪ শ্রাবণ ১৩০৭ বঙ্গাব্দ মোতাবেক ১৯ জুলাই ১৯০০ (পশ্চিম বাংলায় ২০ জুলাই) খ্রিস্টাব্দে শৈলজারঞ্জন মজুমদার ময়মনসিংহ জেলার নেত্রকোনা মহকুমার অন্তর্গত মোহনগঞ্জ থানার বাহাম গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পরিবার ছিল একটি কুলিন বর্ধিষ্ণু পরিবার। নেত্রকোনা থেকে মেট্রিক পাসের পর আরও পড়াশোনা করার জন্য বাবা রমণী কিশোর দত্ত মজুমদার ছেলেকে কলকাতায় পাঠিয়ে দেন। আধুনিক শিক্ষা ও আধুনিক জীবনযাপনের কায়দা কানুন অনুশীলন করার জন্য। রমণী কিশোর ছিলেন নেত্রকোনা মহকুমার তৎকালীন সময়ের একজন ডাকসাইটে আইনজীবী। বাবা চাইতেন ছেলেও তার মতো আইন ব্যবসায় আসুক। সে কারণে শৈলজারঞ্জন মজুমদার অনিচ্ছা সত্ত্বেও আইনে স্নাতক ডিগ্রী লাভ করে নেত্রকোনা মহকুমা আইনজীবী সমিতিতে যোগদান করেছিলেন। কিন্তু গুরুদেব রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ছিলেন শৈলজারঞ্জন মজুমদারের জীবন দেবতা। রবীন্দ্রনাথের সঙ্গীতের রস এমনভাবেই তাকে আকৃষ্ট করেছিল যে, তিনি আইন পেশা ছেড়ে শান্তি নিকেতনে পাড়ি জমিয়েছিলেন। রবীন্দ্রনাথ তাঁর জীবদ্দশাতেই শৈলজারঞ্জন মজুমদারকে শান্তি নিকেতনের সঙ্গীত ভবনের অধ্যক্ষ হিসেবে নিয়োগ দেন। শুরু হয় ভিন্ন এক পরিভ্রমণ। তিনি রবীন্দ্রনাথের গানের স্বরলিপি যেমন তৈরি করেছিলেন, তেমনি রবীন্দ্রনাথকে পূর্ববাংলা বিশেষ করে ময়মনসিংহ-নেত্রকোনা অঞ্চলের মানুষদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেয়ার জন্য তিনি কলকাতার বাইরে নেত্রকোনাতে ১৯৩২ সালে প্রথম কবিগুরুর জন্মদিন পালন করেছিলেন। নেত্রকোনায় কবিগুরুর জন্মদিন পালন করার প্রেক্ষিতে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর শৈলজারঞ্জন মজুমদারকে ধন্যবাদ সূচক এক পত্রে লিখেছিলেন-

কল্যাণীয়েষু,

তোমাদের নেত্রকোনায় আমার জন্মদিনের উৎসব যেমন পরিপূর্ণ মাত্রায় সম্পন্ন হয়েছে এমন আর কোথাও হয়নি। পুরীতে একবার আমাকে প্রত্যক্ষ সভায় নিয়ে সম্মান করা হয়েছিল। কিন্তু নেত্রকোনায় আমার সৃষ্টির মধ্যে অপ্রত্যক্ষ আমাকে রূপ দিয়ে আমার স্মৃৃতির যে প্রাণ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে, কবির পক্ষে সেই অভিনন্দন আরও অনেক বেশি সত্য। তুমি না থাকলে এই উপকরণ সংগ্রহ করত কে? এই উপলক্ষে বছরে বছরে তুমি আমার গানের অর্ঘ্য পৌঁছিয়ে দিচ্ছ তোমাদের পল্লীমন্দিরে। ভোগমণ্ডপে- এও কম কাজ হচ্ছে না--।

