ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

স্বেচ্ছাশ্রমেও ভাঙা বাঁধ আটকানো যায়নি

স্টাফ রিপোর্টার, খুলনা অফিস

প্রকাশিত: ২২:১৮, ২৯ মে ২০২৪

স্বেচ্ছাশ্রমেও ভাঙা বাঁধ আটকানো যায়নি

কয়রার মহারাজপুরে রেমালে ভেঙে যাওয়া বাঁধ স্বেচ্ছাশ্রমে মেরামতের চেষ্টা

শত শত মানুষ স্বেচ্ছাশ্রমে কাজ করেও আটকাতে পারিনি খুলনার কয়রায় মহারাজপুর ইউনিয়েনের দশহালিয়ায় ঘূর্ণিঝড় রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধটি। বুধবার সকালে ভাটির সময় বাঁশ, চট ও মাটি দিয়ে গ্রামবাসী বাঁধটি আটকানোর চেষ্টা করে। কিন্তু জোয়ার আসার সাথে সাথে প্রচণ্ড পানির চাপে আবার সেটি ভেঙে যায়। ফলে লবণাক্ত পানিতে আবারো প্লাবিত হয় এলাকাটি। এদিকে সকালে ঘূর্ণিঝড়কবলিত মানুষকে ত্রাণ দিতে কয়রায় আসেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মোঃ মহিববুর রহমান। 
দশহালিয়া গ্রামের হারাধন মিস্ত্রী বলেন, মঙ্গলবারও আমরা একবার বাঁধ আটকারোর চেষ্টা করেছি। কিন্তু পারিনি। তাই বুধবার ভাটির সময় জলের চাপ কম হলে আবার কয়েকশ মনুষ মিলে বাঁধ আটকানোর চেষ্টা করি। ভেবেছিলাম আটকানো হয়ে গেছে। কিন্তু প্রচণ্ড জোয়ারে আবার যখন পানির চাপ দেয় তখন বাঁধটি আবার ভেঙে যায়। চোখের সামনে দিয়ে পানি প্রবেশ করে লোকালয়ে। শুকুর আলী বলেন, গত শনিবার ঝড়ের দিন বাঁধটি ভেঙে যায়। সেই থেকে ১০ থেকে ১২টি গ্রামের প্রায় ২০ হাজার মানুষ পানিতে তলিয়ে আছে।

×