৫ এপ্রিল ২০২০, ২২ চৈত্র ১৪২৬, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 

অচিরেই সিঙ্গাপুর মালয়েশিয়াকে পেছনে ফেলব ॥ অর্থমন্ত্রী

প্রকাশিত : ২৫ জানুয়ারী ২০২০

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ বর্তমান বিশ্ব চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এ শিল্প বিপ্লবের প্রধান নিয়ামক হবে প্রযুক্তি। শিল্প বিপ্লবের সুফল পেতে হলে তার জন্য উপযোগী জনবল কাঠামো গড়ে তুলতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়কে এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে। এ কাজে সবার সহযোগিতা প্রয়োজন। একটি প্রতিষ্ঠান অসংখ্য প্রতিষ্ঠানের সৃষ্টি করে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও এর এ্যাকাউন্টিং বিভাগের শিক্ষার্থীরা তেমনিভাবে দেশে ও দেশের বাইরে অসংখ্য প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করেছেন।

দেশের অর্থনীতির অগ্রগতির বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, বিশ্বের যেসব দেশ খুব দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে, বাংলাদেশ সেসব দেশের তালিকায় প্রথম সারিতে অবস্থান করছে। ১০ বছর আগে আমাদের অর্থনীতির আকার ছিল বিশ্বে ৫৮তম। বর্তমানে আমরা ২৯তম। অচিরেই আমরা মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও তাইওয়ানের মতো দেশকে পেছনে ফেলতে সক্ষম হবো। চলতি বছর যেসব দেশ বিশ্ব অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে, এমন ২০টি দেশের তালিকা করেছে বিশ্বব্যাংক। বাংলাদেশ সেই তালিকার অন্যতম দেশ।

শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে অনুষ্ঠিত এ্যাকাউন্টিং এ্যান্ড ইনফরমেশন্স সিস্টেমস (এআইএস) বিভাগের এ্যালামনাই এ্যাসোসিয়েশনের ২৫ বছর ও এআইএসের ৫০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এসব কথা বলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আখতারুজ্জামান কেক কেটে দিনব্যাপী এই উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। বিভাগীয় চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. রিয়াজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে পরিকল্পনামন্ত্রী এম. এ. মান্নান, এমপি প্রধান অতিথি এবং বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের ডিন অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও, অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বিভাগীয় প্রাক্তন শিক্ষক অধ্যাপক ড. শফিক আহমেদ সিদ্দিক, অধ্যাপক এম মঈনউদ্দিন খান, এ্যাকাউন্টিং এ্যালামনাই এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি স্বদেশ রঞ্জন সাহা এবং সাধারণ সম্পাদক এম তোফায়েল আহমেদ বক্তব্য রাখেন। বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালকে আজীবন সম্মাননা দেয়া হয়।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম. এ. মান্নান বলেন, বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এ্যাকাউন্টিং এ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থীরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। এ সময় তিনি ৫০ বছরপূর্তি উপলক্ষে বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও এ্যালামনাইদের আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আখতারুজ্জামান ৫০ বছরপূর্তি উপলক্ষে বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও এ্যালামনাইদের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান। এ সময় তিনি বলেন, সূচনালগ্ন থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণার মানোন্নয়নে এবং দেশের অর্থনৈতিক অবকাঠামোর আধুনিকায়নে এ্যাকাউন্টিং এ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে। তিনি বলেন, মুজিববর্ষ, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষ উদ্যাপনকে সামনে রেখে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ব্যাপক কর্মসূচী হাতে নিয়েছে। এসব কর্মসূচীর সফল বাস্তবায়নে বিভাগের ও বিভাগের এ্যালামনাইসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি সক্রিয় অংশগ্রহণের জন্য উপাচার্য আহ্বান জানান।

প্রকাশিত : ২৫ জানুয়ারী ২০২০

২৫/০১/২০২০ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



শীর্ষ সংবাদ: