ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২০ আগস্ট ২০২২, ৫ ভাদ্র ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

ডায়েট কন্ট্রোল নিয়ে ভুল ধারণা -সানজানা পায়েল

প্রকাশিত: ০৫:৫৫, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭

ডায়েট কন্ট্রোল নিয়ে ভুল ধারণা    -সানজানা পায়েল

নিজেকে সুন্দর দেখতে কে না ভালবাসে? কিন্তু নির্দিষ্ট বা আকর্ষণীয় ফিগার ধরে রাখাটা সবসময় হয়ে ওঠে না। কর্মব্যস্ত জীবনে তো ডায়েট আরেক ভয়াবহতার নাম! তার পরও অনেকেই নিয়মকানুন মেনে চলেন। নিজেকে সুন্দর আকৃতিতে রেখে অন্যের ঈর্ষার কারণ হয়ে উঠেছেন এমন মানুষ বিশ্বে যেমন কম নয়, তেমনি তাদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চোখ-মুখ শুকিয়ে, গাল ভেঙ্গে এক মাসেই চেহারা পাল্টে ফেলেছেন এমন সংখ্যাও নেহায়ত কম নয়। সঠিকভাবে খাদ্য নিয়ন্ত্রণ না করার জন্য অনেকেরই প্রয়োজনীয় মেদ কমে আসে, শরীরে তৈলাক্ততা ও মসৃণতা কমে যায়, এমনকি কোষ্ঠকাঠিন্যও দেখা যায়। যারা স্বাস্থ্য কমাতে চাইছেন, তাদের ডায়েট নিয়ে কিছু ভ্রান্ত ধারণা দূর করতেই আমাদের আজকের এই আয়োজন। ওজন কমানো মানেই একেবারে অনেক ওজন কমিয়ে ফেলা ধরুন আপনি বিএমআই মেপে দেখলেন আপনার প্রায় ৩০ কেজি ওজন কমাতে হবে। এখন যদি আপনি মনে মনে পণ করেন মাসে ১০ কেজি করে কমিয়ে ফেলবেন, তাহলে ব্যাপারটা আপনার জন্য মোটেও স্বাস্থ্যকর হবে না। এক মাসে সাধারণত ৫-৭ কেজি কমানোই আদর্শ ওজন কমানোর পরিমাপ বলা যায়। মিষ্টি একেবারেই খাওয়া যাবে না এটা ভীষণ ভুল একটি ধারণা। প্রতিটি মানুষের শরীরে নির্দিষ্ট পরিমাণ ক্যালরি প্রয়োজন। তাতে অবশ্যই শর্করা, প্রোটিন এবং স্নেহ পদার্থের ভাগ থাকে। শর্করার অংশটুকু হিসেব করে অবশ্যই মিষ্টি খাওয়া যাবে। কী খাচ্ছেন তার থেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ কতটুকু খাচ্ছেন প্রকৃত নিয়ম হচ্ছে সম্পূর্ণ উল্টো। কতটুকু খাচ্ছেন তার দিকে মনোযোগ না দিয়ে কী খাচ্ছেন তার দিকে মনোযোগ দিন। এক বাটি ভাতে যতটুকু ক্যালরি আছে, নিঃসন্দেহে এক স্লাইস পিজ্জায় তার থেকে বেশি ক্যালরি আছে। সুতরাং এক বাটি ভাত না খেয়ে কষ্ট করে এক স্লাইস পিজ্জা খেয়ে ক্ষুধা নিয়ে থাকলেন, কিন্তু মাস শেষে ওজনটা কমল না, ব্যাপারটা মোটেও সুখকর নয়। তাই পরিমাণ নয়, খাদ্যের মানের দিকে নজর দিন। ব্যায়াম করতে পারলে সব খাওয়া যাবে ওজন কমাতে দুটোই সমান ভূমিকা পালন করে। যা খাবেন তার থেকে বেশি ক্যালরি খরচ করতে পারলে অবশ্যই আপনার ওজন কমবে, কিন্তু তাই বলে ভারি খাবার খেয়ে দুই ঘণ্টা ব্যায়াম বেশি করলেই আবার ঠিক হয়ে যাবে এই ধারণাও সঠিক নয়। তাই পরিমিত খান, পরিমিত ব্যায়াম করুন। এটাই স্বাস্থ্যসম্মত। এক বেলা কম খেলে তাড়াতাড়ি ওজন কমে সম্পূর্ণ ভুল ধারণা। বরং প্রতিদিন যা তিন বেলায় খেতেন, তাকে ভাগ করে ছয় বেলায় খেতে পারলেই শরীরের মেটাবলিজম বেশি ভাল থাকবে। তাছাড়া এক বেলা না খেলে পরের বেলায় সেটা ঠিক করার জন্য অনেক বেশি খাওয়া হয়ে যায়। তাই কোনমতেই এক বেলা কম খাওয়া যাবে না। কখনই ফাস্টফুড খাওয়া যাবে না কখনই কিছু করা যাবে না বলতে কোন নিয়ম এখানে নেই। তবে যে কোন কিছু পরিমিত থাকাই ভাল। দু-একদিন দাওয়াত, বন্ধু-বান্ধবের জন্মদিন কিংবা কারও বিয়েতে মজার মজার খাবারগুলো নিশ্চয়ই বাদ দেয়া যাবে না! সবজিই শুধুমাত্র ওজন কমাতে সাহায্য করে একদমই সত্য নয়। শুধুমাত্র সবজিতে আপনি কখনই সারাদিনের জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্য উপাদানগুলো পাবেন না যা আপনাকে সারাদিন সচল রাখবে। তাই শুধু শাক-সবজি নয়, বরং সঙ্গে কিছু শর্করা এবং প্রাণিজ প্রোটিনও রাখুন। ঠান্ডা পানি, ডেটক্স পানি, জিরাপানি, চিরতার রস পানে ওজন কমে পানি অবশ্যই ওজন কমাতে সহায়ক। খাবার কিছুক্ষণ আগে পানি পানে খাবার চাহিদা কমে আসে। কিন্তু পানি কখনই প্রত্যক্ষভাবে ওজন কমাতে সাহায্য করে না। জিরাপানি বা চিরতার পানি পেট পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে। কিন্তু এর সঙ্গে ওজন কমার কোন সরাসরি সম্পর্ক নেই। দুপুরে ঘুমালে ওজন বাড়ে একজন মানুষের সুস্থ থাকার জন্য সারাদিনে ৭-৮ ঘণ্টা ঘুম প্রয়োজন। সেটা যে কোন সময়েই হতে পারে। দুপুরে একটু ঘুম যদি সারাদিনের ক্লন্তি কমিয়ে আনে, তাহলে ঘুমিয়ে নিন। শরীর ক্লান্ত থাকলে ডায়েট আরও কঠিন হবে। যত বেশি ব্যায়াম, তত বেশি উপকার দিনে কখনই ২ ঘণ্টার বেশি ব্যায়াম করা উচিত নয়। এতে শরীরের পেশীতে ভাঙ্গন, ডিহাইড্রেশনসহ অনেক সমস্যা দেখা দিতে পারে। রাতের খাবার ৭টার পর খাওয়া উচিত নয় রাতের খাবার মূলত খেতে বলা হয় ঘুমানোর অন্তত ৩ ঘণ্টা আগে। এতে করে শরীরে বাড়তি মেদ জমার সুযোগ পায় না। কিন্তু তার মানে এটা নয় যে ঠিক ওই সময়ের মধ্যে না খেলে ডায়েট হবে না। যাদের একটু রাত করে ঘুমাতে যাওয়ার অভ্যাস আছে, সেভাবে সময় মিলিয়ে নিলেই হয়ে যায়। তা না হলে সন্ধ্যায় খাবার পর ঠিক ঘুমের সময়ের আগে তার খিদে পেয়ে যেতে পারে এবং ওই সময় হাল্কা কিছু খাওয়া মানেই এক বেলায় দু’বার কিছু খাওয়া, যা সারারাত শরীরে জমে থাকবে। ঘাম না ঝরলে মেদ ঝরে না ঘামের সঙ্গে মেদ কমার আদৌ কি কোন সম্ভাবনা আছে? নেই। অনেকেই আছেন যারা খুব অল্পে ঘেমে যান, আবার কেউ কেউ সারাদিনই ফ্রেশ থাকেন। তাই বলে কি যিনি ফ্রেশ আছেন তিনি মেদ ঝরাতে পারবেন না? অবশ্যই পারবেন। ঘামের সঙ্গে মেদ ঝরার কোন সম্পর্ক নেই। বরং বলা যেতে পারে হৃৎপি সচল থাকলেই মেদ ঝরতে থাকে। সেক্ষেত্রে কেউ কেউ ঘামতে পারেন, কেউ কেউ নাও ঘামতে পারেন। এ রকম আরও বেশ কিছু ভুল ধারণা অনেকের মধ্যেই প্রচলিত আছে। এসব ধারণার কারণে ডায়েট তাদের কাছে বিরাট যুদ্ধ করার মতো কিছু মনে হয়। সত্যিকার অর্থে খাদ্য নিয়ন্ত্রণে আনা মোটেও তেমন কঠিন কিছু নয়। শুধু অতিরিক্ত তৈলাক্ত খাবার, কোল্ড ড্রিঙ্কস এবং বাড়তি চিনি খাওয়া বাদ দিলে সারাদিনের স্বাভাবিক কর্মকাে ই ওজন কমিয়ে আনা সম্ভব। দিনে প্রয়োজন মতো পানি পান করলে এবং ৭-৮ ঘণ্টা ঘুমালে একজন মানুষের বাড়তি খাওয়ার ইচ্ছা অনেকাংশে কমে আসে। ওজন যত সময় নিয়ে ঝরবে ততই দীর্ঘস্থায়ী হবে। দ্রুত ওজন কমাতে গেলে শরীরে নানা সমস্যা দেখা দেয়, যার কারণে ডায়েট ধরে রাখা সম্ভব হয় না। এমনও হতে পারে যে, আপনাকে চিকিৎসাধীন হতে হলো এবং কিছু ওষুধ দেয়া হতে পারে, যা ক্ষুধা বাড়ায় এবং শরীরে বাড়তি কিছু ভিটামিন যোগ করে। তাই সবদিক ভেবে এবং সঠিকটা জেনেই ডায়েট শুরু করা উচিত। প্রয়োজনে একজন ভাল বিশেষজ্ঞ দ্বারা ঠিক করে নিতে পারেন আপনার প্রয়োজনীয় ডায়েট প্ল্যান। তাহলে বানিয়ে নিন আপনার পছন্দের চার্ট এবং আসছে বছরে শুরু করে দিন আপনার যথাযথ খাদ্য নিয়ন্ত্রণ তালিকা।