মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২৩ আগস্ট ২০১৭, ৮ ভাদ্র ১৪২৪, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

দেশে পরিত্যাক্ত বাড়ি সাড়ে ১০ হাজার, অবৈধ দখলে ১২৮টি সরকারি বাড়ি

প্রকাশিত : ২৭ জুন ২০১৬, ০৪:৪০ পি. এম.

সংসদ রিপোর্টার ॥ সারাদেশে মোট ১০ হাজার ৪২৪টি পরিত্যাক্ত বাড়ি রয়েছে। এছাড়া বর্তমানে ১২৮টি সরকারি বাড়ী সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারিদের অবৈধ দখলে রয়েছে। এসব বাসা/বাড়ীর বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বিভিন্ন আদালতে মামলা দায়ের করে বসবাস করছে। উক্ত বাড়ীগুলো দ্রুত উদ্ধার করে সরকারের আয়ত্বে আনার লক্ষ্যে রীট মামলাগুলো প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে থাকে।

সোমবার জাতীয় সংসদে টেবিলে উত্থাপিত প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকারি দলের সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। মন্ত্রীর দেয়া তথ্য অনুযায়ী- অবৈধ দখলে থাকা বাড়ীগুলোর মধ্যে এফ শ্রেনীর ১টি, সুপিরিয়র-২টি, ই-শ্রেনী ১২টি, সংরক্ষিত পরিত্যাক্ত বাস/বাড়ী (বিভিন্ন শ্রেণী) ৫৩টি, ডি-শ্রেণী-৫৬টি ও অস্থায়ী বাসা ৪টি। মন্ত্রী জানান, ইতোমধ্যে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রনালয়ের অধীন আবাসন পরিদফতরের আওতাধীন বাসা/বাড়ীর উপর রুজু হওয়া মামলাগুলো দ্রুত নিস্পত্তির লক্ষ্যে দুইজন বেসরকারি প্যানেল আইনজীবী তালিকাভুক্তির বিষয়ে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে।

সংসদ সদস্য নুরুল ইসলাম মিলনের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, সারাদেশে মোট ১০ হাজার ৪১৪টি পরিত্যাক্ত বাড়ি রয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা জেলায় সর্বোচ্চ ৬ হাজার ৪০৬টি, খুলনায় ১ হাজার ৪২১টি, কুষ্টিয়ায় ৫০৭টি চট্টগ্রামে ৩৫৩টি, দিনাজপুরে ৩৭৮টি, নীলফামারীতে ২২৩টি, লালমনিরহাটে ১০৮টি, বগুড়ায় ২৮০টি, রাজশাহীতে ২২৮টি, নারায়নগঞ্জে ৬২টি, রাজবাড়ীতে ৩৬টি, পাবনায় ১২৩টি, যশোরে ৯২টি, সিরাজগঞ্জে ১৩টি, চাপাইনবাবগঞ্জে ১৬টি, চুয়াডাঙ্গায় ২৭টি, রংপুরে ৪২টি, কুড়িগ্রামে ১৭টি, গাইবান্ধায় ২১টি, গাজীপুরে ৩টি, নরসিংদীতে ২টি, নাটোরে ৭টি, জয়পুরহাটে ১টি, বাগেরহাটে ১টি, কুমিল্লায় ৩টি, ক´বাজারে ১টি, সিলেটে ৪টি এবং ঠাকুরগাঁওয়ে ৯টি পরিত্যাক্ত বাড়ী রয়েছে।

মন্ত্রী জানান, বর্তমানে পরিত্যাক্ত বাড়ীঘর শুধুমাত্র শহীদ পরিবার ও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাগণের বরাবরে বরাদ্দ প্রদান করা হয়ে থাকে। ১০-৪-১৯৮৪ সালের সার্কুলার অনুযায়ী অসহায় মানুষদের পরিত্যাক্ত বাড়ি বরাদ্দ দেয়ার কোন বিধান নেই। তিনি জানান, ঢাকা জেলার পরিত্যক্ত বাড়ীর মধ্যে ক তালিকাভুক্ত বাড়ির সংখ্যা ৫ হাজার ২৮টি এবং খ তালিকাভূক্ত বাড়ির সংখ্যা ১ হাজার ৪৩৯টি। উক্ত বাড়িগুলোর মধ্যে বিক্রয় তালিকাভূক্ত বাড়ির সংখ্যা ৪ হাজার ৭৮২টি এবং সংরক্ষিত তালিকাভূক্ত বাড়ির সংখ্যা ২১৫টি। দলীল সম্পাদিত বাড়ীর সংখ্যা ২ হাজার ৬৮৯টি, অবমুক্ত করা হয়েছে এমন বাড়ীর সংখ্যা ১ হাজার ১১টি। তিনি জানান, ৬৬টি বাড়ী অবৈধ বসবাসকারিদের দখলে রয়েছে। ৯৯৯টি বাড়ীর বিপরীতে মামলা চলমান রয়েছে। বাকী ১ হাজার ৪৮৭টি বাড়ী ডি.এন গ্রহীতা ও বরাদ্দ প্রাপকগনের কাছ থেকে ভাড়া আদায়ের মাধ্যমে বিক্রয় প্রক্রিয়াধীন আছে।

সেলিনা বেগমের প্রশ্নের জবাবে পূর্তমন্ত্রী জানান, রাষ্ট্রপতির আদেশ ১৬/৭২, মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের ৪-৯-৮৩ তারিখের সিদ্ধান্ত ও গৃহায়ন ও গণপূর্ণ মন্ত্রনালয়ের বিভিন্ন সময়ে জারিকৃত আদেশ/ অফিস স্মারক/ পরিপত্র/ সার্কুলার অনুসারে পরিত্যাক্ত বাড়িঘর বরাদ্দ ও বিক্রয় কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়ে থাকে।

প্রকাশিত : ২৭ জুন ২০১৬, ০৪:৪০ পি. এম.

২৭/০৬/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

জাতীয়



শীর্ষ সংবাদ: