মঙ্গলবার ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২৬ মে ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ধূমপান ই-সিগারেট করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়াবে

  • অধ্যাপক ড. অরূপরতন চৌধুরী

করোনাভাইরাস (ঈঙঠওউ-১৯) একটি তীব্র শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ। এই রহভবপঃরড়হ গুরুতর সংক্রমণ, যা সাধারণ শ্বাস-প্রশ^াসকে প্রভাবিত করে এবং ভাইরাস এই সংক্রমণের কারণ হয়ে থাকে।

ধূমপান-এর ধোঁয়া, ফুসফুস টিস্যু এবং সারা শরীর জুড়ে প্রতিরোধ ব্যবস্থা প্রভাবিত করে। এটি করোনভাইরাসের সংক্রমণের বিরুদ্ধে দেহের সুরক্ষা করতে পারে না।

ধূমপান-এর ফলে :

শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যাবে

সংক্রমণের মাত্রা দীর্ঘস্থায়ী হওয়ার ঝুঁকি এবং

ধূমপান করে না এমন ব্যক্তির চেয়ে সংক্রমণের ঝুঁকি আরও বেশি হওয়ার আশঙ্কা।

সিগারেটের ধোঁয়া এবং বাষ্পীয় এ্যারোসোল অথবা ই-সিগারেট ফুসফুসের প্রদাহের সঙ্গে সম্পৃক্ত এবং প্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দেয়।

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে, ধূমপান বা ই-সিগারেট ধূমপায়ীদের করোনাভাইরাস দ্বারা মারাত্মক সংক্রমণের ঝুঁকির মধ্যে ফেলতে পারে। গবেষণায় প্রমাণিত হয় যে, ধূমপান ফুসফুসে প্রতিরোধের ক্রিয়াকে দমন করে এবং প্রদাহ সৃষ্টি করে। দীর্ঘমেয়াদি ধূমপায়ী এবং ই-সিগারেট ব্যবহারকারীরা উভয়ই ফুসফুসের দীর্ঘস্থায়ী সংক্রমণের তীব্র ঝুঁকিতে রয়েছেন, যা নতুন ভাইরাসজনিত রোগ হিসেবে বলা হয়। এটি কভিড-১৯ এর ক্ষেত্রে আরও মারাত্মকভাবে জড়িত। বিজ্ঞানীরা বলেছেন যে, ধূমপান এবং সম্ভবত ই-সিগারেটের বাষ্প করোনোভাইরাস থেকে মারাত্মক সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলতে পারে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হাসপাতালের পেডিয়াট্রিক পালমোনোলজি বিভাগের প্রধান মেলোদি পিরজাদা বলেছেন, বিশেষত দীর্ঘমেয়াদি ধূমপায়ীদের শ্বাস-প্রশ্বাস এবং পুরো এয়ারওয়েজ তথা ফুসফুসের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা- সবকিছু বদলে যায়।

গবেষণাই প্রমাণ করেছে যে, ধূমপানের ফলে একজনের গুরুতর ঈঙঠওউ-১৯-এর ঝুঁকি বাড়ে। চীনের একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, নারীরা করোনাভাইরাস সংক্রমণের জন্য হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার চেয়ে পুরুষরা কিছুটা বেশি। চাইনিজ মেডিকেল জার্নালে অনলাইনে, কভিড-১৯ এর সঙ্গে ৭৮ জন রোগী জড়িত এবং দেখা গেছে যে যাদের ধূমপানের ইতিহাস রয়েছে তাদের নিউমোনিয়া হওয়ার সম্ভাবনা ছিল ১৪ গুণ বেশি।

প্রচুর বৈজ্ঞানিক প্রমাণ রয়েছে যে, ধূমপান ফুসফুসকে প্রদাহ সৃষ্টি করে এবং প্রতিরোধের কার্যকে নষ্ট করে। ‘নিয়মিত ধূমপান করার জন্য, এটি বায়ুপথে সিলিরি ক্লিয়ারেন্সকে বাধা দেয়।’ বাতাসের থেকে টক্সিন এবং শ্লেষ্মা বের করে আনার জন্য এবং কাশির সময় ফুসফুস পরিষ্কার করার জন্য এরা দায়বদ্ধ এবং ধূমপান করলে তখন তা প্রভাবিত হয়।’ ফুসফুসে শ্বাসকষ্টের সংক্রমণের সময়, নিউট্রোফিল নামক শ্বেত রক্ত কোষের প্রদাহ দেখা দেয়। ‘পূর্ববর্তী করোনাভাইরাস সম্পর্কে গবেষণা থেকে এটি স্পষ্ট যে ধূমপান করোনাভাইরাসটির প্রভাবকে আরও খারাপ করে তোলে।’

যদি কেউ ধূমপান ত্যাগ করতে চান তবে এই সময়ে এটি করা খুব ভাল ও সময় উপযোগী, এই সঙ্কটের মধ্য দিয়ে যতটা সম্ভব মানুষকে নিরাপদ ও স্বাস্থ্যকর রাখতে এবং ফুসফুসের অবস্থার উন্নতি করতে, ক্ষত নিরাময়ে এবং আরও অনেক স্বাস্থ্যের অবস্থার উন্নতি করতে সহায়তা করে।

পরোক্ষ ধূমপানের প্রভাব : সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো যেসব শিশু ধূমপায়ীর সংস্পর্শে আসে তাদের তীব্র শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণের ঝুঁকি থাকে। অতএব ধূমপায়ী ধূমপান বন্ধ করলে পরিবারের ধূমপান সম্পর্কিত অসুস্থতার ঝুঁকি হ্রাস পাবে। পরোক্ষ ধূমপান এক্সপোজার হ্রাস করা বিশেষত বাচ্চাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। ফুসফুসের ভাইরাসগুলো দুর্বল প্রতিরোধ ক্ষমতা থাকা ব্যক্তিদের মধ্যে মারাত্মক অসুস্থতার কারণ হতে পারে। করোনাভাইরাসের ক্ষেত্রে এটি একই রকম তীব্র হতে পারে। এ জন্য ধূমপায়ীদের যদি দুর্বল প্রতিরোধ ক্ষমতা থাকে তবে অতিরিক্ত যতœ নেয়া উচিত। পরোক্ষ ধূমপানের সংস্পর্শে করোনাভাইরাসের ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলতে পারে এর ফলে সৃষ্ট অন্যান্য ক্ষতির পরিমাণও বাড়তে পারে। সুতরাং, এখনই ধূমপান যারা ছাড়তে চান তাদের নিকোটিনের ক্ষতি থেকে রক্ষা পাবার জন্য নিকোটিন রিপ্লেসমেন্ট থেরাপি (এনআরটি)র সন্ধান করা প্রয়োজন। ‘এটি আমাদের সবার জন্য উদ্বেগজনক সময় এবং মানুষ নিজের সুরক্ষা এবং অন্যকে সুরক্ষার জন্য সন্ধান করছে। ধূমপায়ীদের জন্য, করোনাভাইরাসের এই প্রাদুর্ভাবের সময় ধূমপান বন্ধ করা বা থামানো সেরা কাজগুলোর মধ্যে একটি।

ধূমপান করোনভাইরাস ঝুঁকি মারাত্মক বাড়ায় :

বিশেষজ্ঞরা হুঁশিয়ারি দিচ্ছেন যে, ধূমপায়ীদের মারাত্মক সংক্রমণের সম্ভাবনা অনেক বেশি। তাদের ফুসফুসগুলোর দুর্বল ক্রিয়াকলাপ এক্ষেত্রে দায়ী। বিশেষজ্ঞরা ধূমপায়ীদের কোভিড-১৯ এর ঝুঁকি হ্রাস করার জন্য অবিলম্বে অভ্যাসটি বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছেন।

অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি (এএনইউ) থেকে প্রফেসর সানজায়া সেনানায়াকেও প্রকাশ করেছেন যে ধূমপায়ীরা করোনভাইরাস থেকে খারাপ পরিণতি ভোগ করতে পারে।

ধূমপান ছেড়ে দেয়া এবং শ্বাস প্রশ্বাসজনিত রোগ থেকে নিজেকে রক্ষা করার জন্য এখানে কয়েকটি উপায়Ñ

