২১ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

সাকিবদের পেয়ে উচ্ছ্বসিত জ্যামাইকা কোচ


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লীগ (সিপিএল) টি২০ শুরু হচ্ছে বৃহস্পতিবার। ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স (টি এন্ড টি রাইডার্স) ও সেন্ট লুসিয়া জোকসের মধ্যকার খেলা দিয়েই শুরু হবে টুর্নামেন্ট। এ টুর্নামেন্টে এবার একমাত্র বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে অংশ নিচ্ছেন বাংলাদেশ সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তিনি জ্যামাইকা তালাওয়াহস দলে খেলছেন। যে দলে বিশ্বের সেরা টি২০ ব্যাটসম্যান ক্রিস গেইল, শ্রীলঙ্কার লিজেন্ড ক্রিকেটার কুমার সাঙ্গাকারা, দক্ষিণ আফ্রিকার গতিম্যান ডেল স্টেইন, ওয়েস্ট ইন্ডিজের আন্দ্রে রাসেল আছেন। সাকিবদের পেয়ে তাই উচ্ছ্বসিত জ্যামাইকা তালাওয়াহস কোচ ইংল্যান্ডের পল নিক্সন।

কোচ বলেছেন, ‘আমরা আমাদের প্রতিপক্ষকে যথেষ্ট সম্মান করি, কিন্তু তাদের ভয় পাই না। টুর্নামেন্টে বিশ্বসেরা অনেক ক্রিকেটার অংশ নেবে। আমি প্রতিপক্ষের ১১ ব্যাটসম্যানকে সাজঘরের পথে হেঁটে যেতে দেখতে চাই।’

নিজেদের লক্ষ্যের কথাও জানালেন জ্যামাইকা কোচ, ‘আমাদের লক্ষ্য চাপমুক্ত থেকে ভাল পারফর্ম করা। ময়দানী যুদ্ধে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে। টি২০ ক্রিকেটে এক কিংবা দুই ওভার ম্যাচে বড় পরিবর্তন এনে দেয়। এজন্য সিপিএলে আমরা ইতিবাচক চিন্তা নিয়ে এগিয়ে যাব।’ দল হিসেবে স্বাভাবিকভাবেই অন্যদের চেয়ে জ্যামাইকা অনেক শক্তিশালী। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারদের একজন আছেন। তিনি সাকিব। বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান আছেন। তিনি গেইল। বিপদের সময় হাল ধরার মতো ব্যাটসম্যানও আছেন। তিনি সাঙ্গাকারা। আন্দ্রে রাসেলও আছেন। যিনি বল হাতে যেমন গতির ঝড় তুলতে সক্ষম। আবার শেষে ব্যাট হাতেও জৌলুস ছড়াতে পারেন। আরেকজন আছেন। যার বোলিং গতির সামনে ব্যাটসম্যানরা মুহূর্তেই ছন্নছাড়া হয়ে পড়ে। তিনি ডেল স্টেইন। সব বিভাগেই সেরা ক্রিকেটার আছেন। সেই দলটিত শক্তিশালী হবেই। সেই দলে অংশ নিতে শনিবার দেশ ছেড়ে রবিবারই জ্যামাইকা যান সাকিব। টুর্নামেন্টে মোট ৬ দল অংশ নিচ্ছে। দলগুলো হলো-বারবাডোজ ট্রাইডেন্টস, গায়ানা এ্যামাজন ওয়ারিয়র্স, সেন্ট কিটস এ্যান্ড নেভিস পেট্রিয়টস, সেন্ট লুসিয়া জোকস ও ট্রিনবাগো নাইট রাইডার্স। ২ জুলাই সাকিব তার এবারের সিপিএল পর্ব শুরু করবেন। প্রতিপক্ষ সেন্ট কিটস। রাত ১০টায় খেলা শুরু হবে। এরপর এক এক করে ৫ জুলাই ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স, ৮ জুলাই গায়ানা এ্যামাজন ওয়ারিয়র্স, ১২ জুলাই বার্বাডোস ট্রাইডেন্টস, ১৬ জুলাই গায়ানা এ্যামাজন ওয়ারিয়র্স, ১৭ জুলাই সেন্ট কিটস, ১৯ জুলাই ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স, ২১ জুলাই বার্বাডোস ট্রাইডেন্টস, ৩০ জুলাই সেন্ট লুসিয়া জোকস ও ১ আগস্ট একই দলের বিপক্ষে খেলবে সাকিবের দল।

এবার তৃতীয় আসর হবে। ২০১৩ সালের প্রথম আসরেও খেলেন সাকিব আল হাসান। সেবার বার্বাডোস ট্রাইডেন্টসে খেলেন। চ্যাম্পিয়ন হয় জ্যামাইকা তালাওয়াহস। দ্বিতীয় আসরে শিরোপা জেতে বার্বাডোস ট্রাইডেন্টস। কিন্তু ২০১৪ সালের আসরে আর সাকিব সিপিএলে খেলতে পারেননি।

সিপিএলের প্রথম আসরে সুযোগ পেয়ে রীতিমতো চমক দেখিয়ে ছিলেন সাকিব। ব্যাট হাতে কিছু করতে না পারলেও বল হাতে দুর্দান্ত থাকা সাকিব এক ম্যাচে ৬ উইকেট নেয়ার পাশাপাশি শিকার করেন মোট ১১ উইকেট।

সিপিএলের প্রথম আসরে খেলার পর পরবর্তী আসর ২০১৪ সালে খেলার জন্য ডাক পেলেও বোর্ড থেকে অনাপত্তিপত্র না মিলায় সিপিএলে আর খেলা হয়নি বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারের। আবার অনাপত্তিপত্র না নিয়ে খেলতে যাওয়ায় শাস্তিও পান। ছয় মাস নিষিদ্ধ হন। ২০১৫ সালের আসরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ব্যস্ততার কারণে খেলতে পারেননি। জ্যামাইকা তালাওয়াহসের হয়ে ঠিক সময়ে মাঠে নামতে গত কয়েকদিন আগে অনাপত্তিপত্রের জন্য বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কাছে আবেদন করেন সাকিব। তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সাড়াও মিলেছে বিসিবির পক্ষ থেকে। অনাপত্তিপত্র মিলায় এবারের টুর্নামেন্টে খেলতে আর কোন বাধা রইল না সাকিব আল হাসানের। সাকিব এরইমধ্যে জ্যামাইকা চলেও গেছেন। দলের সঙ্গেও আছেন। সাকিবদের পেয়ে শিরোপা জয়ের আশা করছেন জ্যামাইকা কোচও। তিনি উচ্ছ্বসিতও।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: