ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

বাংলাদেশ

আন্দোলনের কোন বিকল্প নেই ॥ মির্জা ফখরুল

প্রকাশিত: ১৯:০৩, ১৯ মে ২০২২

আন্দোলনের কোন বিকল্প নেই ॥ মির্জা ফখরুল

সংবাদদাতা, সৈয়দপুর, নীলফামারী ॥ মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, এ সরকার সারাদেশে বিএনপির ২৫ লাখ নেতার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করেছেন। ৬ শত নেতাকে গুম করেছেন। নানা বাহানায় ক্রস ফায়ার করেছেন। আজ দানব বেশে বুকে বসা এ সরকারকে তাই আন্দোলনের মাধ্যমে উৎখাত করে দেশে বহুদলীয় গণতন্ত্রের শাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করে দেশকে এগিযে নিতে হবে। তাই আন্দোলনের কোন বিকল্প নেই। আজ বৃহস্পতিবার সৈয়দপুর জেলা বিএনপির কার্যালয়ে এক কর্মীসভায় বিএনপি মহাসচিব আরও বলেন, ডাক দেয়া মাত্রই সকল নেতাকর্মীকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে রাজপথে নামতে হবে। এর কোন বিকল্প নেই। সৈয়দপুর জেলা বিএপির আয়োজনে ও জেলা বিএনপির আহবায়ক আব্দুল গফুর সরকারের সভাপতিত্বে ওই সভায় মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আরও বলেন, আজ গোটা দেশ ধ্বংসের দিকে যাচ্ছে। বিদ্যুতের দাম ৮৫ ভাগ বৃদ্ধির প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। দেশের বিদ্যুত কেন্দ্রগুলোকে কুইক রেন্টাল পরিণত করে হাজার-হাজার কোটি টাকা লুটপাট করছেন। আজ দেশে পিকে হালদার শুধুএকজন নয়, শত শত পিকে হালদার দেশের অর্থ পাচার করছেন। দেশের নির্বাচন ব্যবস্থাপনা ও আইনের শাসন নিয়ে তিনি বলেন, কথায় কথায় রাষ্ট্র দ্রোহীতার মামলা দিয়ে বিরোধী দলকে কোনঠাসা করা হচ্ছে। তারা শুধু বহুতল বাড়ি আর দামি গাড়ি করতে ব্যস্ত। দেশের টাকার মান কমেছে, প্রতি ডলারের দর ১ শত টাকা অতিক্রম করেছে। যা দেশের অর্থনৈতীক ব্যবস্থার জন্য অশনী সংকেত। দেশ শ্রীলঙ্কার মত দেউলিয়ার পথে গেলেও, তাদের মাথা ব্যাথা নেই। সৈয়দপুর জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক শওকত হায়াত শাহ এর সঞ্চালনায় এ কর্মীসভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ইশরাক হোসেন, রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহসান হাবিব দুলু, রংপুর জেলা বিএনপির আহবায়ক সাইফুল ইসলাম, সদস্য সচিব আনিছুর রহমান ওয়াদুদ, রংপুর জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আ:খালেক, সৈয়দপুর জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক এ্যাড. এসএম ওবায়দুল হক, সৈয়দপুর জেলা বিএনপির সদস্য সচিব শাহিন আক্তার, সৈয়দপুর জেলা মহিলা দলের সভাপতি রেনু অফজাল, সাধারণ সম্পাদক রুপা বেগম, সৈয়দপুর জেলা বিএনপির আহবায়ক শাসুল আলম, সৈয়দপুর জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক জিয়াউল হক জিয়াসহ সকল অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।