বুধবার ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৫ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

যশোরে দু’মাসে মাত্র ১৮ শতাংশ বোরো ধান সংগ্রহ, হতাশ কৃষকরা

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর অফিস ॥ চলতি বছর সরকারীভাবে ১২ হাজার ৭শ’ ১২ টন বোরো ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও এখন পর্যন্ত সংগ্রহ করা হয়েছে মাত্র ২ হাজার ২শ’ ২১ দশমিক ৪শ’ ৪০ টন ধান, যা লক্ষ্যমাত্রার ১৮ শতাংশ। অন্যদিকে বাম্পার ফলনের পরও সরকারের কাছে সরাসরি ধান বিক্রি করতে না পারায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন কৃষকরা। তাদের দাবি, কৃষকদের কাছ থেকে সরকারী ধান কেনা না হলে আগামীতে তারা ধান উৎপাদনের আগ্রহ হারাবে।

যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার খাজুরা বাজারে সপ্তাহে দুই দিন ধানের সবচেয়ে বড় হাট বসে। হাটের পাশেই সরকারী খাদ্য গুদাম। সেখানে সরকারীভাবে ১০৪০ টাকা দরে বোরো ধান সংগ্রহের কথা থাকলেও কৃষকদের কাছ থেকে ধান কিনছেন না সরকারী কর্মকর্তারা। এ গুদামে ধান ক্রয়ের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে ১ হাজার ২শ’ ৯৮ টন, যার মধ্যে গত দুই মাসে ক্রয় করা হয়েছে মাত্র ১শ’ ৪ টন ধান।

বাঘারপাড়া উপজেলার খাজুরা এলাকার কৃষক আরশাদ আলী জানান, এবার উৎপাদিত ধানের মধ্যে তিনি সরকারী গুদামে বিক্রি করতে পেরেছেন মাত্র ২৫ মণ ধান। কিছু ধান ৬শ’ ৮০ থেকে ৭শ’ টাকায় আড়তদারদের কাছে বিক্রি করেছেন। এই দামে বিক্রি করে খরচের টাকাই উঠছে না।

একই উপজেলার নিত্যানন্দপুর এলাকার কৃষক আব্দুস সবুর বলেন, ‘লিস্টে নাম না থাকায় সরকারী গুদামে ধান বিক্রি করতে পারছি না। তাছাড়া সরকারী গুদামও আমার এলাকা থেকে বেশ দূরে। বহন করে নিয়ে যাওয়া আরেক ঝামেলা। সে কারণে সাত শ’ টাকা দরে আড়তদারদের কাছে বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছি।’

কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তাদের ঘরে এখনও প্রচুর ধান রয়েছে। সরকারী গুদাম উপজেলার এক কোনায় হওয়ায় পরিবহন খরচের কথা চিন্তা করে অনেকে সেখানে যেতে পারছেন না। ইউনিয়ন পর্যায়ে ধান সংগ্রহের ব্যবস্থা এবং নগদ মূল্যে কেনা হলে কৃষকরা লাভবান হতেন।

তারা জানান, এবার ধানের যে দাম পাওয়া গেছে, তাতে আমন ফলনে বেশ প্রভাব পড়বে। একে তো বৃষ্টি নেই, তার ওপর ধানের এই দাম। এসব কারণে কৃষকরা বেশ হতাশ। জাতীয় কৃষক সমিতি যশোর জেলার সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান বলেন, ‘উৎপাদিত ধানের ন্যায্য দাম না পাওয়ায় বেশিরভাগ কৃষকই আমন ধান উৎপাদনে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন। অনেকে জমি বন্ধক দিয়ে দিয়েছেন।’

তিনি বলেন, কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি নগদ মূল্যে ধান কিনতে হবে। ইউনিয়ন পর্যায়ে গুদাম তৈরি করে ধান সংগ্রহ করলে কৃষকরা বাঁচবেন। বর্তমানে ইউনিয়ন পরিষদের যে ভবন রয়েছে, তাতেও ধান সংগ্রহ সম্ভব। শুধু সরকারের সদিচ্ছার প্রয়োজন। কৃষক যদি তার ধান সঠিক দামে বিক্রি করতে না পারেন, তবে সামনে ধান চাষ থেকে তারা মুখ ফিরিয়ে নেবেন।

শীর্ষ সংবাদ:
‘পর্যাপ্ত সবুজ ও বৃষ্টির পানি সংরক্ষণের ব্যবস্থা রেখেই প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে হবে’         প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা : ফাঁসির আসামি গ্রেফতার         বাংলাদেশ ও সার্বিয়ার মধ্যে দু’টি সমঝোতা স্মারক সই         লক্ষ্য সাশ্রয়ী মূলে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুত ও জ্বালানি সরবরাহ ॥ নসরুল হামিদ         জাতীয় সংসদের জন্য ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের বাজেট অনুমোদন         দিনাজপুরে ঘুষের ৮০ হাজার টাকাসহ কর্মকর্তা আটক         দায়িত্ব গ্রহণ করলেন ফায়ার সার্ভিসের নবনিযুক্ত মহাপরিচালক         আপনারা যুদ্ধাপরাধীদের সঙ্গে নির্বাচনে অংশ নেবেন না ॥ জাফর ইকবাল         মাঙ্গিপক্স ভাইরাসের বিস্তার ঠেকানো সম্ভব ॥ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা         দেশের অন্তত: ৩০ শতাংশ মানুষ ভুগছে থাইরয়েডে         ইউক্রেনে নিহত হাদিসুরের পরিবার পাচ্ছে ৫ লাখ ডলার         দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩০ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু নেই         টাকা আত্মসাতের দায়ে সোনালী ব্যাংকের সাবেক এমডিসহ ৯ জনের কারাদণ্ড         পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপির বুকে বড় জ্বালা ॥ কাদের         কামরাঙ্গীরচরে দুই যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু         সাড়ে তিন কোটি টাকা আত্মসাত করেন চক্রটি         শাহরাস্তিতে ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে হোটেলে, নিহত ১         নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে কিন্তু আমার আয় বাড়েনি         সংযুক্ত আরব আমিরাতেও প্রথম মাঙ্কিপক্স আক্রান্ত রোগী শনাক্ত