ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯

দাপুটে জয় কুমিল্লা ও রংপুরের

প্রকাশিত: ১০:৫৩, ২৯ জানুয়ারি ২০১৯

দাপুটে জয় কুমিল্লা ও রংপুরের

জিএম মোস্তফা ॥ বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) দুর্দান্ত জয় পেয়েছে আসরের ফেবারিট দুই দল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও রংপুর রাইডার্স। সোমবার দিনের প্রথম ম্যাচে খুলনা টাইটান্সকে ৮০ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়েছে ইমরুল কায়েসের দল। আরেক ম্যাচে মাশরাফি মর্তুজার রংপুর রাইডার্স ৮ উইকেটে পরাজিত করেছে ঢাকা ডাইনামাইটসকে। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সোমবার দ্বিতীয় ম্যাচে ঢাকা ডাইনামাইটসের মুখোমুখি হয় রংপুর রাইডার্স। এই ম্যাচকে ঘিরে ভক্ত-অনুরাগীদের মধ্যে ছিল বাড়তি উত্তেজনা। শক্তিশালী রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে টস জিতে এদিন প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটের বিনিময়ে ১৮৬ রান সংগ্রহ করে ঢাকা ডাইনামাইটস। ঢাকার হয়ে সর্বোচ্চ ৫২ রান করেন রনি তালুকদার। উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান সুনীল নারাইন ২৮ এবং অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের ব্যাট থেকে আসে ২৫ রান। এছাড়া ৩৭ রানে কাইরন পোলার্ড এবং ৩ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন নুরুল হাসান। ঢাকার বিপক্ষে রংপুর রাইডার্সের হয়ে সর্বোচ্চ দুই উইকেট লাভ করেন ফরহাদ রেজা। এছাড়া মাশরাফি বিন মর্তুজা, নাজমুল, শফিউল এবং শহিদুল ইসলাম প্রত্যেকেই প্রতিপক্ষের একটি করে উইকেট লাভ করেন। ঢাকার ছুড়ে দেয়া ১৮৭ রানের জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই খেই হারিয়ে ফেলে রংপুর রাইডার্স। মাত্র ৫ রানেই যে প্রথম দুই ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে ফেলে তার! তাও আবার দানবীয় দুই ব্যাটসম্যান ক্রিস গেইল (১) এবং রিলে রুশো (০)। দুটি উইকেটই লাভ করেন আন্দ্রে রাসেল। আর তখনই নড়েচড়ে বসে গ্যালারীর সমর্থকরা! চট্টগ্রামে যেখানে রানের বন্যা বইয়ে দিচ্ছেন ব্যাটসম্যানরা সেখানে আজ কী করবে রংপুর রাইডার্স? তবে জবাবটা বেশ ভালোই দিয়েছেন রংপুরের দুই মারকুটে ব্যাটসম্যান এ্যালেক্স হেলস এবং এবি ডি ভিলিয়ার্স। রীতিমতো ঝড় তুলে রংপুরকে জয় উপহার দেন তারা। মাত্র ৫০ বলে ঝড়ো এক শতরানের ইনিংস উপহার দেন ডি ভিলিয়ার্স। অন্যদিকে ৫৩ বলে ৮৫ রান করেন এ্যালেক্স হেলস। তাদের অপরাজিত ১৮৫ রানের জুটির সৌজন্যে ১০ বল আগেই ১৮৯ রান তুলে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় রংপুর রাইডার্স। ফলে ৮ উইকেটের বড় জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে মাশরাফি মর্তুজার দল। ম্যাচ সেরার পুরস্কার জিতেন সেঞ্চুরিয়ান ডি ভিলিয়াস। এর আগে দিনের প্রথম ম্যাচে সহজ জয় পেয়েছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। বিপিএলের টি২০ ইতিহাসে প্রথমবার দুই’শ রানের বেশি পেয়ে খুলনা টাইটান্সকে ৮০ রানে বিধ্বস্ত করেছে কুমিল্লা। এভিন লুইসের অপরাজিত ১০৯ রানের টর্নেডো ইনিংসের সৌজন্যে আগে ব্যাট করে ৫ উইকেটে ২৩৭ রান করে কুমিল্লা। জবাবে ওয়াহাব রিয়াজের হ্যাটট্রিকে ১৮.