ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১

পোশাক খাতে ইইউর সহযোগিতা দাবি বিজিএমইএর

​​​​​​​অর্থনৈতিক রিপোর্টার

প্রকাশিত: ২০:৩৫, ১৯ মে ২০২৪

পোশাক খাতে ইইউর সহযোগিতা দাবি বিজিএমইএর

রবিবার রাজধানীর উত্তরাস্থ বিজিএমইএ কার্যালয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বিজিএমইএ সভাপতি এস এম মান্নান কচি

দেশের তৈরি পোশাক খাতের উন্নয়নে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সহযোগিতা প্রদান অব্যাহত রাখার আহ্বান জানিয়েছেন বিজিএমইএ সভাপতি এস এম মান্নান কচি। রবিবার রাজধানীর উত্তরাস্থ বিজিএমইএ কার্যালয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়ন, ডেনমার্ক, জার্মানি, নেদারল্যান্ডস, সুইডেন, স্পেন এবং ইতালির রাষ্ট্রদূত প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক রপ্তানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ) কার্যালয়ে আসলে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রতিনিধি দলে ছিলেন বাংলাদেশে ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধি দলের প্রধান রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলি, ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত ক্রিশ্চিয়ান ব্রিকস-মোলার, জার্মানির রাষ্ট্রদূত আচিম ট্রস্টার, ইতালির রাষ্ট্রদূত আন্তোনিও আলেসান্দো, সুইডেনের রাষ্ট্রদূত আলেকজান্দ্রা বার্গ ভন লিন্ডে, নেদারল্যান্ডস দূতাবাসের চার্জ ডিঅ্যাফেয়ার্স থিজস ওয়াউডস্ট্রা, ইউ ডেলিগেশনের উপপ্রধান (ডেপুটি হেড অব মিশন) . বার্ন্ড স্প্যানিয়ার, স্প্যানিশ দূতাবাসের কমার্শিয়াল অ্যাটাশে এসথার পেরেজ তাহোসেস এবং বাংলাদেশে ইইউ প্রতিনিধি দলের বাণিজ্য উপদেষ্টা আবু সৈয়দ বেলাল।

অনুষ্ঠিত এই বৈঠকে বিজিএমইএ এর সিনিয়র সহ-সভাপতি খন্দকার রফিকুল ইসলাম, সহ-সভাপতি আরশাদ জামাল (দীপু), সহ-সভাপতি (অর্থ) মো. নাসির উদ্দিন, সহ-সভাপতি মিরান আলী, সহ-সভাপতি আবদুল্লাহ হিল রাকিব, পরিচালক আসিফ আশরাফ, পরিচালক মো. ইমরানুর রহমান, পরিচালক শোভন ইসলাম, পরিচালক হারুন অর রশিদ, পরিচালক মোহাম্মদ সোহেল সাদাত, পরিচালক মো. আশিকুর রহমান (তুহিন), পরিচালক শামস মাহমুদ, পরিচালক আবরার হোসেন সায়েম, পরিচালক মো. মহিউদ্দিন রুবেল, পরিচালক ব্যারিস্টার শেহরিন সালাম ঐশী, পরিচালক মো. নুরুল ইসলাম, পরিচালক সাইফুদ্দিন সিদ্দিকী সাগর, পরিচালক মো. রেজাউল আলম (মিরু) এবং বিজিএমইএ স্ট্যান্ডিং কমিটি অন আইএলও অ্যান্ড লেবার অ্যাফেয়ার্সের চেয়ারম্যান সাইফুদ্দিন উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে বিজিএমইএ সভাপতি এস এম মান্নান বাংলাদেশের তৈরি পোশাক শিল্পের বিভিন্ন দিক বিশেষ করে সাম্প্রতিক সময়ে কর্মক্ষেত্রে নিরাপত্তা এবং শ্রমিকদের কল্যাণের ক্ষেত্রে শিল্পের অর্জনগুলো তুলে ধরেন।

×