ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ১৫ আগস্ট ২০২২, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

সংস্কৃতি সংবাদ

সংস্কৃতি বিকাশ কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আনন্দ আয়োজন

প্রকাশিত: ০৫:২১, ১৮ অক্টোবর ২০১৬

সংস্কৃতি বিকাশ কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আনন্দ আয়োজন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নানামুখী সাংস্কৃতিক কর্মকা-ে নিবেদিত প্রতিষ্ঠান সংস্কৃতি বিকাশ কেন্দ্র। পথিকৃৎ ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠানটি সংস্কৃতিপ্রেমীদের কাছে পরিণত হয়েছে মুক্তচিন্তার প্ল্যাটফর্ম হিসেবে। নিয়মিত পাঠচক্র, আলোচনা, পাঠাগার পরিচালনা এবং নিয়মিত সাংস্কৃতিক কার্যক্রমের মাধ্যমে জ্ঞান, মূল্যবোধ ও রুচির বিকাশে দীর্ঘদিন ধরে নিরলস করছে প্রতিষ্ঠানটি। ‘আনন্দময় চর্চায় সম্পন্ন মানুষ’ সেøাগানে যাত্রা করা প্রতিষ্ঠানটি সময়ের বহমানতায় পূর্ণ করেছে পথচলার ২৫ বছর। আর প্রতিষ্ঠানের ২৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনে রাজধানীর পরীবাগের সংস্কৃতি বিকাশ কেন্দ্র প্রাঙ্গণে পাঁচ দিনব্যাপী বহুমাত্রিক অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানসূচীর মধ্যে রয়েছে বুদ্ধিবৃত্তিক সেমিনার/ সিম্পোজিয়াম, চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, প্রীতি সমাবেশ, সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা এবং রাতব্যাপী ধ্রুপদী সংগীত। পাঁচ দিনব্যাপী এ আনন্দ আয়োজনের সূচনা হয় সোমবার বিকেলে। শিল্পী-সাহিত্যিক, সংস্কৃতিকর্মীসহ পেশাজীবীদের পদভারে মুখরিত হয়ে ওঠে কেন্দ্রের আঙিনা। তার আগে দুপুর বেলায় ছিল চলচ্চিত্র প্রদর্শনী। শিশু শিল্পীদের পরিবেশনা দিয়ে শুরু বৈকালিক অনুষ্ঠান। কচি-কাঁচাদের কণ্ঠ আশ্রিত আবৃত্তি অনুষ্ঠানে যোগ করে ভিন্ন মাত্রা। শিশুদের শিল্পিত উচ্চারণে পরিবেশিত হয় আবৃত্তি সংগঠন কল্পরেখার দু’টি আবৃত্তি প্রযোজনা। প্রথমে উপস্থাপিত হয় তামান্না তিথি নির্দেশিত পরিবেশনা ‘ধানসুপাড়ি পানসুপাড়ি’। মীর বরকত নির্দেশিত দ্বিতীয় পরিবেশনার শিরোনাম ছিল ‘রানী যাবেন বাপের বাড়ি’। সন্ধ্যায় ছিল উদ্বোধনী পর্ব। পাঁচ দিনব্যাপী আয়োজনের উদ্বোধন করেন প্রখ্যাত কবি আসাদ চৌধুরী। আলোচনায় অংশ নেন চলচ্চিত্র নির্মাতা মসিহ্্্উদ্দিন শাকের ও কেন্দ্রের উপদেষ্টা অধ্যাপক রোকেয়া আলম। স্বাগত ও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সংস্কৃতি বিকাশ কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক লিয়াকত আলী ও ব্যবস্থাপনা পর্ষদের আহ্বায়ক ড. আসমা চৌধুরী। উদ্বোধনী বক্তব্যে আসাদ চৌধুরী বলেন, মন খুলে নির্ভেজাল একটি আড্ডার কেন্দ্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে সংস্কৃতি বিকাশ কেন্দ্র। চিন্তার স্রোতকে সব সময়ই স্বাগত জানায় এই প্রতিষ্ঠানটি। দিনে দিনে সংকুচিত হয়ে আসা ভাবনার জগতের মাঝে ভিন্ন চিন্তার প্রকাশের ক্ষেত্রটি তৈরি করেছে এই কেন্দ্র। বিজ্ঞানমনস্কতা, ইইলৌকিকতাসহ মুক্তি চিন্তার যে কোন বিষয়ে কথা বলার সুযোগ সৃষ্টি করেছে এই প্রতিষ্ঠানটি। উদ্বোধনী আনুষ্ঠানিকতা শেষে ছিল সঙ্গীত পরিবেশনা। সুরে সুরে শ্রোতাদের মননের স্নিগ্ধতা ছড়িয়ে সঙ্গীতশিল্পী সায়ান। পরিবেশন করেন বেশ কয়েকটি গান। আজ মঙ্গলবার দ্বিতীয় দিনের অনুষ্ঠান শুরু হবে বেলা ৩টায়। এদিনের শুরুতেও থাকবে চলচ্চিত্র প্রদর্শনী। বিকেল সাড়ে ৫টায় অনুষ্ঠিত হবে একাদেমিয়া আয়োজিত ‘গ্লোবাল ক্যাপিটালিজমে চীনা মোড় ও আমেরিকান প্রতিক্রিয়া’ শীর্ষক সেমিনার। বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করবেন গৌতম দাস। হাসান আলীর সঞ্চালনায় সভাপতিত্ব করেন পিনাকী ভট্টাচর্য। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় সঙ্গীতানুরাগীদের জন্য থাকছে গম্ভীরা গানের আসর। পরিবেশনায় অংশ নেবে সূর্য দিগন্ত শিল্পী গোষ্ঠী। এদিনের অনুষ্ঠানের উদ্বোধকের বক্তব্য রাখবেন কবি অসীম সাহা। বুধবার তৃতীয় দিনের আয়োজনে চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর সঙ্গে ‘গণতন্ত্রের জ্ঞানতত্ত্বীয় ভিত্তি’ শীর্ষক সেমিনার। আরও থাকবে দলীয় আবৃত্তি। বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হবে লেখক-সম্প্রীতি আয়োজিত সৈয়দ শামসুল হক, শহীদ কাদরী ও রফিক আজাদ স্মরণে ‘প্রসঙ্গ বাংলা কবিতা’ শীর্ষক সাহিত্য আড্ডা। আরও থাকছে ধ্রুপদী সঙ্গীত রজনী। অনুষ্ঠানমালার শেষ দিন শুক্রবারের প্রীতি সমাবেশ সাজানো হয়েছে আড্ডা, স্মৃতিচারণ, স্বরচিত কবিতা পাঠ, আবৃত্তি ও গানের পরিবেশনায়। ফ্রাঙ্কফুর্ট বইমেলায় অংশ নিচ্ছে বেঙ্গল পাবলিকেশন্স ॥ এ বছরের আন্তর্জাতিক ফ্রাঙ্কফুর্ট বইমেলায় অংশ দিচ্ছে বেঙ্গল পাবলিকেশন্স। বুধবার থেকে শুরু হচ্ছে জার্মানির ফ্রাঙ্কফুর্টে সপ্তাহব্যাপী এই মেলা। বেঙ্গল পাবলিকেশন্সের নির্বাহী পরিচালক আবুল হাসনাত এই মেলায় যোগ দেবেন। রমেশ চন্দ্র শীল ও বিজয় সরকার স্মরণ ॥ স্মরণ করা হলো কবিয়াল রমেশ চন্দ্র শীল ও বিজয় সরকারকে। বিশিষ্টজনদের কথার সঙ্গে শিল্পীর সুরের মুর্ছনায় শ্রদ্ধাঞ্জলি জানানো হলো দুই গানের কবিকে। স্মরণানুষ্ঠানটির আয়োজন করে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি।
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২