মঙ্গলবার ৩০ আষাঢ় ১৪২৭, ১৪ জুলাই ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ঊনসত্তরের গণআন্দোলনের অগ্নিঝরা দিনগুলি

  • তোফায়েল আহমেদ

প্রতিবছর জানুয়ারি মাস ফিরে এলে, ১৯৬৯-এর অগ্নিঝরা দিনগুলি স্মৃতির পাতায় ভেসে ওঠে। প্রত্যেক মানুষের জীবনে উজ্জ্বলতম দিন আছে। আমি দুর্লভ সৌভাগ্যের অধিকারী। আমার জীবনেও কিছু ঐতিহাসিক ঘটনা আছে। ’৬৯ আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ কালপর্ব। সেই কালপর্বে আইয়ুবের লৌহ শাসনের ভিত কাঁপিয়ে বাংলার ছাত্রসমাজ ’৬৯-এর ২৪ জানুয়ারি সর্বব্যাপী গণঅভ্যুত্থান সংঘটিত করে ইতিহাস সৃষ্টি করে। এবার ’৬৯-এর সেই স্মৃতিময় দিনগুলোর কথা কেন যেন বেশি মনে পড়ছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের ইতিহাসে ’৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানের মতো এত বড় আন্দোলন হয়েছে বলে আমার মনে পড়ে না। ভাষা আন্দোলন, শিক্ষা আন্দোলন এক ভিন্ন প্রেক্ষাপট। কিন্তু ৬ দফা দেবার পরে বঙ্গবন্ধুকে যখন ফাঁসিকাষ্ঠে ঝুলাবার সমস্ত পরিকল্পনা আইয়ুব খান গ্রহণ করেছিল, তখনই এই আন্দোলন আমরা করেছিলাম। যে আন্দোলনের ফলে আসাদ, মতিউর, মকবুল, রুস্তম, আলমগীরসহ অনেক শহীদের রক্তের বিনিময়ে গণঅভ্যুত্থান হয়েছিল। এই আন্দোলন বাংলাদেশের ইতিহাসে বিরল। কেন জানি না প্রতি বছরই এই দিনগুলো আমাদের জাতীয় জীবনে ফিরে আসে ঠিকই, কিন্তু যেভাবে এই দিনগুলো স্মরণ করার কথা সেভাবে আমরা পালন করি না। এটি খুব পীড়াদায়ক এবং কষ্টকর। এই তো সেদিন আমি জাতীয় জাদুঘরে গিয়েছিলাম। দেখলাম, সেখানে ’৬৯-এ শহীদ আসাদ, মতিউর, মকবুল, রুস্তম, আলমগীর, এমনকি ১৫ ফেব্রুয়ারি ক্যান্টনমেন্টে শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক, ড. শামসুজ্জোহার ছবি নেই! খুব কষ্ট পেয়েছি। যে কারণে বন্ধু-বান্ধবের সহযোগিতায় আমার জন্মস্থান ভোলার বাংলা বাজারে স্ব-উদ্যোগে ‘স্বাধীনতা জাদুঘর’ প্রতিষ্ঠা করেছি। যেখানে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন, বঙ্গভঙ্গ থেকে শুরু করে ভাষা আন্দোলন, ’৫৪-এর যুক্তফ্রন্টের আন্দোলন, ’৬২-এর শিক্ষা আন্দোলন, ’৬৬-এর ৬ দফা আন্দোলন, ’৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান, এবং ফাঁসির মঞ্চ থেকে জাতির পিতাকে মুক্ত করে ২৩ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে ১০ লক্ষাধিক লোকের সামনে বঙ্গবন্ধুকে কৃতজ্ঞ জাতির পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞ চিত্তে বঙ্গবন্ধু উপাধি দেওয়া হয়েছিল, সে-সব স্মৃতিগুলো সেই জাদুঘরে স্থান পেয়েছে। আমরা একদিন চলে যাব। কিন্তু স্বাধীনতার পূর্বলগ্নে যে আন্দোলন হয়েছিল-যা ছিল মহান মুক্তিযুদ্ধের ড্রেস রিহার্সেল-সেই আন্দোলনটি আমাদের স্মৃতির পাতা থেকে মুছে যাবে এটা হতে পারে না। সে কারণেই ‘স্বাধীনতা জাদুঘর’ প্রতিষ্ঠা করেছি। কেউ যদি পরিদর্শনে যায় স্বাধীনতার পরিপূর্ণ ইতিহাস এখানে পাবে। এই ডিজিটাল জাদুঘরটি ২০১৮-এর ২৫ জানুয়ারি মহামান্য রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ উদ্বোধন করেন।

’৬৯-এর সোনালি দিনগুলোর প্রতিটি মুহূর্তের কথা মনে পড়ে। অনেক সময় ভাবি, কী করে এটা সম্ভব হয়েছিল। বঙ্গবন্ধু যখন ৬ দফা দেন আমি তখন ইকবাল হলের ভিপি। ইকবাল হলে বসেই ৬ দফার পক্ষে আমরা আন্দোলনের পরিকল্পনা গ্রহণ করি। আমার কক্ষ নম্বর ছিল ৩১৩। এই কক্ষে প্রায়শই থাকতেন শ্রদ্ধেয় নেতা শেখ ফজলুল হক মণি, সিরাজুল আলম খান ও আবদুর রাজ্জাক। ৬ দফা দিয়ে বঙ্গবন্ধু আমাদের বলেছিলেন, ‘সাঁকো দিলাম স্বাধিকার থেকে স্বাধীনতায় উন্নীত হওয়ার জন্য।’ অর্থাৎ এই ৬ দফার সিঁড়ি বেয়ে তিনি স্বাধীনতায় পৌঁছবেন। ৬ দফা দেওয়ার পর বঙ্গবন্ধু দেশব্যাপী ঝটিকা সফর করে ৩২টি জনসভা করেন এবং বিভিন্ন জেলায় বারবার গ্রেফতার হন। শেষবার নারায়ণগঞ্জ থেকে সভা করে ঢাকা আসার পর তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতারের পর ’৬৬-এর ৭ জুন আমরা সর্বাত্মক হরতাল পালন করেছিলাম। ’৬৮-এর ১৭ জানুয়ারির শেষ এবং ১৮ জানুয়ারির প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধুকে কারামুক্তি দিয়ে জেলগেটেই আবার গ্রেফতার করা হয়। জেলগেট থেকে গ্রেফতার করে প্রিজনভ্যানে তোলার প্রাক্কালে এক টুকরো মাটি কপালে ছুঁইয়ে বলেছিলেন, ‘হে মাটি, আমি তোমাকে ভালবাসি। ওরা যদি আমাকে ফাঁসি দেয় আমি যেন মৃত্যুর পর তোমার বুকে চিরনিদ্রায় শায়িত থাকতে পারি।’ প্রথমে আমরা জানতাম না প্রিয়নেতা কোথায় কিভাবে আছেন। আমরা জাগ্রত ছাত্রসমাজ এই গ্রেফতারের বিরুদ্ধে মিছিল করি। আমার সৌভাগ্য ওইদিনই ডাকসুর ভিপি হয়েছিলাম। কারাগারের অন্ধকার প্রকোষ্ঠে বসে বঙ্গবন্ধু চিঠি লিখে বিশ্বস্ত এক কারারক্ষীর মাধ্যমে পাঠিয়েছিলেন; চিঠিতে লিখেছিলেন, ‘স্নেহের তোফায়েল, তুই ডাকসুর ভিপি হয়েছিস, এ কথা শুনে খুউব ভালো লেগেছে। বিশ্বাস করি এবারের এই ডাকসু বাংলার মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করবে।’ ’৬৮-এর ১৯ জুন আগরতলা মামলার বিচার যেদিন শুরু হয়, সেদিন থেকে আমরা জানতাম আইয়ুব খান বঙ্গবন্ধুকে ফাঁসিকাষ্ঠে মৃত্যুদ- দেবে। কারণ, স্বৈরশাসক আইয়ুব খান উপলব্ধি করেছিল, সকলকে বশে আনা যায় কিন্তু শেখ মুজিবকে বশে আনা যায় না। তাই আইয়ুব খান সিদ্ধান্ত নিয়েছিল, এই একটি কণ্ঠকে চিরদিনের জন্য স্তব্ধ করে দিতে হবে। কেননা, একটি কণ্ঠে কোটি কোটি কণ্ঠ উচ্চারিত হয়। আইয়ুব খান প্রদত্ত মামলার নামই ছিল ‘রাষ্ট্র বনাম শেখ মুজিব ও অন্যান্য’ মামলা। ‘আইয়ুব খান’ শিরোনামে একটি বই লিখেছেন আলতাফ গওহর। সেই বইতে উল্লেখ আছে, বঙ্গবন্ধুকে কিভাবে ফাঁসি দেবার চেষ্টা করেছিল। ’৬৯-এর ১৭ জানুয়ারি যে আন্দোলন আমরা শুরু করেছিলাম, যে আন্দোলনের ফলে বঙ্গবন্ধু ফাঁসিকাষ্ঠ থেকে মুক্তি লাভ করেন-সেদিন যদি এই আন্দোলন না হতো, সেদিনের শহীদেরা যদি জীবন বিলিয়ে না দিত, তাহলে তো আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে মুক্ত করতে পারতাম না। বঙ্গবন্ধুর ফাঁসি হলে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো না। যে আন্দোলন জাতীয় মুক্তিসংগ্রামের ইতিহাসে এত বড় ভূমিকা পালন করেছে, সে আন্দোলন যখন কম আলোচিত হয়, তখন তা মনোকষ্টের কারণ হয় বৈকি! কিন্তু আমরা জাতির জনকের কাছে কৃতজ্ঞ। যখনই প্রসঙ্গ উঠতো তখনই-এমনকি ঐতিহাসিক সাতই মার্চের বক্তৃতায় তিনি ১৯৬৯-এর আইয়ুব বিরোধী আন্দোলনের কথা উল্লেখ করেছেন।

