বৃহস্পতিবার ৮ বৈশাখ ১৪২৮, ২২ এপ্রিল ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

মাদ্রাসায় পতাকা ওঠানো ও জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া বাধ্যতামূলক করতে হবে

  • নির্মূল কমিটির ওয়েবিনার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ স্বাধীনতাবিরোধী মৌলবাদী অপশক্তি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও চেতনার বিরুদ্ধে, সর্বোপরি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক জিহাদ ঘোষণা করেছে। দেশের মাটি থেকে এদের নির্মূল করা না হলে মুক্তিযুদ্ধের যাবতীয় অর্জন ধ্বংস হয়ে যাবে বলে মনে করেন বিশিষ্টজনরা।

তারা বলেছেন, স্বাধীনতাবিরোধী মৌলবাদী হেফাজতিরা মাদ্রাসার পাঠ্যসূচী যুগোপযোগী করতে দিচ্ছে না। সকল মাদ্রাসায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া বাধ্যতামূলক করতে হবে। পাশাপাশি সাম্প্রদায়িকতার হাত ধরে জঙ্গীবাদের উত্থান ঠেকানো না গেলে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস আরও বিকৃত হবে। এজন্য তরুণ প্রজন্মকে যুক্ত করে একটি পুনর্জাগরণের ডাক দেয়া প্রয়োজন বলেও মনে করেন তারা।

এক মার্চ থেকে শুরু হয়েছে বর্ষব্যাপী স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উৎসব। সোমবার একাত্তরের ঘাতক-দালাল-নির্মূল কমিটি স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ‘মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও চেতনা সংরক্ষণ ও বিকাশ: সরকার ও নাগরিক সমাজের করণীয়’ শীর্ষক এক আন্তর্জাতিক ওয়েবিনারের আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা এ্যাডভোকেট আকম মোজাম্মেল হক এমপি বলেন, ‘ইতিহাসে মুক্তিযোদ্ধাদের বীরত্ব গাথার পাশাপাশি পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী এবং তাদের সহযোগীদের নৃশংসতার বিবরণ সমানভাবে থাকতে হবে। সকল পর্যায়ে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস পাঠ বাধ্যতামূলক করার পাশাপাশি পাঠ্যসূচীতে ৫০ নম্বর মুক্তিযুদ্ধের গৌরব গাথা এবং ৫০ নম্বর থাকতে হবে প্রতিপক্ষের ও মুক্তিযুদ্ধবিরোধীদের ভয়াবহতা ও নৃশংসতার কথা। এর ফলে তরুণ প্রজন্ম বুঝতে পারবে তারা কোন পক্ষে থাকবে। বিসিএস-এর প্রশ্নপত্রে মুক্তিযুদ্ধের প্রতিপক্ষের ইতিহাসের ওপর প্রশ্ন অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জাতীয় সঙ্গীত ও জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয় না। দশম শ্রেণী পর্যন্ত সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জাতীয় সঙ্গীত বাধ্যতামূলক করতে হবে একথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, মাঠে এসেম্বলির জায়গা না থাকলে শ্রেণীকক্ষে নিজ নিজ স্থানে দাঁড়িয়ে শিক্ষার্থীদের জাতীয় সঙ্গীত গাইতে হবে। শুধু আইন নয়, এ বিষয়ে জনমত গঠন করতে হবে। এক্ষেত্রে নির্মূল কমিটি অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে পারে। তারা এ বিষয়ে অনেক প্রকাশনা ও তথ্যচিত্র প্রকাশ করেছে।

তরুণ প্রজন্মের জানা উচিত যে, স্বাধীনতাযুদ্ধ সার্বিকভাবে জাতির অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক মুক্তির জন্য হয়েছিল একথা উল্লেখ করে মোজাম্মেল বলেন, কিন্তু এখনও আমরা পরিপূর্ণভাবে এ লক্ষ্য অর্জন করতে পারিনি। স্বাধীনতার পরে সাম্প্রদায়িকতার বীজ মুক্তিযুদ্ধে বিরোধিতাকারীরা সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে প্রবেশ করিয়েছে। ভূলুণ্ঠিত মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য নির্মূল কমিটি সৃষ্টি হয়েছিল।