আমার লেখার শুরুতেই উল্লেখ করেছি পূর্ব বাংলায় রবীন্দ্রনাথ ও তাঁর সঙ্গীতকে যাঁরা জনপ্রিয় করে তুলেছিলেন তাদের মধ্যে শৈলজারঞ্জন মজুমদার অন্যতম। আমাদের নেত্রকোনার আরেক কৃতী সন্তান অধ্যাপক যতিন সরকার তাঁর এক সাক্ষাতকারে তিনি উল্লেখ করেছেন- ‘নূরুল আনোয়ারের বই থেকেই সে উদ্ধৃতি দিচ্ছি। সত্যেন বসু বলেছিলেন, ‘দেশে রবীন্দ্র সঙ্গীতের যে প্রভূত প্রচার হয়েছে, তার জন্য শৈলজারঞ্জন অনেকটাই দায়ী। এবং এজন্যই হয়তো সুরঙ্গমার ছাত্র-ছাত্রীরা তাকে এতো ভালবাসে। সকলের সঙ্গে আমি তার শুভ কামনা করি।’

রবীন্দ্র জীবনীকার প্রভাত মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ‘রবীন্দ্রনাথ অনেককেই আবিষ্কার করেছেন। শৈলজারঞ্জন তাদের অন্যতম। নিষ্ঠার সঙ্গে তিনি রবীন্দ্র সঙ্গীতের সুর তালাদি আয়ত্ত করেন। এবং যক্ষের ধনের মতো তা আগলে না রেখে তা প্রচার করেন একে একে। রবীন্দ্রনাথের কত গানের যে তিনি স্বরলিপিকার সে কথা আজ রবীন্দ্র শিক্ষার্থীদের অবিদিত নয়। বহু রবীন্দ্র সঙ্গীতের সুর তাল লুপ্ত হয়ে যেত, যদি না শৈলজারঞ্জন তার অসাধারণ স্মৃৃতি শক্তি বলে সেসব ধারণ করে না রাখতেন। রবীন্দ্র সঙ্গীতকে স্বরলিপিতে বেঁধে যারা ভাবীকালের সঙ্গীত শিক্ষার্থীদের পথ সুগম করে গেছেন শৈলজারঞ্জন তাদের অন্যতম।’ এমনকি রবীন্দ্রনাথের যে নাতনি বিশিষ্ট গায়িকা অমিয়া ঠাকুর, তিনিও বলেছেন, ‘রবীন্দ্র দাদা মশায়ের মৃত্যুর পর শৈলজা বাবু কলকাতায় আমাদের বাড়িতে এসে আমাদের দুটি গান যতœ দিয়ে শেখান। গান দুটি হলো ‘সম্মুখে শান্তি পারাবার’ ও ‘হে নূতন দেখা দিক আরবার’ রেকর্ড করার জন্য ঐ গান দুটো আমাকে শেখান।’ (শৈলজারঞ্জন মজুমদার স¥ারকগ্রন্থ, পৃষ্ঠা ৯৮, সম্পাদনা - মুহম্মদ আকবর)

দেশের প্রতি এই গুণী মানুষটির টান ছিল নিখাঁদ এক নাড়ির টান। ১৯৭৪ সালের আগে শৈলজারঞ্জন মজুমদার কখনও বাংলাদেশে এসেছেন তা শুনিনি। দ্বিতীয়বার এসেছিলেন ১৯৭৫ সালে। তখন তিনি আমার বাবার আতিথ্যে আমাদের মোহনগঞ্জের বাসা ‘ছায়ানীড়ে’ দুই-তিন রাত অবস্থান করেছিলেন। এ বিষয়টি আমি আমার অন্যান্য লেখায়ও উল্লেখ করেছি, শৈলজারঞ্জন মজুমদারের মতো মানুষের সঙ্গে আমাদের একটি পারিবারিক সম্পর্ক ছিল বা আছে, এটি ভাবতে আমার খুব আনন্দবোধ হয়, গর্ব হয়।

২০২০ সালের ডিসেম্বরে সস্ত্রীক গিয়েছিলাম কোলকাতায় স্ত্রীর চিকিৎসাজনিত কারণে। করোনা সংক্রমণের সময় বিদেশ ভ্রমণ একটি বিড়ম্বনা ছাড়া আর কিছু নয়। করোনার টেস্ট করে বিমান ভ্রমণ। ফেরার পথেও একই অবস্থা। আবারও কোলকাতার এ্যাপোলো হাসপাতালে করোনা টেস্ট করে বিমানে উঠতে হয়েছে। কোলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতিবৃন্দের জন্য নির্মিত গেস্ট হাউজ ‘বিজন ভবন’ সল্ট লেকের ৩ নম্বর সেক্টরে অবস্থিত। কোলকাতা হাইকোর্ট এর প্রধান বিচারপতির পূর্বানুমোদনক্রমে বাংলাদেশের বিচারপতিগণও তাদের ভ্রমণকালে সেখানে থাকার সুযোগ পান। নজরুলতীর্থ এবং রবীন্দ্রতীর্থ দুটি সাংস্কৃতিক কেন্দ্রই এই গেস্ট হাউসের বেশ কাছে। ইতোপূর্বে নজরুলতীর্থে গেলেও রবীন্দ্রতীর্থে আমার কখনও যাওয়া হয়নি। স্ত্রীর চিকিৎসা সংক্রান্ত রিপোর্ট পেতে আরও একদিন অপেক্ষা করতে হবে। তাই হাতে ছিল অফুরন্ত সময়।

এই অবসরেই একদিন আমরা দুজনেই গেলাম রবীন্দ্রতীর্থে। গাড়ি পার্ক করে প্রধান কার্যালয়ের দিকে যাচ্ছিলাম। বুঝতেই পারছিলাম না যে, এখানে এদের কোন লোকজন আছে কিনা? একজন পরিচ্ছন্নতাকর্মীকে জিজ্ঞেস করে তাকে সঙ্গে নিয়ে তার পথ নির্দেশে অফিসের দিকে যাই। দরজা ঠেলে ভিতরে প্রবেশ করি। সেখানে এক ভদ্রলোকের সঙ্গে আমার পরিচয় হয়, তার নাম অনুপ কুমার মতিলাল। তিনি ভারত সরকারের একজন সাবেক সচিব। বর্তমানে রবীন্দ্র এবং নজরুল উভয় তীর্থের প্রধান কর্তা ব্যক্তি। অত্যন্ত বিনয়ী এবং ভদ্রলোকের এক প্রতিভূ এই অনুপ কুমার মতিলাল। আমার পরিচয় পেয়ে তিনি চেয়ার থেকে দাঁড়িয়ে প্রণাম জানিয়ে আমাকে বললেন, ‘স্যার আপনি ঢাকা থেকে এসে আজ রবীন্দ্রতীর্থ দেখতে এসেছেন, বিষয়টি আমার কাছে অত্যন্ত আনন্দের’। কারণ জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, ‘কোলকাতার মানুষদের আজকাল খুব একটা সময় নেই এখানে আসার। অনুষ্ঠান যখন থাকে তারা শুধু তখনই এখানে আসেন।’

অনুপ কুমার ঘুরে ঘুরে সমস্ত তীর্থ স্থানটি দেখান। মিউজিয়ামসহ অন্যান্য অংশও দেখান। কিছু স্যুভেনির শুভেচ্ছা উপহার দেন। কথায় কথায় যখন শৈলজারঞ্জন মজুমদারের প্রসঙ্গটি আমি তুললাম, তখন লক্ষ্য করি তিনি অধীর আগ্রহে জানতে চান শৈলজারঞ্জন মজুমদারের সঙ্গে আমাদের পরিচয় কিভাবে হয়েছিল ইত্যাদি। উত্তরে বলেছিলাম- তার সঙ্গে আমাদের জন্ম-জন্মান্তরের পরিচয়। বলেছিলাম, এই মহান মানুষটির জন্মস্থান ও আমার জন্মস্থান একই জায়গায়, আমরা উভয়েই একই মাটির সন্তান। আমার মোবাইলে শৈলজারঞ্জন মজুমদারের সঙ্গে আমার ও আমার পরিবারের ছবি দেখে তিনি আপ্লুত হয়ে ওঠেন এবং আমাকে ছবিগুলো তাকে দেয়ার জন্য অনুরোধ করেন। তিনি জানান তার স্ত্রী এবং তার পরিবারের অনেকেই শৈলজারঞ্জন মজুমদারের সরাসরি ছাত্র। শৈলজারঞ্জন মজুমদারের নিয়ে অনুপ কুমারের আগ্রহ ও শ্রদ্ধামাখা উচ্ছ্বাস দেখে নিজেও অভিভূত হয়ে পড়ি।

