ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ৩১ মে ২০২৩, ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০

২০২২ সাল শেষে ২ লাখ ৮২ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়েছে

এসএমই খাতে ঋণ বিতরণ বাড়ছে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার

প্রকাশিত: ০১:২৩, ২ এপ্রিল ২০২৩

এসএমই খাতে ঋণ বিতরণ বাড়ছে

ক্রমেই বাড়ছে এসএমই বা ক্ষুদ্র ঋণ বিতরণ

ক্রমেই বাড়ছে এসএমই বা ক্ষুদ্র ঋণ বিতরণ। ২০২২ সালের অক্টোবর-ডিসেম্বর তিন মাসে ৬০ হাজার ৬১২ কোটি টাকার ক্ষুদ্র বা এসএমই ঋণ বিতরণ করেছে ব্যাংকগুলো। এর ফলে ২০২২ সাল শেষে এসএমইতে ঋণ বিতরণের স্থিতি দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ৮২ হাজার ৮৯৭ কোটি টাকা। এ হিসাবে মোট বিতরণকৃত মোট ঋণের ২০ শতাংশ দেওয়া হয়েছে এসএমই খাতে। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য পাওয়া গেছে। প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০২২ সাল শেষে ব্যাংক খাতের মাধ্যমে বিতরণকৃত মোট ঋণস্থিতি ছিল ১৪ লাখ ৭৭ হাজার ৭৮৮ কোটি টাকা।

ঋণ বিতরণের পরিমাণ আর না বাড়লেও শুধুমাত্র এ হিসাবেই আগামী বছরের মধ্যে এসএমইতে ঋণ দিতে হবে ৩ লাখ ৬৯ হাজার ৪৪৭ কোটি টাকা। এর ফলে ২০২৪ সালের মধ্যে এসএমই খাতে আরও পরিমাণ বাড়াতে হবে প্রায় ৮৭ হাজার কোটি টাকা। তবে ঋণ বিতরণের যে প্রবৃদ্ধি রয়েছে, তাতে ২০২৪ সালের মধ্যে এসএমইতে আরও অন্তত এক লাখ কোটি টাকার বেশি ঋণ বিতরণ করতে হবে।
খাত সংশ্লিষ্টরা বলেন, কোভিডকালে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। এ ব্যবসায়ীরা যেন ক্ষতি সামলিয়ে টিকে থাকতে পারেন, সেজন্য সরকার তাদের কয়েক দফায় স্বল্পসুদে প্রণোদনা প্যাকেজের ঋণ দিয়েছে। কোভিড-১৯ এর প্রভাব এখন আর নেই। তাই নতুন বিনিয়োগের কারণে ঋণের পরিমাণও বেড়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, এসএমই ঋণের উপখাতে মাইক্রো ক্রেডিটে ৩৩ হাজার ৮৭৯ কোটি, ক্ষুদ্র উপখাতে এক লাখ ২৬ হাজার ৪৩৬ কোটি ও মাঝারি উপখাতে ৫৫ হাজার ৯৪৬ কোটি টাকা বিতরণ করেছে ব্যাংকগুলো।
তথ্য মতে, ২০২২ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত এসএমই খাতে দেওয়া ঋণ পেয়েছেন ১১ লাখ ২৪ হাজার ১৯৩ উদ্যোক্তা। আলোচ্য সময়ে এসএমই ঋণ বিতরণের স্থিতি দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ৮২ হাজার ৮৯৭ কোটি টাকা। ২০২১ সালে এসএমই ঋণের এই স্থিতি ছিল ২ লাখ ৫২ হাজার ৮২ কোটি টাকা। এক বছরে খাতটিতে প্রায় ৩০ হাজার কোটি টাকা ঋণ বিতরণ বেড়েছে। চলতি বছরের ১৬ মার্চ বাংলাদেশ ব্যাংক এসএমই খাতে ঋণ বিতরণ বাড়ানোর এই নির্দেশনা দিয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ২০২৪ সালে সিএমএসএমই খাতে যে ঋণ বিতরণ করা হবে, তার ৫০ শতাংশ দিতে হবে কুটির, অতিক্ষুদ্র ও ক্ষুদ্র উদ্যোগে। আর নারী উদ্যোক্তাদের দিতে হবে এ খাতে দেওয়া মোট ঋণের ১৫ শতাংশ ঋণ।