সভাপতির বক্তব্যে শাহরিয়ার কবির বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে আমাদের অনন্য সাধারণ অর্জনের পাশাপাশি অপ্রাপ্তির বিষয়েও বলা প্রয়োজন। বিশেষভাবে যা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা এবং জাতির পিতার আদর্শের সঙ্গে যুক্ত। যদিও আমরা সর্বোচ্চ মূল্য দিয়ে স্বাধীনতা অর্জন করেছি, আমাদের দুর্ভাগ্য হচ্ছেÑ গত ৫০ বছরে অধিকাংশ সময় এ দেশ শাসিত হয়েছে স্বাধীনতাবিরোধী এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিনাশী মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক অপশক্তির দ্বারা। এই অপশক্তি ক্ষমতায় থাকাকালে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস ও চেতনা মুছে ফেলে বাংলাদেশকে পাকিস্তানের মতো মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসী রাষ্ট্রে পরিণত করতে চেয়েছিল।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসে বঙ্গবন্ধু ও চার জাতীয় নেতার হত্যার বিচার করেছেন, ’৭১-এর স্বাধীনতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের বিচার আরম্ভ করেছেন এবং মুক্তিযুদ্ধের বিনষ্ট ইতিহাস বহুলাংশে পুনরুদ্ধার করেছেন। কিন্তু বিস্মৃত ইতিহাস পুনরুদ্ধারে সক্ষম হলেও এখনও আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পুনরুদ্ধার করতে পারিনি।

মুক্তিযুদ্ধের সুবর্ণজয়ন্তী উদ্যাপনকালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের অনন্যসাধারণ ইতিহাস এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনা দেশে ও বহির্বিশ্বে নতুন প্রজন্মের নিকট তুলে ধরার জন্য বহুমাত্রিক উদ্যোগ গ্রহণের দাবি জানিয়ে শাহরিয়ার কবির বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ এবং সংবিধানে বর্ণিত রাষ্ট্রের চার মূলনীতির প্রতিফলন সরকারের যাবতীয় কর্মে থাকতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে নিরাপদ রাখার জন্য বঙ্গবন্ধু সাংবিধানিকভাবে ধর্মের নামে রাজনীতি নিষিদ্ধ করেছিলেন। বঙ্গবন্ধুর নৃশংস হত্যাকাণ্ডের পর পাকিস্তানপন্থী দুই জেনারেল জিয়া ও এরশাদ ধর্মের নামে রাজনীতি চালু করার পাশাপাশি রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম করেছেন, যা ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তে লেখা সংবিধান এবং জাতির পিতার আদর্শের প্রতি চরম বিশ্বাসঘাতকতা।

ধর্মের রাজনৈতিক ব্যবহারের ফলে সমাজের সর্বক্ষেত্রে জঙ্গী মৌলবাদী ও সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের বিস্তার ঘটছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, স্বাধীনতাবিরোধী মৌলবাদী অপশক্তি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও চেতনার বিরুদ্ধে, সর্বোপরি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক জেহাদ ঘোষণা করেছে। বাংলাদেশের মাটি থেকে এদের নির্মূল করা না হলে মুক্তিযুদ্ধের যাবতীয় অর্জন ধ্বংস হয়ে যাবে।

নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার বলেন, সকলের অবহেলা উদাসীনতায় সমাজ মৌলবাদীদের দখলে চলে গেছে। সাম্প্রদায়িকতা বহুগুণে বেড়েছে। সাম্প্রদায়িকতার হাত ধরে জঙ্গীবাদ এসেছে। বঙ্গবন্ধু ধর্মভিত্তিক রাজনীতি বন্ধ করেছিলেন, জিয়াউর রহমান চালু করেছেন। ফলে সমাজ বার বার পিছিয়ে পড়ছে। ডিজিটাল আইনের অপব্যবহার হচ্ছে। ওয়াজের মধ্যে নারী, বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে কটাক্ষের বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হয় না। বিজ্ঞান ও বাংলা মিলিয়ে মাদ্রাসার পাঠ্যসূচী তৈরি করা উচিত। শিক্ষাকে একমুখী করা দরকার। পাকিস্তানী মানসিকতা প্রচণ্ডভাবে সমাজে ও প্রশাসনে কাজ করছে। এই মানসিকতা দূর করতে না পারলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রতিষ্ঠিত হবে না। তরুণ প্রজন্মের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়াতে হবে এবং তাদের মাধ্যমেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রতিষ্ঠিত করতে হবে।

শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী বলেন, মাদ্রাসায় এবং অন্য সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ১০০ নম্বরের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও চেতনার পাঠ বাধ্যতামূলক করতে হবে। মাদ্রাসায় যারা পড়ে তারা আমাদেরই সন্তান। আমরা এভাবে মাদ্রাসাগুলোকে মৌলবাদীদের হাতে জিম্মি হতে দিতে পারি না। স্বাধীনতাবিরোধী মৌলবাদী হেফাজতিরা মাদ্রাসার পাঠ্যসূচী যুগোপযোগী করতে দিচ্ছে না। সকল মাদ্রাসায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া বাধ্যতামূলক করতে হবে।