১৯৯২ সালের ২৪ মে ভোর রাতে শৈলজারঞ্জন মজুমদার কোলকাতায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। নেত্রকোনায় খবরটি পৌঁছাতে ১/২ দিন সময় লাগে। তখনকার নেত্রকোনার গণ্যমান্য ব্যক্তিবৃন্দ নেত্রকোনা পাবলিক হলে এক নাগরিক শোক সভার আয়োজন করেছিলেন। মোহনগঞ্জের গুণী শিল্পী আমার বাল্যবন্ধু দুলাল চন্দ্র ধরসহ অনেকেই সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। দুলালের নিকট শুনেছি সেই শোক সভায় সে সহ নেত্রকোনার বেশ কিছু শিল্পী রবীন্দ্র সঙ্গীত পরিবেশন করে শৈলজারঞ্জন মজুমদারের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছিলেন। আর এই শোক সভাটিতে সভাপতিত্ব করেছিলেন আমার বাবা ডাঃ আখ্লাকুল হোসাইন আহমেদ।

১৯৯১ সালের জুলাই মাসে পালিত হয়েছিল শৈলজারঞ্জন মজুমদারের শেষ জন্মদিন। সেদিনটি কিভাবে পালিত হয়েছিল এর একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণ পাওয়া যায় শৈলজারঞ্জন মজুমদারের জীবনী নিয়ে লেখা সঞ্জয় সরকারের গ্রন্থে। তিনি উল্লেখ করেছেন- ১৯৯১ সাল, শৈলজারঞ্জনের বয়স ৯১। তিনি প্রায় শয্যাশায়ী। ভক্তরা এবার পশ্চিমবঙ্গের তৎকালীন মূখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসুর উপস্থিতিতে তার জন্মদিন পালনের উদ্যোগ নিলেন। ভক্তদের আগ্রহে সানন্দে রাজি হলেন জ্যোতি বসু। অতিথিকে গেয়ে শোনানোর জন্য শৈলজারঞ্জন মজুমদার নিজেই কয়েকটি গান বাছাই করে দিলেন। বাংলাদেশ থেকে চার-পাঁচজন কিশোর-কিশোরী রবীন্দ্র সঙ্গীত শিক্ষার্থীকে নিয়ে হাজির হলেন ওয়াহিদুল হক। সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যকে সঙ্গে করে হাজির হলেন জ্যোতি বসু। এসেই শৈলজারঞ্জন মজুমদারের উদ্দেশে শ্রদ্ধা নিবেদন করলেন। এরপর তার শয্যাপাশে বসে গান শুনলেন। চারটি গান দিয়ে ছোট্ট অনুষ্ঠান শেষ হলো। গানগুলো ছিল- ‘কবে আমি বাহির হলেম’, ‘সুরের গুরু’ ‘তুমি খুশি থাক’ ও ‘কি পাইনি তারি হিসাব মিলাতে মন মোর নাহি রাজি।’ অনুষ্ঠান শেষে মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু শৈলজারঞ্জনের দু’হাত ধরে বললেন, ‘আপনার মতো খাঁটি মানুষের অনেক বেশ প্রয়োজন। আপনি অনেক অনেক দিন থাকুন।’

