৬ এপ্রিল ২০২০, ২৩ চৈত্র ১৪২৬, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মেনে চলার পরামর্শ হাইকোর্টের

প্রকাশিত : ২৬ মার্চ ২০২০
  • করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসায় নিয়োজিত ডাক্তাররা কেন জাতীয় বীর নয়?

স্টাফ রিপোর্টার ॥ করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত ডাক্তারসহ সংশ্লিষ্টদের কেন জাতীয় বীরের মর্যাদা দেয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে আদালত। অন্যদিকে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সরকারের পক্ষ থেকে যে নির্দেশনা আসবে তা মানতে ও আস্থা রাখার পরামর্শ দিয়েছে হাইকোর্ট। করোনাভাইরাস একটি বৈশ্বিক সমস্যা। যেহেতু এখনও প্রতিষেধক আবিষ্কার হয়নি তাই এই পরিস্থিতিতে দেশে লকডাউন হওয়া উচিত। আদালত বলেছে, করোনাভাইরাস মোকাবেলায় দল-মত নির্বিশেষে এক হয়ে কাজ করতে হবে। এক রিট আবেদনের শুনানি শেষে বিচারপতি আশরাফুল কামাল ও বিচারপতি সরদার মোঃ রাশেদ জাহাঙ্গীরের বেঞ্চ এ পর্যবেক্ষণ দেন। অন্যদিকে আগামী ২৯ মার্চ থেকে ২ এপ্রিল পর্যন্ত সুপ্রীমকোর্টসহ দেশের সব নিম্ন আদালতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। সুপ্রীমকোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল মোঃ আলী আকবর স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত ডাক্তারসহ সংশ্লিষ্টদের কেন জাতীয় বীরের মর্যাদা দেয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে আদালত। একই সঙ্গে যেসব সাংবাদিক, পুলিশ ও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও কাজ করছেন, তাদের নিরাপত্তার লক্ষ্যে নিরাপদ পোশাক ও আনুষঙ্গিক সরঞ্জাম (পিপিই) দ্রুততম সময়ের মধ্যে স্ব স্ব দফতরের খরচে কিনে সরবরাহ করা হবে বলে আশা প্রকাশ করেছে হাইকোর্ট। সব ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার মালিক পক্ষ নিজ নিজ খরচে তাদের সাংবাদিকদের নিরাপদ পোশাক ও আনুষঙ্গিক সরঞ্জাম দ্রুত সরবরাহ করবেন বলে হাইকোর্ট মন্তব্য করেছে।

চীনের পাশের দেশ হওয়া সত্ত্বেও তাইওয়ান কীভাবে করোনা মোকাবেলা করতে সক্ষম হয়েছে, সেই মডেলটি অনুসরণ করতে বলেছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশে লকডাউন হওয়া উচিত বলে মনে করে আদালত। সারাদেশে করোনাভাইরাস পরীক্ষার ল্যাব স্থাপনের নির্দেশনা চেয়ে এক রিট আবেদনের শুনানি শেষে আদালত এ পর্যবেক্ষণ প্রদান করেছে। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার হুমায়ন কবির পল্লব। আদালত বলেছেন, ‘করোনা মোকাবেলায় দল-মত নির্বিশেষে এক হয়ে কাজ করতে হবে। তাইওয়ান চীনের পাশের দেশ হওয়া সত্ত্বেও তারা কীভাবে করোনা মোকাবেলা করতে সক্ষম হয়েছে সেই মডেলটি অনুসরণ করতে হবে। করোনাভাইরাস একটি বৈশ্বিক সমস্যা। যেহেতু এখনও প্রতিষেধক আবিষ্কার হয়নি তাই এই পরিস্থিতিতে দেশে লকডাউন হওয়া উচিত। করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য ল্যাব স্থাপনের নির্দেশনা চেয়ে দায়ের করা রিটের শুনানিতে হাইকোর্ট বেঞ্চ এ সব কথা বলেছে বলে জানান রিটকারী আইনজীবী ব্যারিস্টার হুমায়ন কবির পল্লব। এর আগে করোনা পরীক্ষার জন্য বিশেষ ল্যাব স্থাপনের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিটটি দায়ের করেছিলেন তিনি। প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত ডাক্তারসহ সংশ্লিষ্টদের কেন জাতীয় বীরের মর্যাদা দেয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে হাইকোর্ট। ডেপুটি এ্যাটর্নি জেনারেল প্রতিকার চাকমা আদালতের রুল জারির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সুপ্রীমকোর্টসহ সব আদালতে ২ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি

আগামী ২৯ মার্চ থেকে ২ এপ্রিল পর্যন্ত সুপ্রীমকোর্টসহ দেশের সব নিম্ন আদালতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। সুপ্রীমকোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল মোঃ আলী আকবর স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞেপ্তিতে বলা হয়, দেশব্যাপী করোনাভাইরাস রোগ (কোভিড-১৯) এর সংক্রমণ মোকাবেলা এবং এর বিস্তার রোধকল্পে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে ২৯ মার্চ থেকে ২ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। জন প্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ঘোষিত ছুটির ধারাবাহিকতায় আগামী ২৯ মার্চ থেকে ২ এপ্রিল পর্যন্ত সুপ্রীমকোর্টের উভয় বিভাগ ও সব নিম্ন আদালতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হলো।

প্রকাশিত : ২৬ মার্চ ২০২০

২৬/০৩/২০২০ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



শীর্ষ সংবাদ: