বৃহস্পতিবার ১৩ কার্তিক ১৪২৮, ২৮ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

নিষিদ্ধ সিএফএস গ্যাসের উৎস চীনে

গবেষকরা বলেছেন যে, তারা বিপজ্জনক, ওজোন-ধ্বংসাত্মক বিষাক্ত রাসায়নিক গ্যাস সম্প্রতি রহস্যজনকভাবে বৃদ্ধির অধিকাংশ উৎসগুলো নিখুঁতভাবে নির্ণয় করেছেন। খবর বিবিসি অনলাইনের।

সিএফসি-ইলেভেন মূলত ব্যবহার করা হয় ঘরবাড়ির অন্তরণ সামগ্রী হিসেবে। এর বৈশ্বিক উৎপাদন ২০১০ সালে বন্ধ করে দেয়া হয়। কিন্তু গত ৬ বছর ধরে এর হ্রাস হার অত্যন্ত নেমে গেছে বলে বিজ্ঞানীরা গবেষণায় দেখতে পেয়েছেন। এ নতুন সমীক্ষায় বলা হয়েছে, এর বেশির ভাগ কারণ হচ্ছে চীনের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশগুলোতে নতুন গ্যাস উৎপাদন। ট্রাস্টিক্লোরোফ্লুরেমিথাইন নামেও পরিচিত সিএফসি-ইলেভেন ও ক্লোরোফ্লুরোকার্বন (সিএফসি) রাসায়নিক গ্যাস প্রাথমিকভাবে উৎপাদন করা হয় ১৯৩০-এর দশকে হিমায়িতকরণের কাজে ব্যবহারের জন্য। তারপর বিজ্ঞানীদের অনেকগুলো দশক লেগেছে বিষয়টা আবিষ্কার করতে যে, সিএফসি যখন বায়ুম-লে মিশে যায় তখন এগুলো ক্লোরিন এ্যাটম বিমুক্ত করে এবং দ্রুত ওজোনস্তর ধ্বংস করে যা অতি বেগুনী রশ্মির আলো থেকে আমাদের রক্ষা করে। এ্যান্টার্কটিকায় ১৯৪০-এর দশকে ওজোনস্তরে একটা গেপিং হোল আবিষ্কৃত হয়। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ১৯৮৭ সালের মন্ট্রিয়ল প্রোটোকলের সঙ্গে একমত পোষণ করে। ওই প্রোটোকলে বেশিরভাগ ক্ষতিকর রাসায়নিক গ্যাস নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। সাম্প্রতিক গবেষণায় প্রস্তাব করা হয় যে, উত্তর গোলার্ধে আবিষ্কৃত গর্তটি ২০৩০-এর দশকের মধ্যে এবং এ্যান্টার্কটিকায় ২০৬০-এর দশকের মধ্যে সম্পূর্ণভাবে স্থায়ী অবস্থান নিতে পারে। সিএফসি-ইলেভেন আশানুরূপভাবে হ্রাস পাচ্ছে বলে প্রাথমিকভাবে দেখা গেছে। কিন্তু ২০১৮ সালে এক গবেষক দল বায়ুম-ল পর্যবেক্ষণ করে দেখেন যে, তার হ্রাস হার ২০১২-এর পর প্রায় ৫০ শতাংশ শ্লথ হয়ে পড়েছে। তারা কারণ দেখিয়েছেন, তারা পর্যবেক্ষণ করে দেখেছেন নতুন গ্যাস উৎপাদন হচ্ছে এবং এগুলো পূর্ব এশিয়া থেকে আসছে। সমীক্ষার লেখকরা যুক্তি দেখিয়ে বলেছেন, নতুন উৎপাদনের উৎসগুলো বন্ধ করা না গেলে এক দশকের মধ্যে ওজোন স্তরের দূষণমুক্তি বিলম্বিত হবে। ২০১৮ সালে চীনে এনভায়রনমেন্টাল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সির পরবর্তী নিরূপণ কাজ দৃশ্যত ইঙ্গিত দেয় যে এ দেশটি সত্যিকারভাবে এ উৎসের মূলে রয়েছে। তাদের পর্যবেক্ষণে উঠে আসে যে তাদের যোগাযোগে আসা প্রতিষ্ঠানগুলোর উৎপাদিত বেশিরভাগ পলিউরেথাইন ইনসুলেশনে অবৈধ রাসায়নিক গ্যাস ব্যবহার করা হয়।

করোনাভাইরাস আপডেট
বিশ্বব্যাপী
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
২৪৫৪০৪৪৯৬
আক্রান্ত
১৫৬৮৫৬৩
সুস্থ
২২২৪৫৬৫৬৯
সুস্থ
১৫৩২৪৬৮
শীর্ষ সংবাদ:
সেনাবাহিনী বহির্বিশ্বে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে         ইংল্যান্ডের কাছে বড় ব্যবধানে হার বাংলাদেশের         নীলনক্সা লন্ডনে         ‘গরিবের আইনজীবী’ বাসেত মজুমদারের ইন্তেকাল         পাটুরিয়ায় তলদেশ দিয়ে পানি ঢুকে ফেরিডুবি         দেশে প্রতি চারজনে একজন স্ট্রোকে আক্রান্ত         মূল্যস্ফীতি সরকারের নিয়ন্ত্রণে ॥ অর্থমন্ত্রী         প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা প্যাকেজে অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়িয়েছে         জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর চিন্তা ॥ জনজীবনে চাপ পড়ার শঙ্কা         বাবুলের মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদনে নারাজির শুনানি         কুমিল্লার ঘটনায় জড়িতদের শনাক্ত করা হচ্ছে         হামলা করে সার্বভৌমত্ব হুমকির মধ্যে ফেলে দেয়া হয়েছে         ফ্লাইওভারের র‌্যাম্পে কোন ফাটল সৃষ্টি হয়নি         বৃহস্পতিবার গণটিকার দ্বিতীয় ডোজ         ১ ফেব্রুয়ারিতে হচ্ছে না এসএসসি পরীক্ষা : শিক্ষামন্ত্রী         বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প পুরস্কার পাচ্ছে ২৩ প্রতিষ্ঠান         করোনা: গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৭, নতুন শনাক্ত ৩০৬         কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে ১৮ দিন         গুলশানে ট্রান্সফরমার বিস্ফোরণ, শিশুসহ দগ্ধ ৪         টেকসই উন্নয়নের জন্য চাই ঐক্যবদ্ধ সামাজিক শক্তি