লেঃ কর্নেল (অব) কাজী সাজ্জাদ আলী জহির বীরপ্রতীক বলেন, পরবর্তী প্রজন্মের হাতে আমরা মুক্তিযুদ্ধের পতাকা সঠিকভাবে তুলে দিতে পেরেছি কিনা, তা দেখতে হবে। মুক্তিযোদ্ধাদের কবর অনেক জায়গায় হারিয়ে গেছে। এগুলো শনাক্ত ও সংরক্ষণ করা দরকার। ভারতীয় মুক্তিযোদ্ধাদের শনাক্তকরণের কাজসহ আরও অনেক কাজ চলছে। কিন্তু তবুও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পরিপূর্ণভাবে প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে না।

মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি, লেখক গবেষক মফিদুল হক বলেন, উচ্চপর্যায়ে মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

সভায় বরেণ্য মুক্তিযোদ্ধা এবং মুক্তিযুদ্ধে শহীদ পরিবারের প্রতিনিধিরা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও চেতনা পাঠ প্রাথমিক স্তর থেকে স্নাতকোত্তর পর্যন্ত সকল মাধ্যমে বাধ্যতামূলক করতে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রীকে বিশেষভাবে উদ্যোগ নেয়ার অনুরোধ জানান। বক্তারা বলেন, কওমি মাদ্রাসায় জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া হারাম বলে ফতোয়া দেয়া হচ্ছে, অধিকাংশ মাদ্রাসায় জাতীয় পতাকাও ওড়ানো হয় না। সকল প্রাথমিক, মাধ্যমিক প্রতিষ্ঠানে জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া এবং জাতীয় পতাকা উত্তোলন বাধ্যতামূলক করার জন্য বক্তারা সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

আলোচনায় আরো অংশ নেন নির্মূল কমিটির উপদেষ্টা যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক ডাঃ আমজাদ হোসেন, মুক্তিযুদ্ধে শহীদ ভাষাসংগ্রামী ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের পৌত্রী সমাজকর্মী আরমা দত্ত এমপি, নির্মূল কমিটির সহসভাপতি শিক্ষাবিদ মমতাজ লতিফ, অনলাইন এ্যাক্টিভিস্ট ও গণজাগরণ মঞ্চের অন্যতম সংগঠক লেখক মারুফ রসুল ও নির্মূল কমিটির সাধারণ সম্পাদক কাজী মুকুল।

করোনাভাইরাস আপডেট
বিশ্বব্যাপী
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
১৩৯৮০৯২৪৪
আক্রান্ত
৭৩২০৬০
সুস্থ
১১৮৮৩৬২৩৩
সুস্থ
৬৩৫১৮৩
শীর্ষ সংবাদ:
বিলাসী ব্যয় নয় ॥ ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে কৌশলী পদক্ষেপ         শান্তর শতকে বড় সংগ্রহের পথে বাংলাদেশ         বিকল্প উৎস থেকে টিকা সংগ্রহের সর্বাত্মক প্রচেষ্টা         দুস্থ মানুষের সহায়তায় প্রধানমন্ত্রীর বরাদ্দ সাড়ে ১০ কোটি টাকা         আতিকউল্লাহ খান মাসুদের মৃত্যুতে শোক অব্যাহত         ব্যাঙ্ককে হেফাজত বিএনপি গোপন বৈঠকে ষড়যন্ত্র         ১৫ দিনে এলো এক মাসের বেশি রেমিটেন্স         কাম ক্রোধে মত্ত আপাদমস্তক ভণ্ড যুবক         হাওড়ে ধান কাটা ও মাড়াইয়ের ধুম         করোনায় আরও ৯৫ জনের মৃত্যু         দরিদ্র মানুষের জীবন জীবিকায় সবচেয়ে গুরুত্ব দেয়া হবে         রূপপুর বিদ্যুত কেন্দ্রের দ্বিতীয় রি-এ্যাক্টরও আসছে         উদ্বোধনের অপেক্ষায় কক্সবাজারের রানওয়ে প্রকল্প         মেট্রোরেলের বগির প্রথম চালান ঢাকায়         মহামারীতে পোশাক খাতের পুনরুদ্ধার ব্যাহত         আগামী রবিবার দোকান-শপিংমল খোলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত         হেফাজতের আরেক সহকারী মহাসচিব গ্রেফতার         দরিদ্র মানুষের জীবন-জীবিকায় সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হবে : অর্থমন্ত্রী         করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৯৫, নতুন শনাক্ত ৪২৮০         ঢাকায় পৌঁছেছে মেট্রোরেলের প্রথম কোচ