রবিবার ৬ আষাঢ় ১৪২৮, ২০ জুন ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ডাক্তারের কাজ করছেন এক ব্রাদার!

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাউফল, ৩০ মার্চ ॥ বাউফল হাসপাতালের ব্রাদার মোঃ ইউনুসকে দিয়ে জরুরী বিভাগে আসা রোগীদের কাটা ছেড়ার সেলাই করানো হয়। অথচ এই কাজটি করার কথা উপ-সহকারী কমিউিনিটি মেডিক্যাল অফিসারের। এ বিষয়ে অভিযোগ থাকলেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না।

জানা গেছে, বাউফলের নাজিরপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা মোঃ ইউনুস বাউফল হাসপাতালের ব্রাদার পদে চাকরি করলেও তিনি সব সময় জরুরী বিভাগে কাজ করছেন। অথচ এই কাজটি করার কথা দায়িত্বরত উপ-সহকারী কমিউিনিটি মেডিক্যাল অফিসারের। বাউফল হাসপাতালে ৫ উপ-সহকারী কমিউিনিটি মেডিক্যাল অফিসার থাকা সত্ত্বেও ব্রাদার ইউনুস জরুরী বিভাগে আসা কাটা ছেড়া রোগীদের সেলাই ও ড্রেসিং কাজ করেন। অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হতেই সিন্ডিকেট করে তাকে দিয়ে এই কাজটি করানো হচ্ছে। জরুরী বিভাগে আসা রোগীদের কাছ থেকে গ্রহণকৃত অর্থের ভাগ ওইসব উপ-সহকারী কমিউিনিটি মেডিক্যাল অফিসার পেয়ে থাকেন।

নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছেন, ব্রাদার ইউনুসের মাধ্যমেই রোগীদের স্বজনদের কাছ থেকে সর্বনি¤œ ২শ’ থেকে ১ হাজার টাকা বা তার বেশি আদায় করা হয়। জরুরী বিভাগের দায়িত্বরত উপ-সহকারী কমিউিনিটি মেডিক্যাল অফিসার আদায়কৃত ওই অর্থ থেকে ভাগ পান। ব্রাদার মোঃ ইউনুসের দায়িত্ব হলো হাসপাতালের ওয়ার্ডে ভর্তিকৃত রোগীদের সেবা দেয়া। কিন্তু তিনি কাজটি এ হাসপাতালে যোগদানের পর থেকেই করছেন না। অভিযোগ রয়েছে, তিনি যেসব রোগীদের কাটা ছেড়ার সেলাই করেন, কিছুদিন পর সেখানে ইনফেশন দেখা দেয়। অথবা পুনরায় তাকে সেলাই দিতে হয়। বাউফল শহরের ভিআইপি রোড এলাকার বাসিন্দা ফেরদৌস ভূট্রো অভিযোগ করেন, ২৭ মার্চ তার ৭ম শ্রেণী পড়ুয়া ছেলে সিয়ামের দুর্ঘটনা জনিত কারণে জিহ্বা কেটে গেলে তাকে নিয়ে বাউফল হাসপাতালে জরুরী বিভাগে যান। সেখানে দায়িত্বরত কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার রেবেকা সুলতানা থাকা সত্ত্বেও তিনি সেলাই (স্টিজ) না করে ব্রাদার ইউনুস তার ছেলের জিহ্বা সেলাই দিয়েছেন। বাসায় নেয়ার পর তার ছেলের জিহ্বার সেলাই কেটে যায়। পরে অন্য এক সহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার এসে তার ছেলের জিহ্বায় সেলাই করেন। এ রকম আরও বহু অভিযোগ রয়েছে ব্রাদার ইউনুসের বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার ফেরদৌস ভূট্রো উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

এ বিষয়ে বাউফল স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আনম মঈনুল ইসলাম অভিযোগ প্রাপ্তির কথা স্বীকার করে বলেন, জরুরী বিভাগে একটি সিন্ডিকেট এ কাজটি করেছেন। তাদের অধিকাংশ স্থানীয় লোক হওয়ায় কাউকে পরোয়া করেন না বরং হেনস্তা হতে হয়।

শীর্ষ সংবাদ:
ক্ষমতা মানে ভোগ বিলাস নয়, ক্ষমতা হলো মানুষের সেবা করা         খুলনা বিভাগে করোনায় মৃত্যুর নতুন রেকর্ড, একদিনে সর্বোচ্চ ২৮মৃত্যু         নরসিংদীতে সড়ক দুর্ঘটনায় নারী ও শিশুসহ নিহত ৫, আহত ১০         রাজশাহীতে আরও ১০ জনের মৃত্যু, ২০ দিনে ঝরলো ২০৩ প্রাণ         বাবা-মা-বোনকে হত্যা ॥ মেহজাবিন ও তার স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা         কুষ্টিয়ায় জোড়া খুন ॥ দণ্ডিত ৪ আসামির জামিনের রিভিউ আপিল বিভাগে খারিজ         ব্রাজিলে করোনায় মৃত্যু পাঁচ লাখ ছাড়াল, পরিণতি আরো খারাপের শঙ্কা         বিষ ছড়াচ্ছে পলিথিন ॥ হুমকির মুখে জনস্বাস্থ্য ও প্রাকৃতিক পরিবেশ         প্রধানমন্ত্রী আজ ৫৩ হাজার পরিবারকে দিচ্ছেন জমি ও ঘর         রাজধানীতে একই পরিবারের ৩ জন খুন         গণটিকাদান কর্মসূচী শুরু         পুঁজিবাজারের সামনে ভাল ভবিষ্যৎ রয়েছে         প্রিয় পিতার জন্য ভালবাসা         ভুটানের সঙ্গে পিটিএ কার্যকর হচ্ছে নতুন বছরে         করোনায় একদিনে মৃত্যু বেড়ে ৬৭         করোনা বেড়ে যাওয়ায় পর্যটনশিল্প ফের অনিশ্চয়তায়         নাসির ও অমির তিন রক্ষিতা কারাগারে         রোহিঙ্গাদের এনআইডি পাওয়ার নেপথ্যে চাঞ্চল্যকর জালিয়াতি         প্রাকৃতিক গ্যাস অনুসন্ধানই জ্বালানি নিরাপত্তার অন্যতম উপায়         প্রমাণ সরবরাহ করলে তথ্য দেবে সুইস ব্যাংক