ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

শেষ সময়ে প্রচারে ব্যস্ত প্রার্থীরা

জনকণ্ঠ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২১:৩৭, ১৫ মে ২০২৪

শেষ সময়ে প্রচারে ব্যস্ত প্রার্থীরা

বগুড়া শহরের প্রাণকেন্দ্র সাতমাথা নির্বাচনী পোস্টারে ছেয়ে গেছে

দ্বিতীয় দফা উপজেলা নির্বাচন আগামী ২১ মে। দিন যতই ঘনিয়ে আছে ততই বাড়ছে প্রার্থীদের ব্যস্ততা। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে প্রার্থীরা যাচ্ছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। করছেন পথসভা। দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি। খবর স্টাফ রিপোর্টার ও নিজস্ব সংবাদদাতাদের।

বগুড়া
দ্বিতীয় ধাপে বগুড়ার ৩ উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। নির্বাচনের নির্ধারিত দিন এগিয়ে আসায় প্রার্থীদের ব্যস্ততা ও প্রচারের গতি এখন তুঙ্গে। নির্বাচনী কৌশল ও ভোটের জটিল অঙ্ক মেলাতে চায়ের দোকান থেকে হাটবাজার সবখানেই চলছে জোর আলোচনা। প্রার্থীরা প্রতিটি মুহূর্ত কাজে লাগাতে ছুটছেন পাড়া-মহল্লা থেকে উপজেলা সদর, প্রত্যন্ত গ্রাম, সবখানে। বেশিরভাগ প্রার্থীই ভোর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত ভোটারদের দরজায় কড়া নাড়ছেন।

আদমদীঘি, দুপচাঁচিয়া ও কাহালু এই ৩ উপজেলায় দ্বিতীয় ধাপে ২১ মে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এই তিন উপজেলাতেও বর্তমানদের বিপক্ষে নতুন উপজেলা চেয়ারম্যান প্রত্যাশীরা শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলে চ্যালেঞ্জ তৈরি করেছেন। তিন উপজেলায়ই এখন পুারতনদের সঙ্গে নতুন চেয়ারম্যান প্রার্থীদের হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস মিলছে। সব কটিতেই দ্বিমুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনাই বেশি।
দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে ৩ উপজেলায় চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ভোটের লড়াইয়ে রয়েছেন ২৮ প্রার্থী। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৯ জন। আদমদীঘিতে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন রাশেদুল ইসলাম রাজা, আদমদীঘি-দুপচাঁচিয়া এলাকার সংসদ সদস্যের পিতা সাবেক চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম খান রাজু (সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নের জন্য পদত্যাগ করেছিলেন) এবং  মো. তোফায়েল হোসেন।

দুপচাঁচিয়া উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান ফজলুল হক প্রামাণিকের সঙ্গে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদন্দ্বিতা করছেন আহম্মেদুর রহমান বিপ্লব ও মাহবুবা নাসরিন। আর কাহালু উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান আল হাসিবুল হাসান সুরুজ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান ও এ এন এম আহসানুল হক চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। 
উপজেলাগুলোর বিভিন্ন  শ্রেণিপেশার লোকজনের সঙ্গে কথা বলে দেখা গেছে সব কটিতে বর্তমান  চেয়ারম্যানের সঙ্গে নতুনদের প্রতিদ্বন্দ্বিতার কথাই ভোটের মাঠে বেশি। আদমদীঘিতে প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম খান। তার ছেলে বগুড়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য। এছাড়া তার স্ত্রী বগুড়া জেলা পরিষদের সদস্য ও উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি।

পারিবারিক বলয়ের কথা তুলে প্রতিদ্বন্দ্বী রাশেদুল ইসলামের সর্মথকরা ভোটারদের বাড়তি নজর কাড়ার চেষ্টা করছেন। এই দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর পক্ষে বিপক্ষে ভোটের মাঠে রয়েছেন আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। দুই প্রার্থীর মধ্যেই শক্ত লড়াইয়ের কথা বলছেন এলাকার লোকজন। দুপচাঁচিয়া উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান ফজুলুল হকের বিপক্ষে সাধারণ লোকদের নিয়ে ভোটের মাঠের তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়েছেন যুবলীগ নেতা আহম্মেদুর রহমান।

তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা তার পক্ষে কাজ করছেন। এখানে  এই দুই প্রার্থীর মধ্যেই হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বলেই ভোটাররা বলছেন। আর কাহালুতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির ছেলে বর্তমান চেয়ারম্যান হাসিবুল হাসান সুরুজের বিপক্ষে ভোটের ময়দানে প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান।

আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা দুই প্রার্থীর পক্ষে ভোটের মাঠে রয়েছেন।  এখানেও পারিবারিক বলয়ের কথা বলছেন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা। তবে প্রার্থীরা এখন তাদের প্রধান লক্ষ্য ভোটারদের দিকেই ছুটছেন অবিরাম। চালাচ্ছেন নানাভাবে গণসংযোগ ও ভোটারদের নিজেদের পক্ষে টানতে নানা কৌশল।
ছটিকছড়ি, চট্টগ্রাম
দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচন ফটিকছড়িতে আগামী ২১ মে ভোট। দুই চেয়ারম্যান প্রার্থী, ৪ ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী, ২ নারী ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ মোট ৮ প্রার্থী এ নির্বাচনে লড়াই করছেন। তারা হলেন চেয়ারম্যান পদে ফটিকছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ নাজিম উদ্দীন মুহুরী (মোটরসাইকেল), চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মু. বখতেয়ার সাঈদ ইরান (আনারস), ভাইস চেয়ারম্যান পদে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মুহাম্মদ ছালামত উল্লাহ চৌধুরী (বই), সাংবাদিক সৈয়দ জাহেদউল্লাহ কুরাইশী (তালা), ফটিকছড়ি পৌরসভা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ জসিম উদ্দিন (টিউবওয়েল), ফটিকছড়ি পৌরসভা সাবেক কাউন্সিলর মো. নাজিম উদ্দীন সিদ্দিকী (চশমা), নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) জেবুন নাহার (প্রজাপতি), মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী শারমীন আকতার নূপুর (ফুটবল)।

প্রার্থীদের অনেকেই মাইজভা-ার দরবারসহ বিভিন্ন দরবার জিয়ারত শেষে প্রয়াত দলীয় নেতাকর্মীদের কবর জিয়ারত করে প্রচার শুরু করেন। এ ছাড়া প্রার্থীরা প্রতি দিন কর্মী-সর্মথকদের সঙ্গে নিয়ে বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করে নিজ নিজ প্রতীকে ভোট ভিক্ষা চাচ্ছেন। অনেকেই ভোটারদের দুয়ারে দুয়ারে যাচ্ছেন। এবারের নির্বাচনে যারা প্রার্থী হয়েছেন তাদের মধ্যে একজন ভাইস চেয়ারম্যান পদে ছাড়া অন্যরা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পদে রয়েছেন।

ফলে এবারের প্রতিদ্বন্দ্বী হচ্ছে আ’লীগ বনাম আ’লীগ। একাদিক আওয়ামী লীগ নেতাদের মতে, যেহেতু উপজেলা চেয়ারম্যান পদে দুজনে আওয়ামী লীগের সে ক্ষেত্রে ফটিকছড়ি আওয়ামী লীগের অনেক সিনিয়র নেতা এখনো সরাসরি কাউকে সমর্থন না জানালেও কর্মীরা স্ব-স্ব প্রার্থীর পক্ষে সমর্থন জানিয়ে ভোটের মাঠে নেমে পড়েছেন। 
এদিকে, চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী সাবেক ছাত্রনেতা নাজিম উদ্দীন মুহুরী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে রয়েছেন। তিনি গত উপজেলা নির্বাচনে নৌকা নিয়ে নির্বাচন করেছিলেন। তখন তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক ছাত্রনেতা হোসাইন মোহাম্মদ আবু তৈয়বের কাছে হেরে যান। অপর চেয়ারম্যান প্রার্থী মু. বখতিয়ার সাঈদ ইরান উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ছিলেন।

বর্তমানে তিনি চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আ’লীগের নির্বাহী সদস্য এর দায়িত্বে আছেন। তিনি বসে যাওয়ার জন্য নয় জেতার জন্য এসেছেন বলে জানান। শেষ পর্যন্ত ভোটের মাঠে লড়ে যাবেন তিনি এ অভিমত ব্যক্ত করে বলেন এবারের ভোটাররা তাকে নির্বাচিত করবে। ভাইস চেয়ারম্যান পদে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মুহাম্মদ ছালামত উল্লাহ চৌধুরী আবারও এ পদে নির্বাচন করছেন। তাকে ভোটাররা মূল্যায়ন করবেন বলে জানান।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে সাংবাদিক সৈয়দ জাহেদ উল্লাহ কুরাইশী গতবারও এ পদে নির্বাচন করেছিলেন। তখন পরাজিত হলেও তিনি মাঠে-ময়দানে ছিলেন বলে জানান। তাই তিনি ভোটের মাধ্যমে জয়ী হবেন বলে আশাবাদী। এ ছাড়া এ পদে নির্বাচন করছেন ফটিকছড়ি পৌরসভা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ জসিম উদ্দিন।

তিনি নতুন ভাবে এ পদে নির্বাচনে এসেছেন। তিনি এবার চমক দেখাবেন বলে তার অনুসারীরা জানান। এ ছাড়া এ পদে নির্বাচন করছেন ফটিকছড়ি পৌরসভা সাবেক কাউন্সিলর মো. নাজিম উদ্দীন সিদ্দিকী।
এদিকে নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছেন বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জেবুন নাহার মুক্তা। তিনি উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদিকার দায়িত্বে আছেন।

তিনি বর্তমানসহ দুই দফা নির্বাচিত হয়ে এ পদে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তাকে পুনরায় ভোটারগণ মূল্যায়ন করবেন এমনটি জানান তিনি। অপরদিকে, ভোটারগন এ পদে নতুন মুখ দেখতে চান বলে জানান অপর প্রার্থী মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী শারমীন আকতার নূপুর। তিনি গত উপজেলা নির্বাচনেও ভোটে লড়ে অল্প ভোটে পরাজিত হন। এবার জয়ের ব্যাপারে এ মহিলা নেত্রী শতভাগ আশাবাদী।

কালকিনি, মাদারীপুর
কালকিনি উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে চেয়ারম্যান প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান তৌফিকুজ্জামান শাহীনের মোটরসাইকেল প্রতীকের পক্ষে দলীয় নেতা-কর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে প্রচার- চালিয়ে আসছেন। অপরদিকে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে তৌফিকুজ্জামান শাহীন ছারাও আরও তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

তাঁরা হলেন বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ও সাবেক উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মীর গোলাম ফারুক (আনারস), আমেরিকা প্রবাসী যুবলীগ নেতা নুরুজ্জামান সরদার (ঘোড়া) ও কয়ারিয়া ইউপি ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম (দোয়াত কলম)। তবে মোটরসাইকেল প্রতীকের পাশাপাশি ঘোড়া প্রতীকের প্রচার থাকলেও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ও সাবেক উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মীর গোলাম ফারুক (আনারস) প্রতীকের ও দোয়াত কলম প্রতীকের প্রার্থীদের তেমন প্রচার দেখা যাচ্ছে না।

×