ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২, ১৬ আষাঢ় ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

খেলা

কাভানির সঙ্গে আমার বিরোধ নেই

প্রকাশিত: ০৫:৪৮, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৭

কাভানির সঙ্গে আমার বিরোধ নেই

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ সুপারস্টার নেইমারের সঙ্গে এডিনসন কাভানির দ্বন্দ্ব নিয়ে বেশ হৈচৈ হয়েছে। ফরাসী ক্লাব প্যারিস সেইন্ট জার্মেইনের (পিএসজি) এই দুই বিদেশী ফুটবলারের মধ্যে ব্যক্তিত্বের সংঘাত প্রকট আকার ধারণ করে। সমস্যা হয়েছিল, তবে তা নিয়ে যে সংবাদ পরিবেশন হয়েছে সেটা মাত্রাতিরিক্ত বলে মনে করেন অনেকে। এবার বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলেছেন স্বয়ং ঘটনার মূল হোতা ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমার। শুক্রবার এক সাক্ষাতকারে সাবেক বার্সিলোনা ফুটবলার বলেছেন, কাভানির সঙ্গে আমার কোন বিরোধ নেই। ফরাসী লীগ ওয়ানে গত ৮ সেপ্টেম্বর লিওর বিরুদ্ধে পিএসজির ২-০ ব্যবধানে জেতা ম্যাচে স্পট কিক নেয়া নিয়ে মতভেদ দেখা দেয় নেইমার ও কাভানির মধ্যে। দুই তারকার দ্বন্দ্ব নিয়ে সংবাদ মাধ্যমে অনেক নেতিবাচক খবর প্রচার হতে থাকে। নেইমার ও কাভানিকে নিজেদের মধ্যে ঝামেলা মেটাতে হবে বলে ওই সময় জানিয়েছিলেন পিএসজি কোচ উনাই এমেরি। পরে তিনিই উপায়টা বাতলে দেন। জানান, পালাক্রমে স্পট কিক নেবেন দুই ফরোয়ার্ড। তবে গত বুধবার রাতে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগে জার্মান জায়ান্ট বেয়ার্ন মিউনিখকে হারানোর পর নেইমার বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন। তিনি বলেন, আমাদের মধ্যে এ নিয়ে তেমন কিছুই হয়নি। নেইমার বলেন, সংবাদ মাধ্যম অনেক গল্প তৈরি করে। তারা অনেক কথা বলে। যে বিষয়ে কোন সূত্র নেই, সে বিষয় নিয়েও তারা কথা বলে। তারা ড্রেসিং রুমে নাক গলাতে চেষ্টা করে এবং শেষ পর্যন্ত এমন সববিষয় নিয়ে দাবি করে যার কোন অস্তিত্ব নেই। আগামীতে স্পট কিক নেয়া নিয়ে সিদ্ধান্ত হয়ে গেছে জানালেও কে নেবেন তা নিয়ে কথা বলেননি নেইমার। উরুগুইয়ান ফরোয়ার্ড দাবি করেন, খেলোয়াড়দের মধ্যে মতপার্থক্য মাঠের লড়াইয়ে প্রভাব ফেলে না। নেইমার বলেন, প্রত্যেকে আলাদা। আমাদের সবার জীবনযাত্রার পদ্ধতি এবং কোন বিষয় দেখার দৃষ্টিকোণ ভিন্ন হতে পারে, কিন্তু মাঠে আমাদের একই লক্ষ্যের দিকে কাজ করা একটি পরিবারের মতো বিজয়ের জন্য ঐক্যবদ্ধ হয়ে খেলতে হবে। এদিকে সতীর্থ কিলিয়ান এমবাপের মানসিক শক্তি ও গুণে মুগ্ধ নেইমার। ভবিষ্যতে ফরাসী এই ফরোয়ার্ড বর্ষসেরা পুরস্কারের লড়াইয়ে অন্যতম একজন প্রতিদ্বন্দ্বী হবেন বলে বিশ্বাস ব্রাজিলিয়ান তারকার। গত আগস্টে ২২ কোটি ২০ লাখ ইউরো রেকর্ড ট্রান্সফার ফিতে বার্সিলোনা থেকে পিএসজিতে নাম লেখান নেইমার। অনেকের মতে, লিওনেল মেসির ছায়া থেকে বের হয়ে বর্ষসেরার পুরস্কার জয়ের লক্ষ্যে ন্যুক্যাম্প ছাড়েন তিনি। বার্সিলোনায় অনেক শিরোপা জেতা নেইমার পিএসজিতেও দারুণ শুরু করেছেন। ইতোমধ্যে সাত ম্যাচ খেলে করেছেন ৬ গোল। সতীর্থদের দিয়ে করিয়েছেনও সমানসংখ্যক গোল। আর লীগ ওয়ান চ্যাম্পিয়ন মোনাকো থেকে ধারে আসা এমবাপে পিএসজির হয়ে এখন পর্যন্ত করেছেন দুই গোল। চ্যাম্পিয়ন্স লীগের গ্রুপপর্বে বেয়ার্ন মিউনিখের বিরুদ্ধে ৩-০ গোলে জেতা ম্যাচটিতে দারুণ খেলেছেন তিনি। কাভানির গোলে অবদান রাখার পাশাপাশি পুরো ম্যাচে দারুণ খেলেছেন। বয়স মাত্র ১৮, এই বয়সেই এমবাপের মানসিক শক্তি ও কৌশলগত গুণ দেখে মুগ্ধ নেইমার। তিনি বলেন, এমবাপে, আমার অনুভূতি এমন যে এরই মধ্যে তার বয়স ৩০ হয়ে গেছে। সে খুব পরিণত এবং খুবই পরিপূর্ণ। সে এমন একজন খেলোয়াড় যে ডিফেন্ডারদের জন্য মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়াবে। সে ব্যালন ডি’অরের দৌড়ে থাকবে।