ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ০৫ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯

দিশেহারা হয়ে পড়েছেন চাষীরা

মংলায় চিংড়ির ঘেরে মড়ক

প্রকাশিত: ০৩:৫৪, ১২ জুন ২০১৭

মংলায় চিংড়ির ঘেরে মড়ক

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ মংলা পৌরসভাসহ আশপাশের ছয়টি ইউনিয়নের চিংড়ির ঘেরে ব্যাপক হারে মড়ক দেখা দিয়েছে। প্রায় দুই মাস হলো শুরু হওয়া এই মড়কে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন চিংড়ি চাষীরা। এলাকার অধিকাংশ ঘেরে মড়ক লাগায় এ বছরে এ অঞ্চলে বাগদা চিংড়ি উৎপাদনের লক্ষমাত্রা পূরণ হবে না বলে আশঙ্কা করছেন তারা। মংলা উপজেলা মৎস্য অফিস সূত্রে জানা যায়, লবণ পানি অধ্যুষিত মংলাসহ আশপাশের এলাকায় প্রায় দুই যুগ আগ থেকে ধানের পরিবর্তে বছরের প্রায় আট মাসই বাগদা চিংড়ির চাষ হয়ে আসছে। মংলা উপজেলার ১২ হাজার পাঁচশ হেক্টর কৃষি জমির মধ্যে ১০ হাজার আটশ ৫৮ হেক্টর জমিতেই বাগদা চিংড়ি চাষ করা হয়ে থাকে। এসব জমিতে ছোট-বড় মিলিয়ে মোট ঘেরের সংখ্যা হচ্ছে পাঁচ হাজার পাঁচশ ৫০টি। গত বছর এ এলাকায় বাগদা উৎপাদিত হয়েছিল চার হাজার ৪১ মেট্রিক টন। মড়কের কারণে এবারে সেই উৎপাদন অর্ধেকে নেমে আসতে পারে বলে আশঙ্কা স্থানীয় চিংড়ি চাষীদের। মংলা উপজেলার চাঁদপাই গ্রামের চিংড়ি চাষী মোঃ আব্দুল্লাহ বলেন, ‘ফেব্রুয়ারি মাসে ঘেরে পোনা মাছ ছাড়ার পর মে মাস থেকে বিরতিহীনভাবে মাছ মরছে। হোয়াইট স্পট ভাইরাসের কারণে ঘেরে ভেসে উঠছে মরা মাছ। ঘেরের ভেড়ীর পাশে মরা মাছ লালচে আকার ধারণ করে পড়ে থাকছে। আবার যে সামান্য পরিমাণ জীবিত মাছ পাওয়া যাচ্ছে, তার অধিকাংশই দুর্বল। এগুলো নড়াচড়া করতে না পেরে মাটির সঙ্গে মিশে থাকছে। বর্তমান পূর্ণিমার পক্ষে প্রচুর পরিমাণে মাছ পাওয়ার কথা থাকলেও অধিকাংশ ঘেরই মাছশূন্য হয়ে পড়েছে।’ সুন্দরবন ইউনিয়নের বাঁশতলা গ্রামের চিংড়ি ঘের ব্যবসায়ী মোঃ ইব্রাহীম বলেন, ‘দিয়ার খ- এলাকায় শতাধিক বিঘা জমি লিজ নিয়েছিলাম বাগদা চাষের জন্য। লগ্নি করেছি প্রায় ১৭ লাখ টাকা। চলতি মৌসুমের মাঝামঝি এ ঘের থেকে যে পরিমাণ মাছ পাওয়ার আশা ছিল, তাতে আমার লগ্নির বড় অংশই উঠে আসার কথা। কিন্তু মড়কের কারণে সব মাছ মরে যাচ্ছে। এখন পর্যন্ত এক লাখ টাকার বেশি মাছ পাইনি ঘের থেকে।’ উপজেলার চিলা, আন্ধারিয়া, বুড়বুড়িয়া, জয়খা গ্রামের ঘের ব্যবসায়ীরা জানান, গত বছর বাগদা চিংড়ির প্রতিটি পোনার মূল্য ছিল ৩০ পয়সা। তবে এবারে পোনার দাম হয়েছে দ্বিগুণেরও বেশি। ৭০ থেকে ৮০ পয়সা খরচ করতে হচ্ছে প্রতিটি পোনার জন্য। এতে ঘেরের ব্যয়ও হয়েছে দ্বিগুণের বেশি। তার ওপর মড়ক শুরু হওয়ায় চিংড়ি চাষীরা এখন দিন কাটাচ্ছেন আশঙ্কা নিয়ে। মড়কের কারণে উপজেলার চিংড়ির উৎপাদন গত বছরের তুলনায় অর্ধেকে নেমে এসেছে বলে দাবি করছেন স্থানীয় চিংড়ি চাষী ও ডিপো মালিকরা। উপজেলা চিংড়ি বণিক সমবায় সমিতির নূরুল আফসার বলেন, ‘এবারে মড়কের কারণে মাছের উৎপাদন উল্লেখযোগ্যভাবে কম। আড়তগুলোতে চিংড়ির আনাগোনা প্রায় অর্ধেক।’ মংলা উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা ফেরদাউস আনসারী বলেন, ‘বিভিন্ন কারণে বাগদা চিংড়ি মারা যায়। মৌসুমের শুরুতে ঘের তৈরির সময় চাষীরা ঘেরের মাটির সঠিক পরিচর্যা করেন না। জমির ব্যাকটেরিয়া মারার জন্য যে পরিমাণ চুন ব্যবহার করার দরকার, তাও ঠিকমতো করেন না। এছাড়াও নিয়মিত ফরমুলেটেড খাদ্য সরবরাহ না করা, পানি পরিবর্তন ও বায়ু সঞ্চালনের ব্যবস্থা না করার কারণেও মাছ মারা যাচ্ছে।’ চিংড়ি চাষীদের সচেতনতা তৈরিতে কোনও পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে কি-না, জানতে চাইলে উপজেলার এই মৎস্য কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা চিংড়ি চাষীদের জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছি, সেমিনারের মাধ্যমে তাদের সচেতন করার চেষ্টা করে যাচ্ছি। এছাড়া, কোনও এলাকায় মড়ক লাগার খবর পেলে আমরা সঙ্গে সঙ্গেই সেখানে গিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেই।’