১ ধূমপান ছাড়ার জন্য কারণগুলোর একটি তালিকা তৈরি করুন।

ধূমপায়ী হিসেবে ছেড়ে দেয়ার প্রচুর কারণ রয়েছে। তবে আপনি কি কখনও এগুলো লিখে রেখেছেন? তাহলে এখনই লিখুন এটি আপনাকে ধূমপান ছাড়তে সহায়তা করবে।

একটি তারিখ সেট করুন। ধূমপান ‘ছাড়ার তারিখ’ নির্ধারণ করুন তারপরে এটি দেয়ালের কেলেন্ডারে আটকে দিন এবং আজই করুন। যেমন আপনার জন্মদিন অথবা শুভ কোন একটি দিন।

আপনার ডায়েট পরিবর্তন করুন :

এমন কেউ আছেন যে রাতের খাবারের পরে সিগারেট উপভোগ করেন? ধূমপান বাদ দিয়ে পনির, ফল এবং শাকসব্জির মতো জিনিসগুলো ভিন্ন বা নতুন স্বাদ তৈরি করতে পারে।

সুতরাং ধূমপানের পরিবর্তে পুষ্টিকর বা ভিটামিন সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করুন।

‘আপনি আপনার প্রিয় বইটি পড়তে পারেন, টিভিতে আপনার পছন্দসই অনুষ্ঠানটি ধরতে পারেন বা ঘরের অন্য কোন স্থানে ফিরে যেতে পারেন যেখানে আপনি ধূমপানের সঙ্গে জড়িত নন।’

আপনার পানীয় পরিবর্তন করুন :

গবেষকরা বলছেন যে নির্দিষ্ট পানীয় ধূমপানকে আরও উৎসাহিত করে। এ্যালকোহল, কোলা, চা এবং কফি সবই ধূমপানকে আরও আকর্ষণীয় করে। সুতরাং, বেশি জল এবং ফলের রস পান করুন বা আপনার পছন্দের এ্যালকোহলমুক্ত পানীয়টি গ্রহণ করুন।

বন্ধুদের এড়িয়ে চলুন :

বন্ধুবান্ধব এবং পরিবার-এর সদস্যদের সঙ্গে ধূমপান গ্রহণ করা অনেকের অভ্যাস। ‘তারা হয় আপনার সবচেয়ে বড় সমর্থক, নতুবা তারা আপনার সঙ্গ চায়। অতএব ধূমপান করে না এমন লোকের সঙ্গে মিশুন এবং ধূমপায়ীদের সঙ্গ বর্জন করুন।

ধূমপান ছাড়ার জন্য চিকিৎসা :

গবেষণায় দেখা যায়, প্যাঁচ এবং লজেন্সের মতো নিকোটিন রিপ্লেসমেন্ট থেরাপি, ধূমপান ছাড়ার সম্ভাবনা ১.৫ গুণ বাড়িয়ে তোলে। ঘজঞ এনআরটি হলো নিকোটিন রিপ্লেসমেন্ট থেরাপি যা ধূমপান বন্ধ করতে সহায়তা করতে পারে। এর মধ্যে নিকোটিন প্যাচ চিউইং গাম এবং মুখের স্প্রে ধূমপান ছাড়ার জন্য সহায়ক হতে পারে। ঝসড়শরহম ছঁরঃ চৎড়মৎধস এবং একটি ধূমপান ছাড়ার ক্লিনিকে চিকিৎসা ধূমপান বন্ধ করার সম্ভাবনা চারগুণ বৃদ্ধি করতে পারে।

শারীরিক কার্যক্রম/শরীর চর্চা :

নিকোটিন রিপ্লেসমেন্ট থেরাপির পাশাপাশি ধূমপান ত্যাগের জন্য শরীরচর্চায় যতটা সম্ভব সক্রিয় হওয়া ভাল। বিজ্ঞানীরা বলেছেন যে ২৫ মিনিট হেঁটে যাওয়া বা ব্যায়াম করার অভ্যাসটি ধূমপান ছাড়তে কার্যকর। এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ ধূমপান ছাড়ার প্রথম পর্যায়ে বিরক্তি দেখা দিতে পারে। তাই তখন ইয়োগা বা ব্যায়াম করা জরুরী। বিজ্ঞানীরা বলেছেন যে, মাত্র কয়েক মিনিটের পথচলা বা ব্যায়াম মস্তিষ্কে এ্যান্টি-ক্র্যাভিং কেমিক্যাল তৈরি করার কারণে ধূমপানের অভ্যাসটি কাটাতে সহায়তা করতে পারে।’

নিজের জন্য শুধু নয়, পরিবারের প্রতি সদয় হোন : ধূমপানের কারণে নিজেকে হারাবেন না। আপনি কেবল নিজের জন্য নয় আপনার পরিবার/ সন্তানের জন্য আরও শক্ত হয়ে সিদ্ধান্ত নিন। ধূমপান এবং ই-সিগারেট ছাড়ার মাধ্যমে করোনার ভাইরাসজনিত মারাত্মক ফুসফুসের রোগের ঝুঁকি হ্রাস করুন। যখন কারও ফ্লু বা অন্যান্য সংক্রমণের মুখোমুখি হয় তখন ধূমপান বা ধোঁয়ার বিরূপ প্রভাবগুলো যারা ধূমপান করে না বা ত্যাগ করে না তার চেয়ে ফুসফুস বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ধূমপান তীব্র সংক্রমণ এবং পালমোনারি সেপসিস (রক্ত সংক্রমণ) বা আঘাতজনিত ঝুঁকির কারণগুলোর সঙ্গে তীব্র শ্বাসকষ্টের সংক্রমণ সিন্ড্রোমের (এআরডিএস) বৃদ্ধির সঙ্গে সম্পর্কিত।

ই-সিগারেটের ফুসফুস প্রভাব সম্পর্কে সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা যায়, ই-সিগারেট ফুসফুসের সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ক্ষমতাকে ক্ষুণœ করে।

ই-সিগারেট এ্যারোসোলের সংস্পর্শে থাকা ৩০ জন নন-ধূমপায়ীদের একটি গবেষণায় দেখা গেছে কাশির সংবেদনশীলতা হ্রাস পেয়েছে এবং ব্যবহারকারীদের নিউমোনিয়ার হারকে বাড়িয়ে তুলেছে। ই-সিগারেটের এক্সপোজার সহজাত প্রতিরোধ ব্যবস্থাটির গুরুত্বপূর্ণ ক্ষমতাগুলো ব্যাপকভাবে দমন করতে পারে। ই-সিগারেট নিউট্রোফিল ফাগোসাইটোসিসকেও ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। তাই ই-সিগারেট ব্যবহারকারীদের মধ্যে নিউট্রোফিল ফাংশন প্রতিবন্ধক হতে পারে।

একটি গবেষণায় ধূমপান এবং ইনফ্লুয়েঞ্জার মধ্যকার সম্পর্কের একটি-বিশ্লেষণে দেখা গেছে যে, ধূমপায়ীদের আইসিইউতে থাকা এবং ভর্তি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

চীনে করোনার ভাইরাসজনিত মৃত্যুর বিশ্লেষণে দেখা গেছে যে, মহিলাদের তুলনায় পুরুষদের মৃত্যুর সম্ভাবনা বেশি। এটি এমন একটি বিষয় হতে পারে যে, চীনা পুরুষরা মহিলাদের চেয়ে বেশি ধূমপান করেন। তবে চীন থেকে অন্য দুটি গবেষণায় বলা হয়েছে যে, দু’সপ্তাহ ধরে হাসপাতালে ছিলেন কোভিড-১৯ সম্পর্কিত নিউমোনিয়া রোগে আক্রান্ত রোগীদের তুলনায় (মৃত্যুর সঙ্গেও) অসুস্থতা বেড়ে যাওয়ার অসুবিধাগুলোর তুলনায় ১৪ গুণ বেশি। যারা ধূমপান করেছেন তাদের তুলনায় ধূমপান যারা না করেছেন তাদের মধ্যে এটিই ছিল শক্তিশালী ঝুঁকির কারণ।

যেহেতু করোনাভাইরাস এটি ফুসফুসে আক্রমণ করে, তাদের জন্য মারাত্মক হুমকি হতে পারে বিশেষত যারা তামাক বা গাঁজা সেবন করেন।

ধূমপানের মতো ই-সিগারেট ফুসফুসের স্বাস্থ্যের ক্ষতি করতে পারে। এটি সিওপিডির দিকে পরিচালিত করতে পারে কিনা তা এখনও অজানা।

তবে এটি প্রমাণ করে যে, ই-সিগারেট থেকে এ্যারোসোলের এক্সপোজার ফুসফুসের কোষকে ক্ষতি করে এবং সংক্রমণের প্রতিক্রিয়া জানানোর ক্ষমতা হ্রাস করে।

কোভিড-১৯ থেকে গুরুতর জটিলতার ঝুঁকি কিভাবে হ্রাস করতে পারে, সে সম্পর্কে জনসাধারণকে শিক্ষিত করার জন্য কাজ করা প্রয়োজন। যেমন-ধূমপান বন্ধ করা এবং তাদের গুরুত্বপূর্ণ প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থার তালিকায় সেকেন্ডহ্যান্ড এক্সপোজার এড়ানো।

ধূমপান সম্পর্কিত আইন ও নীতিগুলো শক্তিশালী করা এবং ই-সিগারেটসহ ধূমপান এবং এ্যারোসোলের প্রভাব থেকে অধূমপায়ীদের রক্ষা করার জন্য এখন একটি ভাল সময়।

ধূমপায়ীদের জন্য বলা যায়- ‘আপনি যদি ধূমপান ত্যাগ করতে চান তবে, এখনই সেটি উপযুক্ত সময়’।

লেখক : একুশে পদকপ্রাপ্ত এবং শব্দসৈনিক

(স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র),

প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, মানস

(মাদকদ্রব্য ও নেশা নিরোধ সংস্থা)

উপদেষ্টা : জাতীয় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ উপদেষ্টা কমিটি

অধ্যাপক, বারডেম হাসপাতাল

prof.arupratanchoudhury@yahoo.com

শীর্ষ সংবাদ:
শেখ হাসিনাকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন মোদী         কিটের পরীক্ষা নিয়ে খবর সঠিকভাবে আসেনি : গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র         গাজীপুরে ঝুট গুদামের আগুন নিয়ন্ত্রণে         যুক্তরাষ্ট্রে দেড় লাখ পিপিই রফতানি করেছে বাংলাদেশ         দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৯৭৫ জন করোনা আক্রান্ত, মৃত্যু ২১         গণমাধ্যমকর্মীদের চাকরিচ্যুত না করার আহ্বান ডিইউজের         ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করলেন মেয়র আতিক         ঈদ সবার মধ্যে গড়ে তুলুক সৌহার্দ্য, সম্প্রীতি ও ঐক্যের বন্ধন ॥ রাষ্ট্রপতি         চীনে তৈরি করোনার টিকা নিরাপদ ও কার্যকর দাবি         আগামীকাল থেকে (বিএসএমএমইউ) বেতার ভবনে স্থাপিত ফিভার ক্লিনিক খোলা         বিটিভিসহ বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলে নজরুল জন্মবার্ষিকী উদযাপিত         সম্মিলিত প্রচেষ্টায় করোনাকালও একদিন শেষ হবে ॥ আইজিপি         জাপানে জরুরি অবস্থা প্রত্যাহার         কুমিল্লার তিতাসে আওয়ামী লীগ নেতাকে গলা কেটে হত্যা         যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের মিষ্টি ও ফল উপহার পাঠালেন প্রধানমন্ত্রী         ঈদের নামাজ শেষে ফেরার পথে ইউপি সদস্যকে গুলি করে হত্যা         কোলাকুলিবিহীন অন্য রকম এক ঈদ উদযাপন         এ বছরের ঈদটি অনেক কঠিন ॥ ড. মোমেন         বায়তুল মোকাররমে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত         আজ জাতীয় কবির ১২১তম জন্মজয়ন্তী        
//--BID Records