১৭ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

বাংলাদেশের সমাজ ক্রমশ অমানবিক হয়ে উঠছে : মেনন

প্রকাশিত : ৯ অক্টোবর ২০১৯, ০৬:২০ পি. এম.
বাংলাদেশের সমাজ ক্রমশ অমানবিক হয়ে উঠছে :  মেনন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেছেন, বাংলাদেশের সমাজ ক্রমশ অমানবিক হয়ে উঠছে। না হলে পরে বন্ধুরা মিলে সহপাঠীকে পিটিয়ে মারতে পারে না। আর উপাচার্য তার ছাত্রের মৃত্যুর পর তাকে দেখতে যেতে পারে না; নিহত ছাত্রের জানাজায় অংশ না নেয়াটাই কতবড় অসংবেদনশীলতা এটা স্পষ্ট বোঝা যায়। এর কারণ আসলে বাংলাদেশের যে ভোগবাদী অর্থনীতি ক্রমাগত দেশের মধ্যে এক ধরনের অমানবিক সমাজ গড়ে তুলছে। অর্থনীতির মধ্যে ব্যক্তি লাভালাভ ছাড়া সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য কিছু দায়-দায়িত্ব আছে এটাই এখন মনে করতে পারছে না।

বুধবার উত্তরায় আব্দুল জলিল হাই স্কুল অডিটোরিয়ামে ওয়ার্কার্স পার্টি বৃহত্তর উত্তরা থানা সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তৃব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

রবিবার রাতে বুয়েটের শেরে বাংলা হলের সিঁড়িতে ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদের লাশ পাওয়ার পর থেকে ঢাকা ও ঢাকার বাইরে বিভিন্ন স্থানে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ চলছে।

সহপাঠীদের বরাতে সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়, শিবির সন্দেহে ছাত্রলীগের কর্মীরা তাকে পিটিয়ে হত্যা করেছে। আবরার হত্যাকান্ডে তার বাবা ১৯ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেছেন, যার মধ্যে এ পর্যন্ত বুয়েটের ১১ ছাত্রকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা সবাই ছাত্রলীগের রাজনীতিতে জড়িত। এ ঘটনায় বুয়েটের ১১ জন নেতাকর্মীকে বহিষ্কারও করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। পাশাপাশি ছাত্রলীগের পক্ষ থেকেও হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানানো হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও বুধবার গণভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে যারা পিটিয়ে অমানবিকভাবে হত্যা করেছে, তাদের কঠিনতম শাস্তি হবে।

তিনি বলেন, কেউ যদি কোনো অপরাধ করে, সে কোন দল, কী করে না করে, আমি কিন্তু সেটা দেখি না। আমার কাছে অপরাধী অপরাধীই। আমরা অপরাধী হিসেবেই দেখি। আবরার হত্যাকা-ের পর থেকেই বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানানো হয়েছে।

এরি ধারাবাহিকতায় ১৪ দলের অন্যতম শরিক নেতা ও সাবেক মন্ত্রী মেনন বলেন, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি সব সময় এ ধরনের বৈষম্য, দুর্নীতি, অনাচার, ধর্ষণ ও হত্যার বিরুদ্ধে লড়াই করেছে। আগামী কংগ্রেস থেকে এই লক্ষ্যেই আমাদের লড়াই-সংগ্রাম পরিচালনা করার জন্য সিদ্ধান্ত নেবে। বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি তার সম্মেলনের মধ্য দিয়ে একটি মানবিক সমাজ গঠন করবে।

বৃহত্তর উত্তরা থানার নেতা হারুনুর রশিদের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী সভায় আরও বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর সভাপতি আবুল হোসাইন, সাধারণ সম্পাদক কিশোর রায়, মহানগর কমিটির সদস্য শাহানা ফেরদৌসী লাকী, তৌহিদুর রহমান, যুব নেতা কায়ছার আলমসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।

প্রকাশিত : ৯ অক্টোবর ২০১৯, ০৬:২০ পি. এম.

০৯/১০/২০১৯ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

জাতীয়



শীর্ষ সংবাদ: