শনিবার ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৮ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

পাঁচ মাসে রেমিটেন্স এসেছে ৬৫ হাজার কোটি টাকা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে (জুলাই থেকে নবেম্বর) প্রবাসীরা দেশে ৭৬৫ কোটি ৯৫ লাখ মার্কিন ডলার রেমিটেন্স পাঠিয়েছেন। এটি বাংলাদেশী মুদ্রায় (১ ডলার ৮৫ টাকা হিসেবে) ৬৫ হাজার ১০৫ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। বিলিয়ন হিসাবে এর পরিমাণ ৭.৬৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ‘চলতি অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসের মধ্যে জুলাইয়ে ১৫৯ কোটি ৭৭ লাখ, আগস্টে ১৪৮ কোটি ২৮ লাখ, সেপ্টেম্বরে ১৪৬ কোটি ৮৪ লাখ, অক্টোবরে ১৬৩ কোটি ৯৬ লাখ মার্কিন এবং নবেম্বর ১৪৭ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলার রেমিটেন্স দেশে এসেছে।’

সূত্র জানায়, ২০১৮ সালের জুলাই মাসে দেশে রেমিটেন্স আসে ১৩১ কোটি ৭০ লাখ ডলার, আগস্টে ১৪১ কোটি ১০ লাখ ডলার, সেপ্টেম্বরে ১১২ কোটি ৭৩ লাখ ডলার, অক্টোবরে ১২৩ কোটি ৯১ লাখ ডলার এবং নবেম্বর মাসে ১১৮ কোটি মার্কিন ডলার রেমিটেন্স পাঠায়। অর্থাৎ গত অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে (জুলাই-১৮ থেকে নবেম্বর-১৮) দেশে রেমিটেন্সে আসার পরিমাণ ছিল ৬২৬ কোটি ৪৪ লাখ মার্কিন ডলার। চলতি (২০১৯-২০) অর্থবছরের একই সময়ের (জুলাই-১৯ থেকে নবেম্বর-১৯) সময়ে দেশে রেমিটেন্স আসে ৭৬৫.৯৫ লাখ মার্কিন ডলার। যা আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ১৮.৩৪ শতাংশ বেশি। গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরে (জুলাই-১৮ থেকে জুন-১৯) পর্যন্ত সময়ে প্রবাসীরা দেশে রেমিটেন্স পাঠিয়েছেন ১ হাজার ৬৪১ কোটি ৯৬ লাখ মার্কিন ডলার। এটি বাংলাদেশের ইতিহাসে এক বছরে সর্বোচ্চ রেমিটেন্স। এর আগে, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে প্রবাসীরা ১ হাজার ৫৩১ কোটি ৬৯ লাখ ডলার রেমিটেন্স পাঠিয়েছিল।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ২০১৯ সালের প্রথম থেকেই বাড়ছে রেমিটেন্স প্রবাহ। চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে প্রবাসীরা রেকর্ড পরিমাণ ১৫৯ কোটি মার্কিন ডলার রেমিটেন্স পাঠায়। এরপর ফেব্রুয়ারিতে ১৩১ কোটি ৭৭ লাখ ডলার, মার্চে ১৪৫ কোটি ৮০ লাখ ডলার, এপ্রিলে ১৪৩ কোটি ৪০ লাখ ডলার, মে মাসে ১৭৪ কোটি ৫০ লাখ ডলার এবং জুনে ১৩৮ কোটি ডলার। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, পঞ্জিকা বছর হিসাবে ২০১৮ সালে রেমিটেন্স আসে ১ হাজার ৫৫৩ কোটি ৭৮ লাখ ডলার। ২০১৭ সালে ১ হাজার ৩৫৩ কোটি ডলার, ২০১৬ সালে ১ হাজার ৩৬১ কোটি ডলার, ২০১৫ সালে ১ হাজার ৫৩১ কোটি ডলার।

অন্যদিকে, অর্থবছর হিসাবে ২০১৪-১৫ অর্থবছরে দেশে রেমিটেন্স আসে ১ হাজার ৫৩১ কোটি ৬৯ লাখ ডলার, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ১ হাজার ৪৯৩ কোটি ডলার, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ১ হাজার ২৭৬ কোটি ৯৪ লাখ ডলার, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ১ হাজার ৪৯৮ কোটি ডলার। সর্বশেষ ২০১৮-১৯ অর্থবছরের রেমিটেন্স আসে ১ হাজার ৬৩১ কোটি মার্কিন ডলার।

উল্লেখ্য, বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ১ কোটির বেশি প্রবাসী বাংলাদেশী রয়েছেন। প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্স জিডিপিতে অবদান রেখেছে ১০ শতাংশের বেশি। বাংলাদেশে রেমিটেন্স পাঠানোর শীর্ষ ১০ দেশ হলোÑ যথাক্রমে সৌদি আরব, আরব আমিরাত, যুক্তরাষ্ট্র, মালয়েশিয়া, কুয়েত, ওমান, যুক্তরাজ্য, কাতার, ইতালি ও বাহরাইন।

শীর্ষ সংবাদ:
আস্থা অর্জনই চ্যালেঞ্জ ॥ ইভিএম নিয়ে ব্যাপক পরীক্ষা-নিরীক্ষা ইসির         অগ্রাধিকার সুবিধা অব্যাহত রাখতে সহযোগিতা চাই         মাদক কারবারিদের চিহ্নিত করে ধরিয়ে দিন ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         টিকে থাকার ক্ষমতা হারাচ্ছে গাছ উপড়ে পড়ছে সামান্য ঝড়ে         প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ ॥ প্রচার শুরু         জনবল সঙ্কটে খুঁড়িয়ে চলছে নাটোর সদর হাসপাতাল         সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে এখনও মারা যাচ্ছেন অনেক মা         ঢাকার ২ শতাধিক স্পটে হঠাৎ বেপরোয়া ছিনতাইকারী চক্র         জমে উঠেছে কেনাবেচা ভাল দাম পেয়ে কৃষকের মুখে হাসি         রোহিঙ্গাদের ফেরাতে এশিয়ার দেশগুলোর সহযোগিতা চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী         তারেক জিয়াকে দেশে ফেরাতে আলোচনা চলছে : তথ্যমন্ত্রী         আমাদের নিজস্ব পলিসি আছে এবং পলিসি অনুযায়ী দেশ চলে : এলজিআরডি মন্ত্রী         বিশ্বমানের ক্যানসার চিকিৎসা মিলবে গণস্বাস্থ্যে         নিষেধাজ্ঞা সরিয়ে বাংলাদেশে গম পাঠাবে ভারত         ভারত ও বাংলাদেশ দুই আদালতে পিকে হালদারের বিচার হবে ॥ দুদক কমিশনার         সীমান্তে মাদক ও মানবপাচার রোধে কাজ করছে বিজিবি ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         বিদেশে প্রশিক্ষণে গিয়ে পুলিশের ২ সদস্য লাপাত্তা         পি কে হালদারসহ ৫ জন ফের ১১ দিনের জেল হেফাজতে         করোনা : দেশে আজও মৃত্যু নেই, শনাক্ত ২৩         খাদ্য সংকট দূর করতে পুতিনের প্রস্তাব