মঙ্গলবার ২০ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৪ আগস্ট ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

চা শিল্পের উন্নয়নে ১০০ কোটি টাকা ঋণ দেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ দেশের চা শিল্পের উন্নয়নে কৃষি ব্যাংককে ১০০ কোটি টাকা পুনর্অর্থায়ন দিচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ফলে ১০৬টি চা বাগানের ৬ হাজার ৪৪০ হেক্টর অনাবাদী জমি থেকে অতিরিক্ত ১৬ মিলিয়ন কেজি চা উৎপাদন সম্ভব হবে বলে আশা করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভায় চা শিল্পের উন্নয়নে সহায়তা দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এ ঋণের সুদের হার এক অঙ্কে থাকবে বলে জানা গেছে।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গবর্নর এস কে সুর চৌধুরী বলেন, চা রফতানি থেকে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন সম্ভব। দেশে চা চাষের জন্য অনাবাদী অনেক জমিও রয়েছে। এসব জমিতে চায়ের চাষ হলে অন্যতম রফতানি পণ্যে পরিণত হবে এটি। ফিরে আসবে চা শিল্পের হারানো গৌরবও। জানা যায়, চা বাগানে অব্যবহৃত চা চাষযোগ্য জমিতে চা চাষ সম্প্রসারণ প্রকল্পে অর্থায়ন চেয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের আবেদন করে চা বোর্ড ও চা সংসদ। এর পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গবর্নর এস কে সুর চৌধুরীর সভাপতিত্বে চলতি বছরের ২৯ জানুয়ারি একটি সভা হয়। সভায় চা শিল্পের উন্নয়নে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পুনর্অর্থায়ন সুবিধার আশ্বাস দেন ডেপুটি গবর্নর। চা বোর্ড ও চা সংসদের প্রস্তাবে বলা হয়, ২০৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ১০৬টি চা বাগানের আওতায় ৬ হাজার ৪৪০ হেক্টর অনাবাদী জমিতে চাষ সম্প্রসারণ করা হবে। এর মাধ্যমে অতিরিক্ত চা উৎপাদন সম্ভব হবে প্রায় ১৬ মিলিয়ন কেজি। ঋণের অংশ বাংলাদেশ ব্যাংক ৫ শতাংশ হারে কৃষি ব্যাংকের মাধ্যমে পুনর্অর্থায়ন করলে বাগান মালিকরা কম সুদে এ ঋণ নিয়ে চা চাষ সম্প্রসারণ করবেন।

এর পরিপ্রেক্ষিতে কৃষি ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের ৬৩২তম সভায় এ প্রকল্পে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পুনর্অর্থায়ন সাপেক্ষে অর্থায়নের সিদ্ধান্ত হয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ব্যাংক বাগানের বিপরীতে চা উন্নয়ন ঋণ মঞ্জুর ও বিতরণ করবে। সর্বশেষে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পর্ষদ সভায় কৃষি ব্যাংককে চা শিল্পের উন্নয়নে ১০০ কোটি টাকা পুনর্অর্থায়নের সিদ্ধান্ত হয়। প্রকল্পটির মেয়াদ হবে পাঁচ বছর গ্রেস পিরিয়ডসহ সর্বোচ্চ ১০ বছর। ১০টি বার্ষিক কিস্তিতে কৃষি ব্যাংক গ্রাহকের কাছ থেকে অর্থ আদায়ের পর বাংলাদেশ ব্যাংকে পরিশোধ করবে। বর্তমানে চা খাতে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকই বেশি ভূমিকা রাখছে। ২০১৪ সালে চা উৎপাদনে ঋণ মঞ্জুর হয় ৬৩৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে বিতরণ হয় ৩৫৫ কোটি ও আদায় ১৫২ কোটি টাকা। ২০১৪ সালে চা উৎপাদনে ঋণ অনাদায়ী থাকে ২৪৫ কোটি টাকা। একই বছরে চা উন্নয়নে ৬ কোটি টাকা ঋণ মঞ্জুর হলেও বিতরণ হয় ২ কোটি টাকা। আদায় হয় ১৫ কোটি ও অনাদায়ী থাকে ১৮৩ কোটি টাকা। ২০১৫ সালের ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত চা উৎপাদনে ঋণ মঞ্জুর হয় ৬০৯ কোটি, বিতরণ হয় ৫৭৬ কোটি ও আদায় হয় ৪৪২ কোটি টাকা। আনাদায়ী থাকে ১৮২ কোটি টাকা। একই সময়ে চা উন্নয়নে ঋণ মঞ্জুর হয় ২৪ কোটি, বিতরণ ৯ কোটি ও আদায় হয় প্রায় ৫০ কোটি টাকা।

শীর্ষ সংবাদ:
‘চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়াল নিয়ে পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত’         ভরা বর্ষায় সাগরে লঘুচাপ, ৩ নম্বর সর্তক সংকেত         কৃষকের ক্ষয়ক্ষতি পোষাতে বন্যাপ্লাবিত এলাকা পর্যবেক্ষণের নির্দেশ কৃষিমন্ত্রীর         স্বস্তির বৃষ্টি         শায়েস্তাগঞ্জে বাস চাপায় নিহত ২,আহত ২০         করোনা ভাইরাসের জাদুকরী সমাধান আশা করা বৃথা ॥ ডব্লিউএইচও         করোনা ভাইরাসে প্রাণ গেল আরও এক চিকিৎসকের         দক্ষিণ কোরিয়ায় বন্যা-ভূমিধস ॥ অন্তত ১৩ জনের মৃত্যু         করোনা ভাইরাসে জাসদ নেতা মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমানের মৃত্যু         ভরা বর্ষায় তাপপ্রবাহের মধ্যে সাগরে লঘুচাপে ভ্যাপসা গরম         যুক্তরাষ্ট্রের দিকে ধেয়ে যাচ্ছে হারিকেন ইসাইয়াস         জুলাইয়েও দেশে রেমিটেন্স এসেছে ২২ হাজার কোটি টাকা         সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ কমেছে ৭১ শতাংশ         বাউফলে পুকুরে ডুবে তিন বোনের মর্মান্তিক মৃত্যু         বনানীর সামরিক কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত মেজর(অব.) সিনহা         চারঘাটে সিলিন্ডার বিস্ফোরণে একজন নিহত, আহত ২         বিশেষ মর্যাদা বাতিলের বর্ষপূর্তিতে কাশ্মীরে কারফিউ জারি         হাতিরঝিল থেকে এক ব্যক্তির ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার         স্পেনের সাবেক রাজা হুয়ান কার্লোস দেশ ত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন         পদত্যাগ করলেন লেবাননের পররাষ্ট্রমন্ত্রী        
//--BID Records