ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১

৫০ বছর পর চাঁদে মার্কিন মহাকাশযান

​​​​​​​জনকণ্ঠ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২২:২০, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

৫০ বছর পর  চাঁদে মার্কিন  মহাকাশযান

চন্দ্রপৃষ্ঠে মার্কিন মহাকাশযান ওডিসিউস

অ্যাপোলো মিশনের সাফল্যের ৫০ বছর পর চন্দ্রপৃষ্ঠে অবতরণ করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান পরিচালিত চন্দ্রযান। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় চাঁদের দক্ষিণ মেরুর কাছে অবতরণ করে ষড়ভুজ আকৃতির রোবট মহাকাশযান ওডিসিউস। টেক্সাসভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ইনটুইটিভ মেশিন এই মহাকাশযান তৈরি করেছে চাঁদে পাঠিয়েছে। হিউসটনভিত্তিক মহাকাশ গবেষণা কোম্পানিটি আইএম- নামে মিশন পরিচালনা করেছে। খবর এনডিটিভির।

ইনটুইটিভ মেশিনের প্রধান নির্বাহী সহপ্রতিষ্ঠাতা স্টিভ আন্টেমুস বলেন, চন্দ্রযানকে অভিযানের জন্য প্রস্তুত করতে তারা অনেক নির্ঘুম রাত পার করেছেন। চন্দ্রযানের যে অংশটি চাঁদের পৃষ্ঠে যাবে, সেই ল্যান্ডারের নাম দেওয়া হয়েছে মহাকবি হোমারের দ্য ওডিসি মহাকাব্যের নায়কের নামানুসারে ওডিসিউস। বাণিজ্যিক মহাকাশযানের মাধ্যমে পরিচালিত এই চন্দ্রাভিযানে অর্থায়ন করেছে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা প্রতিষ্ঠান নাসা।  ইনটুইটিভ মেশিন নাসা যৌথ বিবৃতিতে তথ্য জানিয়েছে। অভিযান পরিচালনার দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিরা বলেন, চাঁদের মাটি স্পর্শ করার ঐতিহাসিক মুহূূর্তের প্রায় ১৫ সেকেন্ড পর তারা চন্দ্রাভিযান সফল হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করতে পারবেন। সংশ্লিষ্ট বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান তাদের ওয়েবসাইটে অভিযানটি লাইভ সম্প্রচার করবে। বাণিজ্যিক মহাকাশযানের মাধ্যমে পরিচালিত এই চন্দ্রাভিযানে অর্থায়ন করে দেশটির মহাকাশ গবেষণা প্রতিষ্ঠান নাসা।

চলতি দশকের শেষ দিকে চাঁদে রোবট নভোচারী পাঠানোর পথ উন্মোচন করা অভিযানের লক্ষ্য। সম্প্রতি আরেকটি মার্কিন কোম্পানি চাঁদে অভিযানের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। অ্যাস্ট্রোবায়োটিক টেকনোলজির তৈরি চন্দ্রযানটি ১০ দিন মহাশূন্যে ঘোরাঘুরির পর প্রশান্ত মহাসাগরে আছড়ে পড়ে। এতে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর চন্দ্রাভিযান পরিচালনার সক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেয়। ১৯৬৯ সালে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাপোলো-১১ চন্দ্রযান প্রথমবারের মতো মানুষ নিয়ে চাঁদে অবতরণ করে। এরপর ১৯৭২ সালে নাসা চাঁদে অ্যাপোলো ১৭ মিশন পরিচালনা করে। এরপর প্রায় অর্ধশতাব্দী ধরে চাঁদে আর কোনো মিশন পরিচালনা করেনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

 

×