৫ ওভারে ১৫৭ রানেই গুটিয়ে যায় খুলনা। টস জিতে আগে কুমিল্লাকে ব্যাট করতে পাঠায় খুলনা। উদ্বোধনী জুটিতে তামিম ইকবাল ও লুইস পাওয়ার প্লে’র ৬ ওভারে বিনা উইকেটে তুলে নেন ৪৭ রান। এরপর অবশ্য অষ্টম ওভারে অনেকটাই ধীরস্থির তামিম রিয়াদের বলে সাজঘরে ফিরলে ৫৮ রানের জুটি ভেঙ্গে যায়। পরের বলেই এনামুল হক বিজয়কে সাজঘরে ফিরিয়ে দলকে দারুনভাবে ম্যাচে ফিরিয়ে আনেন রিয়াদ। কিন্তু তৃতীয় উইকেটে লুইস-ইমরুল কায়েস জুটি খুলনার বোলারদের বিপর্যস্ত করেন। তারা মাত্র ৪২ বলে ৯৭ রানের জুটি গড়েন। ইমরুল ২১ বলে ৪ চার, ২ ছক্কায় ৩৯ রান করেছিলেন। ১৫তম ওভারে কার্লোস ব্রেথওয়েট শিকার করেন ৪ বলে ১১ রান করা থিসারা পেরেরা ও শহীদ আফ্রিদিকে (১)। কিন্তু রানের গতি থেমে থাকেনি, বিধ্বংসী হয়ে ওঠা লুইসের কারণে। সাদ্দামের করা শেষ ওভারের দ্বিতীয় বলে লং অন দিয়ে ছক্কা হাঁকিয়ে বিপিএলে নিজের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি আদায় করেন লুইস। ২০১৫ সালে ৬৫ বলে অপরাজিত ১০১ রান করেছিলেন তিনি। সেবার বরিশাল বুলসের হয়ে ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে শতরানের ইনিংস খেলেছিলেন এই ক্যারিবীয়ান। ৩১ বলে ফিফটি করা লুইস সেঞ্চুরি করেন ৪৭ বলে। শেষ পর্যন্ত ৪৯ বলে ৫ চার, ১০ ছক্কায় ১০৯ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। ২৮ রানে অপরাজিত থাকেন শামসুর রহমান। ৫ উইকেটে ২৩৭ রান পেয়ে যায় কুমিল্লা। গত শুক্রবার চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে রংপুর রাইডার্সের করা বিপিএল ইতিহাসের সর্বোচ্চ ৪ উইকেটে ২৩৯ রানের দলীয় সংগ্রহের পরই এটি। দুটি করে উইকেট নেন রিয়াদ ও ব্রেথওয়েট। জবাব দিতে নেমে খুলনাকে ৫৫ রানের উদ্বোধনী জুটি দেন জুনায়েদ সিদ্দিকী ও ব্রেন্ডন টেইলর। ফর্মে থাকা জুনায়েদকে (২৭) সাজঘরে ফিরিয়ে দেন অফস্পিনার মেহেদি হাসান। এরপর আফ্রিদি ঘূর্ণিতে মুখ থুবড়ে পড়ে খুলনার টপঅর্ডার। ৪ ওভারে ২৭ রানের বিনিময়ে ৩ উইকেট তুলে নেন তিনি। ডেভিড মালান ১৩ ও রিয়াদ ১১ রানে তার শিকার হন। দারুন খেলে টেইলর ৩৩ বলে ৫০ রান করে আফ্রিদির তৃতীয় শিকারে পরিণত হলে লড়াইটা আর চালিয়ে যেতে পারেনি খুলনা। শুধু ব্রেথওয়েট ১৩ বলে ১ চার, ২ ছক্কায় ২২ রান করেছিলেন। ১৯তম ওভারে হ্যাটট্রিক করে খুলনাকে গুটিয়ে দেন ওয়াহাব রিয়াজ। তৃতীয় বলে উইজ, চতুর্থ বলে তাইজুল ইসলাম আর পঞ্চম বলে সাদ্দামের উইকেট নিয়ে হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন তিনি। ৭ বল আগেই ১৫৭ রানে গুটিয়ে যায় খুলনা। ৮০ রানের অনায়াস জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।