মঙ্গলবার ১২ মাঘ ১৪২৮, ২৫ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

বিএনপি-জামায়াতের অগ্নিসন্ত্রাসের শিকার ৭ জনকে আর্থিক সহায়তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী

বিএনপি-জামায়াতের অগ্নিসন্ত্রাসের শিকার ৭ জনকে আর্থিক সহায়তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিএনপি-জামায়াত চক্রের ২০১৪ ও ২০১৫ সালের হরতাল, অবরোধের সময় তাদের অগ্নিসন্ত্রাস ও বোমা হামলার শিকার ৭ জনকে আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন। এদের মধ্যে হামলায় গুরুতর আহত ফেনীর এসএসসি পরীক্ষার্থী মিনহাজুল ইসলাম অনিক ও শাহরিয়ার হৃদয় রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বুধবার সকালে তার কার্যালয়ে অনিকের মা আমেনা আকতার জেসমীন ও হৃদয়ের বাবা আবুল খায়েরের হাতে ১০ লাখ টাকার (প্রত্যেককে) চেক তুলে দেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম এ কথা জানান। খবর বাসসর।

তিনি বলেন, এছাড়া প্রধানমন্ত্রী ঢাকার তেজগাঁও সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবদুল কাদের মিয়া, গাজীপুরের শেরপুরের গিয়াস উদ্দিন আহমেদ ও ঝিনাইদহের শৈলকুপার মোঃ লিটন মিয়া প্রত্যেককে ১০ লাখ টাকা করে এবং ঢাকার মিরপুরের মধ্য পাইকপাড়ার সৈয়দ মোঃ আবদুল মতিন ও ঢাকার বংশালের মোঃ সেলিম হোসেন সেলিম প্রত্যেককে ৫ লাখ টাকার চেক প্রদান করেন।

চেক প্রদানকালে শেখ হাসিনা অগ্নিসন্ত্রাস ও বোমা হামলায় আক্রান্তদের শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নেন ও তাদের সান্ত¡না দেন। এসময় এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের সৃষ্টি হয়।

বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাস ও হামলার শিকার ব্যক্তিরা আর্থিক সহায়তার জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী অনিক, হৃদয় ও আবদুল কাদের মিয়ার চিকিৎসার দায়িত্ব নেন এবং তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ভারতে পাঠানো হয়। অনিক ও হৃদয় দু’জনই ছিল ফেনী সরকারী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী। উভয়ে ২০১৫ সালের ৫ জানুয়ারি মুখোশধারী সন্ত্রাসীদের বোমা হামলায় গুরুতর আহত হয়।

এ সময় তারা প্রাইভেট টিউটরের বাসা থেকে রিকশায় নিজ বাসায় ফিরছিল। বোমা বিস্ফোরণে অনিকের শরীরের বিভিন্ন অংশ ভয়ঙ্করভাবে পুড়ে যায়। তার দুটি চোখই মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

অনিককে প্রথমে ফেনী আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে স্থানান্তর করা হয়। এর পর তার চোখের চিকিৎসার জন্য জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরবর্তীতে আরও উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ভারতের চেন্নাই পাঠানো হয়।

অপরদিকে ফেনীর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুল কাদের মিয়া ২০১৫ সালের ৯ জানুয়ারি জেলা শহরে দুষ্কৃতকারীদের নৃশংস বোমা হামলায় গুরুতর আহত হন।

সকাল ৯ টা ৫ মিনিটে পুলিশ কোয়ার্টারের কাছ দিয়ে যাওয়ার সময় শহীদ শহীদুল্লাহ কায়সার সড়কে দুষ্কৃতকারীরা তাকে বহনকারী মাইক্রোবাসে পেট্রোল বোমা ছুড়ে দেয়। বিজিবি সদস্যদের সঙ্গে নিয়ে তার দায়িত্ব পালনে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যাওয়ার পথে ওই হামলা চালানো হয়।

প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচটি ইমাম, মুখ্য সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব সুরাইয়া বেগম এবং এলজিআরডি সচিব আবদুল মালেক এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

শীর্ষ সংবাদ:
একনেকে ১০ প্রকল্প অনুমোদন         ব্রিটেনে পাঁচ বাঙালীর নামে পাঁচটি নতুন ভবন উৎসর্গ         ৪০২ দিন পর খেলতে নামলেন মাশরাফি         ইউক্রেন বিষয়ে পশ্চিমা নেতাদের সঙ্গে আলোচনা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর         প্রথমবারের মত দক্ষিণ কোরিয়ায় দৈনিক সংক্রমণ ৮ হাজার ছাড়িয়েছে         ভারতে গাড়ি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ৭ মেডিকেল শিক্ষার্থী নিহত         ওমিক্রনে শিশুদের ঝুঁকি বাড়ছে         ‘জাতিসংঘে চিঠি শান্তিরক্ষা মিশনে প্রভাব ফেলবে না’         রাজশাহীতে করোনায় ৩ জনের মৃত্যু, শনাক্তের হার ৫৫.৭৮%         ক্যামেরুনের স্টেডিয়ামে খেলা চলাকালে হুড়োহুড়িতে ছয় দর্শকের মৃত্যু         এবার র‌্যাবকে নিষিদ্ধ করতে ইইউতে চিঠি         ‘দুর্নীতিগ্রস্ত’ দেশের তালিকায় বাংলাদেশ ১৩তম         গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় মারা গেছেন ৫ হাজার ৯২২ জন         ইন্দোনেশিয়ায় জাতিগত সংঘাতে ১৯ জন নিহত         কমতে পারে রাতের তাপমাত্রা         আজ বাংলাদেশ-রাশিয়া সম্পর্কের ৫০ বছর         আগুন যেন অপ্রতিরোধ্য ॥ একের পর এক দুর্ঘটনা ঘটেই চলেছে         শাবি ভিসির পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলন অব্যাহত         উলন বিদ্যুত উপকেন্দ্র পুড়ে ছাই         ইসি গঠনের বিলে দুই পরিবর্তনের সুপারিশ