শৈলজারঞ্জনের বাড়ি সরকারী খাস জমিতে পরিণত হয়েছে দেশ বিভাগের বেশ আগে। সেখানে আসাম থেকে আসা কিছু উদ্বাস্তুু বাস করে আসছে অনেকদিন যাবত। শৈলজারঞ্জন মজুমদারকে আমরা আমাদের মাটিতে ধরে রাখতে পারিনি এ অঞ্চলের বিরূপ রাজনৈতিক পরিবেশের কারণে। ১৯৪৭ সাল থেকে ১৯৭১ সাল অবধি শৈলজারঞ্জন মজুমদার কখনও তার জন্মভিটায় আসেননি। যদিওবা তার মাতাপিতা এদেশেই মৃত্যুবরণ করেন এবং এদেশেই তাদের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছিল। তবে তার স্মৃৃতি ধরে রাখার চেষ্টা আমরা করছি। করে চলেছি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান চেয়েছিলেন শৈলজারঞ্জন মজুমদারকে দেশে ফিরিয়ে আনতে।

১৯৭৪ সালে বাংলাদেশ সফরের সময় শৈলজারঞ্জন মজুমদার জাতির পিতা ও স্বাধীন বাংলাদেশের রাষ্ট্রনায়ক বঙ্গবন্ধুু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে সাক্ষাত করেন। তখন বঙ্গবন্ধু তাকে সাদর অভ্যর্থনা জানান। বঙ্গবন্ধু শৈলজারঞ্জনকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘আপনারে আর ছাড়ুমই না’। শৈলজারঞ্জন মজুমদার তখন বলেন, ‘আমার গ্রামের বাড়ি উদ্বাস্তুুদের দখলে, শহরের বাড়িতে মসজিদ হয়েছে, থাকার জায়গা কোথায়?’ উত্তরে বঙ্গবন্ধু জোর দিয়ে বলেন, ‘ছাইড়্যা দেন। আমি আপনেরে বাড়ি দিমু, গাড়ি দিমু, ডোমিসিল দিমু। আপনার জায়গার অভাব হবে না।’ জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর এই আন্তরিকতায় মুগ্ধ হয়েছিলেন শৈলজারঞ্জন। তাই তিনি তার জীবনী সংক্রান্ত বই ‘যাত্রাপথের আনন্দগান’-এ বঙ্গবন্ধুুর উদ্ধৃতিগুলো উল্লেখ করে নিজের অভিব্যক্তি এভাবে প্রকাশ করেছেন , ‘সে আমিও আমার অন্তরের অন্তস্থলে উপলব্ধি করেছি।’

শৈলজাঞ্জন মজুমদারের বাড়িতে আশ্রয় নেয়া উদ্বাস্তুুদের অন্যত্র থাকার ব্যবস্থা করে অবশেষে বাড়িটি আমাদের চেষ্টায় সরকার উদ্ধার করেছে। শৈলজারঞ্জন মজুমদারের বাড়িটিতে আমার ছোট ভাই সাজ্জাদুল হাসান (সাবেক সচিব, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়) ও আমাদের সকলের উদ্যোগে শৈলজারঞ্জন সংস্কৃতি কেন্দ্র প্রতিষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী এই সংস্কৃতি কেন্দ্রটি প্রতিষ্ঠা করার জন্য চল্লিশ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছেন। ডিসেম্বর ২০২০ সালের শেষের দিকে সংস্কৃতি কেন্দ্রটি পরিদর্শনে গিয়েছিলাম। প্রকল্পটি এবছর অর্থ্যাৎ ২০২১ সালের জুন মাসে শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনা সংক্রমণের প্রাদুর্ভাবজনিত কারণে এটি একটু প্রলম্বিত হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে এ বছরের অর্থ্যাৎ ২০২১ সালের ডিসেম্বরে এই সংস্কৃতি কেন্দ্রটি উদ্বোধন করা হবে। ২.৩২ একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত ‘শৈলজারঞ্জন মজুমদার সংস্কৃতি কেন্দ্র’টি নেত্রকোনা জেলা তথা সারা বাংলাদেশের একটি অন্যতম সংস্কৃতি কেন্দ্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করবে। নির্মাণাধীন ভবনটির ছবি কোলকাতাস্থ রবীন্দ্রতীর্থের প্রধান কর্তা ব্যক্তির স্ত্রী অনুপ কুমার মতিলালের নিকট পাঠিয়েছি।

অনুপ কুমার মতিলাল আশা প্রকাশ করে আমাকে বলেছিলেন, ‘শৈলজারঞ্জন মজুমদার সংস্কৃতি কেন্দ্র’টির কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হলে তিনি এবং ওপার বাংলার রবীন্দ্র প্রেমিকদের অনেকেই এটি দেখতে আসবেন। বাংলাদেশের রবীন্দ্র স্মৃতি বিজড়িত শিলাইদহ, শাহজাদপুর, পতিসর, দক্ষিণডিহি, কুষ্টিয়ার ট্যাগোর লজ যেমন রবীন্দ্র প্রেমিকদের নিকট আকর্ষণীয়, তেমনি রবির কিরণে সিক্ত ও তাঁর আলোয় আলোকিত শৈলজারঞ্জন মজুমদারের প্রতি পরম শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় প্রতিষ্ঠিত সংস্কৃতি কেন্দ্রটিও একদিন উভয় বাংলার রবীন্দ্র প্রেমিকদের কাছে একটি দর্শনীয় স্থান হয়ে উঠবে। ১৯ জুলাই শৈলজারঞ্জন মজুমদারের জন্মদিন। শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় তাকে স্মরণ করে এই প্রত্যাশায় শেষ করছি, ‘শৈলজারঞ্জন মজুমদার সংস্কৃতি কেন্দ্র’টি সবাইকে রবির কিরণে সিক্ত অনন্য মানুষটির কর্ম ও কীর্তির কাছে নিয়ে আসবে।

লেখক : বিচারপতি, আপীল বিভাগ,

বাংলাদেশ সুপ্রীমকোর্ট

শীর্ষ সংবাদ:
খুনীদের পুরস্কৃত করেন এরশাদ খালেদা         ১৫ ও ২১ আগস্ট হত্যাকান্ডের কুশীলবরা এখনও সক্রিয় ॥ সেতুমন্ত্রী         শোক দিবসের সব অনুষ্ঠানে র‌্যাবের টহল থাকবে ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার প্রদীপ অনন্তকাল জ্বলবে ॥ তথ্যমন্ত্রী         এক সপ্তাহে ১ কোটি মানুষকে টিকা দেয়া হবে ॥ স্বাস্থ্যমন্ত্রী         লিঙ্গ-বয়সভেদে করোনার উপসর্গ ভিন্ন         আজ থেকে শুরু হচ্ছে এ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজ টিকাদান         পর্যটনেই সম্ভব কোটি মানুষের কাক্সিক্ষত কর্মসংস্থান         ‘দেশের অগ্রযাত্রা থামিয়ে দিতেই বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছিল’         করোনা ভাইরাসে আরও ২৩১ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৪৮৪৪         করোনা ভাইরাস ॥ ১ সপ্তাহে ১ কোটি মানুষকে টিকাদানের লক্ষ্য সরকারের         ডেঙ্গু ॥ ১ দিনে আরও ২৩৭ জন হাসপাতালে ভর্তি         ‘গার্মেন্টস খুলে দেয়ায় সংক্রমণ আরও বাড়বে’         চাপ সামলাতে সাময়িক ব্যবস্থা হিসেবে গণপরিবহন চালু ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         দারিদ্র্যের নয়, দেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল         ভূমধ্যসাগর থেকে বাংলাদেশিসহ ৩৯৪ অভিবাসী উদ্ধার         সোমবার থেকে ঢাকায় অ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজ         এডিসের লার্ভার উৎস নিধনে দক্ষিণ সিটিতে চালু হচ্ছে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ         লঞ্চ চলবে আগামীকাল ভোর ৬টা পর্যন্ত         ১৫ আগস্ট ইতিহাসের নিষ্ঠুরতম রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড