বৃহস্পতিবার ১৪ মাঘ ১৪২৭, ২৮ জানুয়ারী ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

চার মাসেই লক্ষ্যমাত্রার ৭৮ শতাংশ সঞ্চয়পত্র বিক্রি

চার মাসেই লক্ষ্যমাত্রার ৭৮ শতাংশ সঞ্চয়পত্র বিক্রি

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ চলতি অর্থবছরে বাজেট ঘাটতি মেটাতে সঞ্চয়পত্র বিক্রি থেকে ২০ হাজার কোটি টাকা সংস্থানের পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। তবে অর্থবছরের প্রথম চার মাসেই (জুলাই-অক্টোবর) সঞ্চয়পত্রের নিট বিক্রি থেকে সরকার ১৫ হাজার ৬৪২ কোটি ৩৬ লাখ টাকা সংগ্রহ করে ফেলেছে। এটি পুরো অর্থবছরের মোট লক্ষ্যমাত্রার ৭৮ দশমিক ২১ শতাংশ। জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তর থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, ব্যাংক আমানতের সুদের হার কমে যাওয়ায় ব্যক্তিশ্রেণির বিনিয়োগকারীরা উচ্চসুদের সঞ্চয়পত্র কেনায় ঝোঁক বাড়িয়েছেন। আর সরকারও কম সুদের ব্যাংকঋণের পরিবর্তে ব্যয়বহুল সঞ্চয়পত্র থেকে অর্থ সংগ্রহ করে বাজেট ঘাটতি মেটাচ্ছে। চলতি অর্থবছরের চার মাসে সঞ্চয়পত্রের নিট বিক্রি বাড়লেও এ সময়ে সরকারের ব্যাংকঋণ উল্টো কমেছে।

জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তরের হালনাগাদ তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম চার মাসে সঞ্চয়পত্রের নিট বিক্রি আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ১৮৩ দশমিক ৭৯ শতাংশ বা ১০ হাজার ৩৪১ কোটি ৩৪ লাখ টাকা বেড়েছে। আগের অর্থ বছরের একই সময়ে যা ছিল ৫ হাজার ৫১২ কোটি ২ লাখ টাকা। চলতি অর্থবছরের জুলাই-অক্টোবর সময়ে সঞ্চয়পত্রের মোট বিক্রি হয়েছে ৩৭ হাজার ১৯৫ কোটি ৩৯ লাখ টাকা এবং ২১ হাজার ৫৫৩ কোটি ৪ লাখ টাকা মূল টাকা পরিশোধ করা হয়েছে। সঞ্চয়পত্র বিক্রির বিদ্যমান প্রবণতার পরিপ্রেক্ষিতে চলতি অর্থবছরে সঞ্চয়পত্র বিক্রি থেকে অর্থ সংগ্রহে সরকারের যে বার্ষিক লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে তা ছাড়িয়ে যাবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা মনে করছেন, চলতি অর্থবছরে সঞ্চয়পত্রের নিট বিক্রি ৪০ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে যেতে পারে। জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তরের তথ্যানুযায়ী, চলতি অক্টোবরে সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে ৩ হাজার ২১১ কোটি ৫৮ লাখ টাকা, যা আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ৩৯০ শতাংশ বেশি। গত বছরের অক্টোবরে সঞ্চয়পত্র বিক্রি থেকে ৮২২ কোটি ৯৫ লাখ টাকা সংগ্রহ করেছিল সরকার। চলতি অক্টোবরে মোট ৯ হাজার ২৪৯ কোটি ৮৬ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে এবং সঞ্চয়পত্রের মূল অর্থ বাবদ ৫ হাজার ২১৫ কোটি ৩৩ লাখ টাকা পরিশোধ করা হয়েছে।

মূলত নিরাপদ বিনিয়োগের মাধ্যম হিসেবে সঞ্চয়পত্রে সাধারণ মানুষ ঝুঁকছে বলে মনে করেন পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর। তিনি বলেন, হঠাৎ করে ধারাবাহিকভাবে সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগের বড় উৎস প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স। আগে কেনা হলেও, এখন রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়ায় এই অঙ্ক বেড়েছে।

আহসান এইচ মুনসুর আরও বলেন, আগে ব্যাংকে আমানত রাখলে ৭ বা ৮ শতাংশ সুদ পাওয়া যেত কিন্তু এখন সেটা ৫ শতাংশে নেমে গেছে। কিন্তু সঞ্চয়পত্রে ১১ বা ১২ শতাংশ দেওয়া হয়। এখানে বিশাল তফাৎ হয়ে গেছে। বিক্রির সীমা নির্দিষ্ট করে দেওয়া না হলে মাসে ২০ কোটি টাকা সঞ্চয়পত্র বিক্রি হতো। আর সঞ্চয়পত্রে সুদের হার বেশি হওয়ায় প্রবাসীরা আগের তুলনায় বেশি টাকা দেশে পাঠাচ্ছে। সেই টাকাও সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ হচ্ছে। কারণ, বাইরের দেশে কোনো সুদ দেওয়া হয় না। কিন্তু সঞ্চয়পত্রে ১০ থেকে ১২ শতাংশ সুদ দেওয়া হয়। ফলে রেমিট্যান্সের টাকা সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ হচ্ছে।

জানা যায়, চলতি বছরের এপ্রিলে ব্যাংকঋণের সুদহার ৯ শতাংশ বেঁধে দেওয়ার পর ব্যাংক আমানতের সুদের হার অধিকাংশ ক্ষেত্রে ৬ শতাংশের নিচে নেমে এসেছে। কোনো কোনো ব্যাংকে আমানতের সুদ হার ২ শতাংশেরও কম দেওয়ার প্রস্তাব দিচ্ছে। যেখানে সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ থেকে এখনো ১৩ শতাংশ সুদ পাওয়া যায়। সঞ্চয়পত্রে ১০ শতাংশ হারে কর প্রদানের পরও এখানে বিনিয়োগ বিনিয়োগকারীদের জন্য লাভজনক। করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসায় এবং দেশে বিনিয়োগ পরিবেশ এখনো মেঘাচ্ছন্ন থাকায় বিভিন্ন সংস্থা তাদের তহবিল ব্যাংকে রাখার চেয়ে নিরাপদ ও উচ্চ আয়ের স্কিমে রাখতে উৎসাহিত হতে পারে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন। চলতি অর্থবছরের শুরু থেকেই সঞ্চয়পত্রের বিক্রি বাড়তে দেখা যায়।

জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তরের প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০১৯-২০ অর্থবছর শেষে নিট সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয় মাত্র ১৪ হাজার ৪২৮ কোটি টাকা। সেখানে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের সঞ্চয়পত্রে নিট বিক্রির পরিমাণ ছিল ৪৯ হাজার ৯৩৯ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। এদিকে সঞ্চয়পত্রের বিক্রি বাড়লেও তফসিলি ব্যাংকগুলো থেকে সরকারের কম সুদের ঋণ গ্রহণের পরিমাণ কমেছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম চার মাসে তফসিলি ব্যাংকগুলো থেকে সরকার ঋণ নিয়েছে ৩৫ হাজার ১৩ কোটি টাকা, যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ছিল ৩৫ হাজার ৯৫৮ কোটি টাকা। আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ৯৪৫ কোটি টাকা কম ঋণ নিয়েছে সরকার। আবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ঋণও পরিশোধ করছে সরকার।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি জুন শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকে সরকারের ঋণের পরিমাণ ছিল ৪৪ হাজার ৩৫৩ দশমিক ৫ কোটি টাকা, যা অক্টোবর শেষে ২০ হাজার ৪৭ দশমিক ৪৪ কোটি টাকায় নেমে আসে। চলতি অর্থবছরের বাজেটে রাজস্ব থেকে সরকারের আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ৩ লাখ ৭৮ হাজার কোটি টাকা। এই অর্থবছরে বাজেট ঘাটতি দাঁড়ায় ১ লাখ ৯০ হাজার কোটি টাকা। বাজেট ঘাটতি মেটাতে সরকারের সঞ্চয়পত্র বিক্রিসহ অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে ১ লাখ ৯ হাজার ৯৮৩ কোটি টাকা সংগ্রহের পরিকল্পনা রয়েছে।

করোনাভাইরাস আপডেট
বিশ্বব্যাপী
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
১০০৩৩৭০৯০
আক্রান্ত
৫৩৩৪৪৪
সুস্থ
৭২৩৮৫৬৮৩
সুস্থ
৪৭৭৯৩৫
শীর্ষ সংবাদ:
জয়ের পথে নৌকা         ঐতিহাসিক দিন         সম্মুখসারির করোনা যোদ্ধাদের কথা         উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি আগামী মাসে ॥ অর্থমন্ত্রী         পেনশনের আওতায় আসবেন সবাই         বাণিজ্যে আশার আলো ॥ যুক্তরাষ্ট্রে নতুন সরকার         ভ্যাকসিন নেয়ার পর রুনুসহ সবাই সুস্থ         দুর্নীতি দমনকে আন্দোলন হিসেবে গড়ে তোলার অঙ্গীকার করতে হবে         সড়ক দুর্ঘটনায় বছরে আর্থিক ক্ষতি দেড় হাজার কোটি টাকা         সম্মুখসারির কর্মী হিসেবে ১২ হাজার ভ্যাকসিন প্রয়োজন বেবিচকের         পদ্মা সেতু বাস্তবায়নে সততার জয় হয়েছে         সন্ত্রাসী কিলার আব্বাস ও কাইল্যা পলাশ বন্দী থেকেই বাবা হয়েছে         আজ ও কাল ভাসানচর যাচ্ছে তিন হাজার রোহিঙ্গা         করোনায় দেশে আরও ১৭ জনের মৃত্যু         দেশ উন্নত হওয়ায় ভোটে অনীহা : মো. আলমগীর         চসিক নির্বাচন: আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী রেজাউল এগিয়ে         আগামী মাসে উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি : অর্থমন্ত্রী         জেলা জজদের উদ্দেশে বক্তব্য দেবেন প্রধান বিচারপতি-আইনমন্ত্রী         ৪০তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ         করোনা : ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ১৭, নতুন শনাক্ত ৫২৮