বুধবার ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮, ০৪ আগস্ট ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

করোনা সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে

করোনা সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে

অপূর্ব কুমার ॥ করোনার তৃতীয় ঢেউ চোখ রাঙাচ্ছে। প্রথম ও দ্বিতীয় ঢেউয়ের শুরুটা ভালভাবে সামাল দিলেও ডেল্টা ধরনের কারণে বাংলাদেশে গত ১৫ দিনে করোনার সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে। সরকার ঘোষিত বিধি-নিষেধ ও স্বাস্থ্যবিধি সঠিকভাবে পালন না করলে চলতি মাসের সামনের দিনগুলোতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার আশঙ্কা করছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বর্তমানে সংক্রমণ বাড়ার পেছনে লকডাউনের শিথিলতা ও নতুন ধরনকে দায়ী করেছেন। এভাবে চলতে থাকলে করোনার তৃতীয় ঢেউ খুবই সন্নিকটে রয়েছে বলেও শঙ্কা তাদের।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সোমবার মন্ত্রিপরিষদের সভায় করোনা সংক্রমণে হার বিবেচনায় নিয়ে প্রয়োজনে স্থানীয়ভাবে লকডাউনের নির্দেশ দিয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে স্থানীয় প্রশাসনকে কোন রকম ঝুঁকি না নেয়ার নির্দেশ দেন তিনি। স্বাস্থ্য অধিদফতরের বিশেষজ্ঞ কমিটিও সীমান্তসহ যেকোন জেলার সংক্রমণ অধিকহারে বাড়লে সঙ্গে সঙ্গে সেখানে লকডাউনের সুপারিশ করেছে। সেই অনুযায়ী সীমান্ত ও উচ্চ সংক্রমিত জেলার কয়েকটিতে স্থানীয়ভাবে লকডাউন চলছে। লকডাউনের মধ্যেই সেখানে করোনা সংক্রমণের হার বাড়ছে। রাজশাহী, নাটোর, সাতক্ষীরা, খুলনাসহ কয়েকটি জেলায় এখন স্থানীয়ভাবে কঠোর বিধি-নিষেধ কর্মসূচী পালিত হচ্ছে।

গত এক মাসের করোনা সংক্রমণের হার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, মে মাসের ১৫ তারিখে দেশব্যাপী নমুনা সংগ্রহের বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার ছিল ৭ শতাংশ। পরপর তিনদিন ৭ শতাংশের কাছাকাছি রোগী শনাক্ত হয়। ১৮ মে তা বেড়ে দাঁড়ায় ৮ শতাংশে। ১৯ মে ৮ শতাংশ হারে রোগী শনাক্ত হয়। ২০ মে ফের কমে যায় রোগী শনাক্তের হার। তা নেমে ৭ শতাংশে দাঁড়ায়। এরপরে ওঠানামা করতে করতে জুন মাসের ১ তারিখ থেকে শনাক্তের হার হঠাৎ করেই ১০ শতাংশের ওপরে পৌঁছায়। ৪ জুন পর্যন্ত রোগী শনাক্তের হার ছিল ১০ শতাংশ। ৫ জুন রোগী শনাক্তের হার দাঁড়ায় ১১ শতাংশে। ৭ তারিখ পর্যন্ত এই হার ১১ শতাংশ ছিল। ৮ ও ৯ তারিখে এই হার পৌঁছায় ১২ শতাংশে। ১০ জুন তারিখে হার পৌঁছায় ১৩ শতাংশে। ১১ জুনও তা ছিল ১৩ শতাংশে। ১২ জুন শনাক্তের হার কিছুটা কমে। ১৪ জুন মোট ১৫ শতাংশের কাছাকাছি করোনা শনাক্ত হয়। ১৫ জুন সারাদিনে মোট ১৪ দশমিক ২৭ শতাংশ হারে করোনা রোগী শনাক্ত হয়।

রাজধানীর পরিস্থিতি ॥ মঙ্গলবার রাজধানীতে নমুনার বিপরীতে করোনা শনাক্তের হার কমেছে। দিনটিতে নমুনার বিপরীতে করোনা শনাক্তের হার দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৩১ শতাংশ। মোট ১০ হাজার ৩৫৫টি নমুনার বিপরীতে মোট ৫৫০ জন রোগী শনাক্ত হয় দিনটিতে। সোমবার রাজধানীতে নমুনার বিপরীতে শনাক্তের হার ৭ দশমিক ৪১ শতাংশ। একইসঙ্গে ঢাকা বিভাগে শনাক্তের ৯ শতাংশের কিছু বেশি। ১৩ জুন শনাক্তের হার ৬ দশমিক ৪০ শতাংশ। একইদিন শনাক্তের হার ৭ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ। ১২ জুন শনাক্তের হার ৫ দশমিক ৮২ শতাংশ। ঢাকা বিভাগে শনাক্তের হার ৮ দশমিক ৬৩ শতাংশ। ১১ জুন শনাক্তের হার ৪ দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ। আর ঢাকা বিভাগে আট হাজার ৫৩৬টি নমুনা পরীক্ষা করে ৪৮০ রোগী শনাক্ত হন। শনাক্তের হার ৫ দশমিক ৬২ শতাংশ। ১০ জুন রাজধানীতে শনাক্তের হার ৪ দশমিক ১২ শতাংশ। ওইদিন শনাক্তের হার ৫ দশমিক ৯ শতাংশ।

শীর্ষ সংবাদ:
শেখ মুজিবের বাংলাদেশে সবার জীবন হবে উন্নত         অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ঐতিহাসিক টি২০ জয়         এ্যাস্ট্রাজেনেকার আরও ছয় লাখ ডোজ টিকা এসেছে         বিভ্রান্তিকর তথ্য দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সম্মানহানির অপচেষ্টা         প্রথম টি-২০তে অস্ট্রেলিয়াকে হতাশায় ফেলে বাংলাদেশের দারুণ জয়         করোনা ভাইরাসে আরও ২৩৫ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৫৭৭৬         লকডাউন ১০ আগস্ট পর্যন্ত বাড়ল         ‘জাতির পিতার এই দেশে কেউ গৃহহীন থাকবে না’         ১১ আগস্ট থেকে দোকানপাট খোলা হবে         হাসপাতালে জায়গা নেই, হোটেল খুঁজছি ॥ স্বাস্থ্যমন্ত্রী         লকডাউনের দ্বাদশ দিনে ৩৫৪ জনকে গ্রেফতার         ডেঙ্গু ॥ হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যা হাজার ছাড়িয়েছে         জাপান থেকে এলো আরও ৬ লাখ ১৭ হাজার টিকা         ভ্যাকসিন জনগণের কাছে পৌঁছে যাবে, দৌড়াতে হবে না         টিকা ছাড়া রাস্তায় বের হলেই শাস্তি         ১৪ দিনের রিমান্ডে হেলেনা জাহাঙ্গীর         খুলনা বিভাগে করোনায় আরও ৩১ জনের মৃত্যু         আধুনিক ফ্ল্যাট পেলেন বস্তির ৩০০ পরিবার         ভারতীয় টিকা 'কোভ্যাক্সিন' ॥ বাংলাদেশে ট্রায়ালের অনুমোদন         শেষ হবার আগেই ‘শেষ’ কঠোর বিধিনিষেধ