’৬৯-এর ৪ জানুয়ারি ডাকসুসহ ৪টি ছাত্র সংগঠনের সমন্বয়ে ঐতিহাসিক ১১ দফার ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত হয় ‘সর্বদলীয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ’। ডাকসু ভিপির কক্ষে বসেই আমরা ১১-দফার ভিত্তিতে গণআন্দোলনের পরিকল্পনা গ্রহণ করি। আজ যখন স্মৃতিকথা লিখছি বার বার মনে পড়ছে ’৬৯-এর ১১ দফা আন্দোলনের প্রণেতাদের-ছাত্রলীগ সভাপতি প্রয়াত আব্দুর রউফ ও সাধারণ সম্পাদক খালেদ মোহাম্মদ আলী; ছাত্র ইউনিয়ন (মতিয়া গ্রুপ) সভাপতি প্রয়াত সাইফুদ্দিন আহমেদ মানিক ও সাধারণ সম্পাদক সামসুদ্দোহা; ছাত্র ইউনিয়ন (মেনন গ্রুপ) সভাপতি মোস্তফা জামাল হায়দার ও সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল্লাহ; এবং এনএসএফ-এর একাংশের সভাপতি প্রয়াত ইব্রাহিম খলিল ও সাধারণ সম্পাদক ফখরুল ইসলাম মুন্সীর-কথা। এই ছাত্রনেতাদের প্রত্যেকেই ছিলেন খ্যাতিমান ও বড় নেতা। আমি ডাকসুর ভিপি হিসেবে কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সমন্বয়ক ও মুখপাত্রের দায়িত্ব পালন করি; সঙ্গে ছিলেন ডাকসুর জিএস নাজিম কামরান চৌধুরী। ’৬৯-এর ১৭ জানুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কলাভবনের বটতলায় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের প্রথম সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। আমার সভাপতিত্বে সভা শুরু হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে গবর্নর মোনায়েম খান ১৪৪ ধারা জারি করেছে। সভাপতি হিসেবে আমার দায়িত্ব ছিল সিদ্ধান্ত দেয়ার যে আমরা ১৪৪ ধারা ভাঙব কি ভাঙব না। ১৪৪ ধারা ভঙ্গের সিদ্ধান্ত জানিয়ে মিছিল নিয়ে রাজপথে এলাম। পুলিশ বাহিনী ক্ষিপ্রগতিতে আমাদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে শুরু করে বেপরোয়া লাঠিচার্জ, কাঁদানে গ্যাস আর ফায়ারিং। ছাত্রলীগের সভাপতি আবদুর রউফ ঘটনাস্থলে আহত হন। পরদিন ১৮ জানুয়ারি, পুলিশী নির্যাতনের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও ঢাকা শহরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোয় ধর্মঘট পালনের কর্মসূচী দেই। ১৮ জানুয়ারি, বটতলায় জমায়েত। যথারীতি আমি সভাপতি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সফল ছাত্র ধর্মঘট পালিত হয়। সকালে বটতলায় ছাত্র জমায়েতের পর খ- খ- মিছিল এবং সহস্র কণ্ঠের উচ্চারণ, ‘শেখ মুজিবের মুক্তি চাই, আইয়ুব খানের পতন চাই।’ সেদিনও ১৪৪ ধারা ভঙ্গের সিদ্ধান্ত এবং মিছিল নিয়ে রাজপথে এলাম। দাঙ্গা পুলিশ বেধড়ক লাঠিচার্জ আর টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করল। পরদিন ১৯ জানুয়ারি ছিল রবিবার। সে-সময় রবিবার বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকত। কিন্তু প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় খোলা ছিল। কর্মসূচী নেওয়া হলো আমরা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মিছিল শুরু করব এবং ১৪৪ ধারা ভাঙব। গত দু’দিনের চেয়ে মিছিল আরও বড়। পুলিশ গুলি চালাল। একজন ছাত্র গুলিবিদ্ধ হয়ে লুটিয়ে পড়ল রাজপথে। ছাত্রলীগের এই কর্মীর নাম আসাদুল হক। প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। বাড়ি দিনাজপুর। ’৭১-এর স্বাধীনতা যুদ্ধে তিনি শহীদ হন। পুলিশের বর্বরতা ও গুলিবর্ষণের প্রতিবাদে তাৎক্ষণিকভাবে ২০ জানুয়ারি সোমবার পুনরায় বটতলায় সমাবেশের কর্মসূচী দিলাম।

