ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

আজ হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর মৃত্যুবার্ষিকী

বিশেষ প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ০১:৪২, ৫ ডিসেম্বর ২০২৩

আজ হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর মৃত্যুবার্ষিকী

হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী

গণতন্ত্রের মানসপুত্র ও অবিভক্ত বাংলার মুখ্যমন্ত্রী হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর আজ ৬০তম মৃত্যুবার্ষিকী। ১৯৬৩ সালের এই দিনে সুদূর লেবাননের বৈরুতের এক হোটেল কক্ষে নিঃসঙ্গ অবস্থায় তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। এ অঞ্চলে অসাম্প্রদায়িক রাজনীতির প্রবর্তক ছিলেন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী। নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী লীগ গঠন করে তিনি এ দেশের জনগণকে সুসংগঠিত করে তুলেছিলেন। গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠায় তিনি অসামান্য অবদান রেখে গেছেন।

উপমহাদেশের মুসলিম সমাজের আর্থসামাজিক ও রাজনৈতিক স্বার্থ রক্ষার সংগ্রামে তাঁর অগ্রণী ভূমিকা আজও অনুকরণীয়। হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর দক্ষ পরিচালনায় বিকশিত সংগঠন আওয়ামী লীগ এবং স্নেহধন্য বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে অর্জিত হয় বাংলাদেশের স্বাধীনতা। গণতন্ত্রের মানসপুত্রের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণীতে তাঁর স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।

আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আজ মঙ্গলবার সকাল ৯টায় বাংলাদেশ সুপ্রিমকোর্ট সংলগ্ন মরহুমের মাজারে শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন, ফাতেহা পাঠ ও মোনাজাত কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সোমবার এক বিবৃতিতে মরহুম হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, তিনি গণতন্ত্রের জন্য আজীবন সংগ্রাম করে  গেছেন। তাঁর নেতৃত্বের অসাধারণ বলিষ্ঠতা, দৃঢ়তা ও গুণাবলি জাতিকে সঠিক পথের দিক-নির্দেশনা দিয়েছে। গণতন্ত্র, ন্যায়বিচার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে তিনি অসামান্য অবদান রেখেছেন।

×