ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ২১ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

কোনও সশস্ত্র অবৈধ সংগঠন থাকবে না

প্রকাশিত: ২১:৩৯, ১৭ এপ্রিল ২০২৪

কোনও সশস্ত্র অবৈধ সংগঠন থাকবে না

র‌্যাব মহাপরিচালক এম খুরশীদ হোসেন

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) এর মহাপরিচালক এম খুরশীদ হোসেন বলেন, বান্দরবানে যৌথ অভিযান চলছে। স্বাধীন দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ। এ দেশে কোনও অবৈধ সশস্ত্র সংগঠন থাকবে এটা আমরা চাই না। যারা বিপথে গেছেন, আমাদের অনুরোধ থাকবে তারা বুঝতে পারবেন। তারা শান্তিতে বিশ্বাস করবে, শান্তিতে বসবাস করবে।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) বিকেলে বান্দরবান সার্কিট হাউজে সাংবাদিকদের সঙ্গে প্রেস ব্রিফিংয়ে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব) এর মহাপরিচালক এম খুরশীদ হোসেন এসব কথা বলেন।

এসময় অতিরিক্ত মহাপরিচালক (র‌্যাব অপারেশনস) কর্নেল মো. মাহাবুব আলম, জেলা প্রশাসক শাহ মোজা‌হিদ উদ্দিন, পুলিশ সুপার সৈকত শাহীন, বান্দরবান সেক্টর সদর দপ্তর কর্নেল সোহেল আহমেদ, ডি‌জিএফআইয়ের কর্নেল মোহাম্মদ আসাদুল্লাহ জামশেদসহ বিভিন্ন অফিসের কর্মকর্তা ও সাংবাদিকেরা উপস্থিত ছিলেন।

তিনি আরো বলেন, অতীতে সর্বহারা আমাদের কাছে আত্মসমপর্ণ করেছে। তাদের পুর্ণবাসন করা হয়েছে। জলদস্যু আত্মসমর্পণ করেছে, পুর্ণবাসন করা হয়েছে। যারা বিপথে গেছেন, তারা সশস্ত্র পথ ছেড়ে দিয়ে নিজেরা আত্মসমর্পণ করতে চাইলে আমরা তাদের স্বাগতম জানাবো। পূর্ণবাসন করবো।

অবৈধ অস্ত্রধারীদের বিষয়ে র‌্যাবের মহাপরিচালক বলেন, তবে স্বাধীন দেশে এরকম অবৈধ অস্ত্রধারী এটা কোনও অবস্থাতে মেনে নেওয়া হবে না। যতক্ষণ পর্যন্ত শান্তির পথে ফিরে আসবে না, ততক্ষণ পর্যন্ত এ অভিযান চলবে।

পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠার বিষয়ে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী পার্বত্য জেলায় শান্তি প্রতিষ্ঠা করেছেন। সরকার চেয়েছে এ এলাকায় যেসব জাতিগোষ্ঠী আছে, তারা এলাকায় থাকবে। শান্তিতে থাকবে। এটা সরকার প্রধান চান। তবে অশান্তি সৃষ্টি করলে সেটা মেনে নেওয়া হবে না।

আলোচনার পথ খোলা আছে বলে জানিয়ে মহাপরিচালক বলেন, এখানে শান্তি কমিটি আছে। কমিটির সঙ্গে আলোচনার পথ তো বন্ধ হয়নি। আলোচনার পথ খোলা আছে। আমরা সব দিক দিয়ে চেষ্টা করছি। আমরা বিশ্বাস করি, তাদের শুভবুদ্ধির উদয় হবে। তারা সৎ পথে চলে আসবে।

এর আগে তিনি রুমা উপজেলা পরিষদ মসজিদ, ব্যাংক ডাকাতির ঘটনাস্থলে পরিদর্শনের করেন। পরে বান্দরবানে সার্কিট হাউজের প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মাঝে  মতবিনিময় সভায় যোগ দেন তিনি।

 

শহিদ

×