ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১

রাজস্থান-হায়দরাবাদ ফাইনালে ওঠার লড়াই

জিএম মোস্তফা

প্রকাশিত: ০১:০০, ২৪ মে ২০২৪

রাজস্থান-হায়দরাবাদ ফাইনালে ওঠার লড়াই

আইপিএল থেকে বিদায় নেওয়া কোহলিকে সান্ত¡না দিচ্ছেন রাজস্থানের রোভম্যান পাওয়েল

এবারের আইপিএলে প্রত্যাবর্তনের দুর্দান্ত গল্প লিখেছিল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু। একের পর এক হারে টুর্নামেন্টের মাঝপথেই বিদায়ের শঙ্কা জাগিয়েছিল ফাফ ডু প্লেসিস-বিরাট কোহলিরা। কিন্তু সেখান থেকেই টানা ছয় ম্যাচ জিতে প্লে অফের টিকিট কেটেছিল তারা। এমন প্রত্যাবর্তনের পর তাই ট্রফি জয়ের স্বপ্ন বুনছিল দলটি। কিন্তু তাদের সেই স্বপ্ন ভেঙে চুরমার করে দিল রাজস্থান রয়্যালস।

বুধবার এলিমিনেটর ম্যাচে ব্যাঙ্গালুরুকে ৪ উইকেটে হারিয়ে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে জায়গা করে নেয় রাজস্থান রয়্যালস। এর ফলে ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে আজ আবারও মাঠে নামবে সাঞ্জু স্যামসনের দল। যেখানে তাদের প্রতিপক্ষ প্রথম কোয়ালিফায়ারে পরাজয়ের স্বাদ পাওয়া সানরাইজার্স হায়দরাবাদ।
চেন্নাইয়ে আজ বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে একে অপরের মুখোমুখি হবে রাজস্থান রয়্যালস এবং সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। এই ম্যাচে জয়ী দলই আগামী ২৬ মে রবিবার ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের ফাইনালে কলকাতা নাইট রাইডার্সের মুখোমুুখি হবে।
আইপিএলের ১৭তম সংস্করণের প্রথম কোয়ালিফায়ারে কেকেআরের মুখোমুখি হয়েছিল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। সেই ম্যাচে অবশ্য নাইদের কাছে পাত্তাই পায়নি তারা। মঙ্গলবার আগে ব্যাট করে কলকাতাকে মাত্র ১৫৯ রানের লক্ষ্য ছুড়ে দিতে সক্ষম হয় হায়দরাবাদ। সহজ সেই লক্ষ্য তাড়ায় ৩৮ বল এবং ৮ উইকেট হাতে রেখেই জয় তুলে নেয় বলিউড বাদশাহ শাহরুখ খানের দল।

তবে সেই মাচে হারলেও দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে খেলার সুযোগ রয়েছে আজ তাদের। যেখানে তাদের প্রতিপক্ষ টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই দুর্দান্ত খেলতে থাকা রাজস্থান রয়্যালস। 
বুধবার আহমেদাবাদে এলিমিনেটর ম্যাচে রাজস্থান রয়্যালসের মুখোমুখি হয় রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু। টস হেরে এদিন প্রথমে ব্যাট করতে নেমে বড় ইনিংস খেলতে পারেননি ব্যাঙ্গালুরুর কোনো ব্যাটার। বিরাট কোহলি, রাজিত পাতিদার ও মাহিপাল লামোরের মাঝারি ইনিংসে ভর করে ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৭২ রান সংগ্রহ করে ব্যাঙ্গালুরু।

কোহলি ২৪ বলে ৩৩, পাতিদার ২২ বলে ৩৪ আর মাহিপাল ১৭ বলে করেন ৩২ রান। রাজস্থানের পক্ষে আভেস খান নেন সর্বোচ্চ ৩ উইকেট। এ ছাড়া রবিচন্দ্র অশ্বিন ২টি উইকেট লাভ করেন। ব্যাঙ্গালুরুর ছুড়ে দেওয়া ১৭৩ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে দলীয় নৈপুণ্যেই জয়ের দেখা পায় রাজস্থান। দলের উদ্বোধনী ব্যাটার যশস্বী জসওয়াসল ৩০ বলে ৪৫ রান করে জয়ের ভিত গড়ে দেন।

এরপর রিয়ান পরাগের ২৬ বলে ৩৬, শিমরণ হেটমায়ারের ১৪ বলে ২৬ আর রোভম্যান পাওয়েলের ৮ বলে ১৬ রানের সৌজন্যে ৬ বল হাতে রেখেই ৬ উইকেটের জয় তুলে নেয় সাঞ্জু স্যামসনের দল। ফলে কপাল পুড়ে বিরাট কোহলির। দল ছিটকে যাওয়ায় ভারতীয় ক্রিকেটের অন্যতম সেরা তারকা বিরাট কোহলির আইপিএলের শিরোপা জয়ের অপেক্ষাটা আরও দীর্ঘ হলো। 
তবে এদিন ব্যাঙ্গালুরুর পরাজয়ের পর নিজের আইপিএল ক্যারিয়ারের ইতি টানলেন দিনেশ কার্তিক। শেষ ম্যাচে নিষ্প্রভ ছিল তার ব্যাট। ২৩ মিনিট ক্রিজে থেকে ১৩ বল মোকাবেলা করে মাত্র ১১ রান করেছেন তিনি। এই সময়ে ১টি চারের মার ছিল তার। ম্যাচ শেষে দীনেশ কার্তিককে গার্ড অব অনার দেয় কোহলি বাহিনী। মাঠ ছাড়ার সময় হাত উঁচিয়ে সমর্থকদের বিদায়ের ইঙ্গিত দেন কার্তিক।

২০০৮ সালে আইপিএল শুরুর বছরেই দল পান কার্তিক। অভিষেক মৌসুম দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের হয়ে খেলেন তিনি। এরপর কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব, মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স, গুজরাট লায়ন্স কলকাতা নাইট রাইডার্সের অধ্যায় শেষে নতুন করে ঠিকানা গড়েন ব্যাঙ্গালুরুতে। ১৪ বছরের ক্যারিয়ারে আইপিএলে ২৫৭ ম্যাচ খেলেছেন কার্তিক, যা যৌথভাবে টুর্নামেন্টটিতে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। তার সমানসংখ্যক ম্যাচ খেলেছেন রোহিত শর্মা। যেখানে ২৬৪ ম্যাচ খেলে এই তালিকার শীর্ষে রয়েছেন মহেন্দ্র সিং ধোনি।

×