চলবে...

লেখক : সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী

শীর্ষ সংবাদ:
করোনা ভাইরাসে সুস্থের সংখ্যা লাখ ছাড়াল, মৃত্যু আরও ৩৩ জনের         করোনা ভাইরাসের নমুনা পরীক্ষায় অনিয়ম সহ্য করা হবে না         ভার্চুয়ালেই চলবে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ         বগুড়া-১ ও যশোর-৬ সংসদীয় আসনে ভোটগ্রহণ চলছে         ডিবি কার্যালয়ে ডা. সাবরিনা         বিশেষ ফ্লাইটে ওমান থেকে ফিরলেন ২৫৪ বাংলাদেশি         বেসরকারি চাকরিজীবীদেরও ঈদে কর্মস্থলে থাকতে হবে         অপুষ্টির বিচারে আফ্রিকার চেয়েও খারাপ অবস্থা এশিয়ার         করোনা ভাইরাসে কমপক্ষে ৩ হাজার স্বাস্থ্যকর্মীর মৃত্যু হয়েছে ॥ অ্যামনেস্টি         করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে মানুষের প্রতিরোধ ক্ষমতা স্বল্পস্থায়ী ॥ গবেষণা         এবার ট্রাম্প প্রশাসনের 'টার্গেট' ফাউচি         যুক্তরাষ্ট্রে ফাস্ট ট্র্যাক মর্যাদা পেলো করোনা ভাইরাসের দুই ভ্যাকসিন         হংকংয়ে গণপরিবহনে মাস্ক না পরলে ৫ হাজার হংকং ডলার জরিমানা         সুনামগঞ্জের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত         আফগান গোয়েন্দা কার্যালয়ে গাড়ি বোমা হামলায় নিহত ১১         কোয়ারেন্টাইনে বিরক্ত ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট         হায়া সোফিয়া ইস্যুতে এরদোয়ানের পক্ষে রাশিয়া         দক্ষিণ চীন সাগরে বেইজিংয়ের প্রকল্প অবৈধ ॥ যুক্তরাষ্ট্র         দোকানে মাস্ক না রাখলে জরিমানা        
//--BID Records