ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

মালয়েশিয়ায় ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম চালু হচ্ছে

প্রকাশিত: ২০:৪৬, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

মালয়েশিয়ায় ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম চালু হচ্ছে

ই-পাসপোর্টের কার্যক্রম।

দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান হতে চলেছে মালয়েশিয়া প্রবাসীদের। নানা জটিলতা কাটিয়ে শেষমেষ এ মাসেই চালু হচ্ছে ই-পাসপোর্টের কার্যক্রম।

শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) থেকে শুরু হবে ই-পাসপোর্টের আবেদন গ্রহণ। তবে এ সেবা দেবে বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত ‘এক্সপ্যাট সার্ভিসেস লিমিটেড' নামে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান।

চলতি বছরের ৫ জানুয়ারি রাজধানী কুয়ালালামপুরের সাউথগেট কমার্শিয়াল সেন্টারে মালয়েশিয়া প্রবাসী বাংলাদেশিদের নানামুখী সেবা নিয়ে যাত্রা শুরু করে প্রতিষ্ঠানটি। শুরু থেকেই প্রতিষ্ঠানটি মালয়েশিয়া প্রবাসীদের পাসপোর্ট নবায়নসহ অন্যন্য সেবা প্রদানে হয়রানি ও দালালমুক্ত রাখার ঘোষণা দিয়ে আসছে।

এক্সপ্যাট সার্ভিসের পরিচালক মো. গিয়াস উদ্দিন জাগো নিউজকে জানান, কল সেন্টার দিয়ে কার্যক্রম শুরু হলেও বর্তমানে যুক্ত হয়েছে প্রবাসীদের জন্য ট্রাভেল পারমিট প্রদান সেবা। যা আগে সরাসরি হাইকমিশন থেকে সংগ্রহ করতে হতো প্রবাসীদের।

প্রবাসীদের বহুল প্রতীক্ষিত ই-পাসপোর্ট সেবা নিয়ে প্রতিষ্ঠানটির মার্কেটিং ও ব্রান্ডিং পরিচালক অভিনেতা এস এম আরমান পারভেজ বলেন, ই-পাসপোর্ট চালুর সব প্রক্রিয়া শেষ, আগামী শুক্রবার থেকে ই-পাসপোর্ট সেবা চালু হবে। এক্সপ্যাট সার্ভিস প্রবাসীদের জন্য জালান চান সো লিনে (সিটি সেন্টারের পাশে) প্রায় ১৪,০০০ বর্গফুট প্রশস্থ অন স্টপ সার্ভিস নিয়ে আসছে। যেখানে একই সঙ্গে সব সেবা যুক্ত থাকবে। ৪৫টি কাউন্টারের মাধ্যমে চলবে এ সেবা।

কোন প্রবাসী পাসপোর্ট করতে চাইলে ব্যাংক ড্রাফ্ট থেকে শুরু করে ফর্ম পূরণ পর্যন্ত সব কাজেই সহযোগিতা করবে ‘এক্সপ্যাট সার্ভিসের কর্মীরা। প্রবাসীদের প্রয়োজনে, +৬০৩৯২১২০২৬৭ নাম্বারে যোগাযোগ করতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে এবং এক্সপ্যাট সার্ভিস স্বল্প সময়ে প্রবাসীদের আন্তরিক সেবা দেওয়ার জন্য প্রস্তুত রয়েছে।

এছাড়া আউটসোর্সিং কোম্পানি ইসিএল রাজধানী কুয়ালালামপুরের বাইরে একাধিক রাজ্যে যেমন জহরবারু ও পেনাংয়ে হাইকমিশনের তত্ত্বাবধানে মোবাইল টিমের মাধ্যমে সেবা প্রদান করবে। ইসিএল পরিচালিত ওয়ান স্টপ সার্ভিস সেন্টারটির সার্বিক কার্যক্রম প্রত্যক্ষভাবে ইলেকট্রনিক ব্যবস্থায় সরাসরি হাইকমিশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হবে এবং সিসিটিভির মাধ্যমে তা হাইকমিশন থেকে সরাসরি মনিটরিং করার ব্যবস্থা রয়েছে। উন্নত দেশসমূহের আদলে এ ধরনের আয়োজন প্রবাসে সেবা সহজতর ও দ্রুততর করবে এবং সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে গুণগত পরিবর্তন আনবে বলে প্রত্যাশা মালয়েশিয়া প্রবাসীদের।

 

এম হাসান

সম্পর্কিত বিষয়:

×