ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

৫ জানুয়ারি দেশব্যাপী আওয়ামী লীগের সমাবেশ

প্রকাশিত: ০৫:৩৮, ৩০ ডিসেম্বর ২০১৬

৫ জানুয়ারি দেশব্যাপী  আওয়ামী লীগের সমাবেশ

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বর্ষপূর্তির দিন আগামী ৫ জানুয়ারি গণতন্ত্রের বিজয় দিবস পালনের মাধ্যমে রাজপথসহ সারাদেশের মাঠ দখলে রাখবে আওয়ামী লীগ। এ উপলক্ষে ওইদিন ঢাকায় দুটি, সারাদেশে জেলা, উপজেলায় সমাবেশ করবে দলটি। ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে রাসেল স্কয়ারে এবং ঢাকা মহানগর দক্ষিণের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি বৃহস্পতিবার দুপুরে ধানম-ির প্রিয়াংকা কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত যৌথসভায় সূচনা বক্তৃতায় এ কর্মসূচী ঘোষণা করেন। আগামী ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের কর্মসূচী সফল করতে ঢাকা মহানগর ও তার আশপাশের জেলাসমূহের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং সংসদ সদস্যদের সঙ্গে এ যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়। সূত্র জানায়, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বর্ষপূর্তির দিন গণতন্ত্রের বিজয় দিবস পালনের মাধ্যমে রাজধানীসহ সারাদেশের মাঠ দখলে রাখতে দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের প্রতি নির্দেশ দিয়েছে আওয়ামী লীগ। ‘জেলা পরিষদ নির্বাচন সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক’ মর্মে বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের বক্তব্যের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, জেলা পরিষদ নির্বাচন সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক নয়। আসলে কোন ইস্যু খুঁজে না পেয়ে বিএনপি জেলা পরিষদ নির্বাচনকে সংবিধান পরিপন্থী বলে দাবি করছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি সংসদ সদস্যদের ভোটে নির্বাচিত হন। স্পীকার সংসদ সদস্যদের ভোটে নির্বাচিত হন। রাষ্ট্রপতি ও স্পীকার যেভাবে নির্বাচিত হন, সেভাবে ইলেক্টোরাল ভোটে জেলা পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। এটা সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক কোন বিষয় নয়। ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির কাছে আমরা কিসের সংবিধান শিখব? কোন সংবিধানের বদৌলতে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন? যারা সংবিধানকে পদদলিত করে স্বৈরশাসনের সূচনা করেছিল তাদের মুখে সংবিধানের কথা মানায় না। তাই সংবিধানের কথা বলবেন না, আপনারাই সংবিধান রক্তাক্ত ও পদদলিত করেছেন। সেতুমন্ত্রী বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় ছিল ২০০১ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত ছিল। তাহলে কেন এই আইন সংশোধন করেনি তারা। কাজেই তাদের মুখে সংবিধানের কথা শুনলে মনে হয় ‘ভূতের মুখে রাম নাম’। নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন সম্পন্ন হওয়ার পর এ বিষেয়ে বিএনপির নৈতিক অবস্থানের সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, সরকারের সহযোগিতায় নির্বাচন কমিশন স্বাধীন ও কর্তৃত্বপূর্ণভাবে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন সম্পন্ন করেছে। দলীয় সরকারের অধীনে এ নির্বাচন একটি মডেল নির্বাচন হতে পারে। দেশ-বিদেশে সমাদৃত হয়েছে এ নির্বাচন। কিন্তু বিএনপির নেতা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও রুহুল কবির রিজভী এই নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করে অনেক কথা বলেছেন। আমরা মনে করেছিলাম, এটা বলার জন্য বলা। কিন্তু খালেদা জিয়া এ নির্বাচন নিয়ে অভিযোগ করেছেন এবং ষড়যন্ত্র খুঁজেছেন। ‘নাসিক নির্বাচন বাইরে থেকে সুষ্ঠু দেখালেও ভেতরে ষড়যন্ত্র ছিল’ খালেদা জিয়ার বক্তব্যের সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, এ অভিযোগের সপক্ষে খালেদা জিয়াকে জাতির সামনে তথ্যপ্রমাণ উপস্থাপন করতে হবে। তা না হলে তার দেয়া বক্তব্য প্রত্যাহার করতে হবে। সভায় আগামী ১০ জানুয়ারি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের সমাবেশ সফল করার আহ্বান জানিয়ে নেতাকর্মীদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বঙ্গবন্ধু শেখ রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের সমাবেশ করব আমরা। এই সমাবেশকে সফল করতে হবে। বৈঠকে অন্যদের মধ্যে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, ডাঃ দীপু মনি, জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২