ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯

দুই শতাধিক ইউক্রেনীয় সেনাকে মুক্তি

মস্কো-কিয়েভ বন্দী বিনিময়

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ০০:৪৯, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

মস্কো-কিয়েভ বন্দী বিনিময়

মুক্তিপ্রাপ্ত ইউক্রেনীয় বন্দীরা জাতীয় পতাকা নিয়ে উল্লাস করছেন

সাত মাস আগে ইউক্রেনে রুশ হামলার পর এবারই সর্ব প্রথম সবচেয়ে বেশি বন্দী বিনিময় করেছে দেশ দুটি। সৌদি আরব ও তুরস্ক এর মধ্যস্থতায় হঠাৎ রাশিয়া ও ইউক্রেন প্রায় ৩০০ বন্দী বিনিময় করেছে। বৃহস্পতিবার এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানায় আলজাজিরা।
মুক্তি পাওয়া যুদ্ধবন্দীদের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও মরক্কোর নাগরিকও রয়েছেন। ইউক্রেনে আটক হওয়ার পর ভাড়াটে যোদ্ধা হিসেবে অভিযুক্ত করে তাদের কয়েকজনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছিল। রাশিয়া প্রায় ২১৫ ইউক্রেনীয়কে মুক্তি দিয়েছে। চলতি বছরের শুরুর দিকে দক্ষিণাঞ্চলীয় বন্দরনগরী মারিওপোলে রুশ বাহিনীর বিরুদ্ধে ইউক্রেনের দীর্ঘ সময় প্রতিরোধ গড়ে তোলা পাঁচ কমান্ডারও তাদের মধ্যে রয়েছেন। বিনিময়ে ৫৫ রুশ নাগরিক এবং রুশপন্থী নিষিদ্ধ একটি দলের নেতা ভিক্তর মেদভেদচুককে মুক্তি দেয় ইউক্রেন। মস্কোপন্থী এই ইউক্রেনীয় নেতার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ আনা হয়েছিল।
 নৈশকালীন ভাষণে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেন, ‘এটি স্পষ্টভাবে আমাদের দেশ ও গোটা জাতির জন্য বিজয়। সবচেয়ে বড় কথা, ২১৫টি পরিবার তাদের প্রিয়জনকে নিরাপদ এবং বাসায় দেখতে পাচ্ছে।’ এ জন্য তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগানকেও ধন্যবাদ জানান জেলেনস্কি।
এর আগে ১০ জন বিদেশীর মুক্তির বিষয়টি জানায় সৌদি আরবের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এক বিবৃতিতে বলা হয়, রাশিয়া-ইউক্রেন সংঘাতে মানবিক পদক্ষেপ গ্রহণে নিজের অব্যাহত অঙ্গীকারের অংশ হিসেবে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের মধ্যস্থতায় তাদের মুক্তি দেয়া হয়। বিবৃতিতে বলা হয়, এই ১০ জনের মধ্যে ৫ জন ব্রিটিশ নাগরিক, ২ জন মার্কিন, ১ জন ক্রোয়েশিয়ান, মরক্কোর ১ জন আর সুইডেনের ১ জন রয়েছেন। তারা সৌদি পৌঁছেছেন। তাদের নিরাপদে নিজ দেশে পাঠানোর প্রক্রিয়া চালাচ্ছে সৌদি কর্তৃপক্ষ।
রাশিয়ায় বিক্ষোভ, গ্রেফতার ১৩০০ ॥ ইউক্রেন যুদ্ধে নতুন করে সেনা পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন। তার এ সিদ্ধান্তের বিরোধিতায় বিক্ষোভ শুরু হয়েছে রাশিয়ায়। বিক্ষোভ থেকে ১ হাজারেরও বেশি রুশ নাগরিককে গ্রেফতার করেছে রাশিয়ান পুলিশ। বিক্ষোভের সময় সবচেয়ে বেশি গ্রেফতার করা হয় মস্কো এবং সেন্ট পিটার্সবার্গ শহর থেকে। রাশিয়ান হিউম্যান রাইটস গ্রুপ ওভিডি-ইনফো জানিয়েছে, সব মিলিয়ে ১ হাজার ৩০০ বিক্ষোভকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।