রবিবার ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২২ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিবিজড়িত বিমান

স্মৃতি সতত সুখের হয় যদি তার কেন্দ্রে থাকেন ইতিহাসের মহানায়ক। সেই স্মৃতি সংরক্ষণও তখন পরিণত হয় জাতীয় দায়িত্বে। মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের বিজয়ের ২৪ দিন পর ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি দুপুর ১টা ৪১ মিনিটে বাংলার অবিসংবাদিত নেতা ও মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে প্রত্যাবর্তন করেন। বঙ্গবন্ধু যে উড়োজাহাজে দেশে ফিরেছিলেন অবশেষে সেটি শনাক্ত হয়েছে। বর্তমানে এটি জার্মানির হার্মেস্কেইলের একটি প্রাইভেট এভিয়েশন মিউজিয়ামে সংরক্ষিত আছে। এটি কমেট ফোর-সি মডেলের এয়ারক্রাফট। দীর্ঘ কয়েক দশক এটি হার্মেস্কেইলের ফ্লাগুস্টেলাং পিটার জুনিয়র এভিয়েশন মিউজিয়ামে রাখা হয়েছে। এই সংবাদে সঙ্গত কারণেই দেশবাসী আবেগাপ্লুত। মানুষ স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছেন ইতিহাসের মহানায়ক বঙ্গবন্ধুকে বহনকারী ওই উড়োজাহাজটি জার্মানির জাদুঘর থেকে বাংলাদেশের জাদুঘরে স্থানান্তরিত হবে নিশ্চয়ই। এমন প্রত্যাশা স্বাভাবিক, যার বাস্তবায়নও অসম্ভব নয়।

বাংলাদেশ এভিয়েশন হাব সূত্রে দেশবাসী জানতে পেরেছে, একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধে বিজয় অর্জনের পর জাতির পিতার স্মৃতিবিজড়িত এয়ারক্রাফটটি ১৯৬৩ সালে যুক্তরাজ্যের রয়েল এয়ার ফোর্সের জন্য নির্মিত হয়েছিল। ১৯৭৫ সাল থেকে যুক্তরাজ্যের ড্যান-এয়ার লন্ডন নামে একটি এয়ারলাইন্স প্রতিষ্ঠানের হয়ে পাঁচ বছর বাণিজ্যিক ফ্লাইট পরিচালনা করে এটি। ১৯৮১ সালের ফেব্রুয়ারির ৬ তারিখে এটি জার্মানির ডুসেলডর্ফে রাখা হয়। এর কিছুদিন পরই এটি ফ্লাগুস্টেলাং পিটার জুনিয়র এভিয়েশন মিউজিয়ামে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

জাতির পিতা পাকিস্তানের কারাগার থেকে ছাড়া পান ১৯৭২ সালের ৭ জানুয়ারি ভোরে। ৮ জানুয়ারি সকাল সাড়ে ৬টায় তিনি লন্ডনের হিথ্রো বিমানবন্দরে একটি বিশেষ ফ্লাইট ৬৩৫-এ করে অবতরণ করেন। লন্ডনে পৌঁছে সকালে তিনি কথা বলেন ব্রিটেনের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী এডওয়ার্ড হিথসহ অনেকের সঙ্গে। টেলিফোনে কথা বলেন প্রবাসী সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ এবং ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে। কথা বলেন স্বাধীন দেশে অবস্থিতি তাঁর স্ত্রী-সন্তানদের সঙ্গেও। পরে ব্রিটেনের বিমানবাহিনীর কমেট ফোর-সি মডেলের একটি বিমানে করে ৯ জানুয়ারি দেশের পথে যাত্রা করেন বঙ্গবন্ধু। ১০ তারিখ সকালে তিনি নামেন দিল্লীতে। সেখান থেকে একই উড়োজাহাজে করে ঢাকায় আসেন তিনি। আর ঢাকায় তথা স্বদেশের মাটিতে মহান নেতার প্রত্যাবর্তনের পর আবেগাপ্লুত জাতি তাকে কী বিপুলভাবে বরণ করে নিয়েছিল, সেটি বর্তমান তরুণ প্রজন্ম কল্পনাই করতে পারবে না।

আমরা আশাবাদী, জাতীয় স্বার্থে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সংরক্ষণের অংশ হিসেবে মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে যে বিমানটি মাতৃভূমির মাটিতে ফিরিয়ে এনেছিল, সেটি দেশে নিয়ে আসার ব্যবস্থা নেবে বর্তমান মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকার। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পেরিয়ে মুজিববর্ষে এটিই হবে জাতির জন্য সবিশেষ স্মরণীয় প্রাপ্তি।

শীর্ষ সংবাদ:
দুশ্চিন্তায় কৃষক ॥ বোরো ধান কাটতে তীব্র শ্রমিক সঙ্কট         সিলেটে ৩৩২ কিমি সড়ক এখনও পানির নিচে         বিদ্যুত ও গ্যাসের দাম বাড়ানোর উদ্যোগ আত্মঘাতী         দখল দূষণে কর্ণফুলীর আরও বিপর্যয়         টিকটক হৃদয়সহ ৭ বাংলাদেশীর যাবজ্জীবন         গাজীপুরে ট্রেন পিকআপ সংঘর্ষে নিহত ৩         এবার ডিমের বাজারও বেপরোয়া         হজযাত্রীদের বিনামূল্যে করোনা পরীক্ষা         সড়ক দুর্ঘটনায় এসআইসহ নিহত ৭         কালবৈশাখী ঝড় ও বজ্রপাতে পাঁচজনের মৃত্যু         রাজশাহীর বাজারে এসেছে সুমিষ্ট গোপালভোগ         পূর্বাঞ্চলীয় রেলের ৪৮২ একর জমি বেদখল         তিস্তা কমান্ড এলাকায় ৭০ হাজার হেক্টরে বোরোর বাম্পার ফলন         চট্টগ্রামে ৩ ঘণ্টা বৃষ্টিতে জলজট, দুর্ভোগ         এনটিআরসিএতে আসছে বড় পরিবর্তন         সংকট নিরসনে শ্রীলংকা ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মডেল’ অনুসরণ করতে পারে         করোনা : এক মাস পর মৃত্যু এক, শনাক্ত ১৬         ইইউর জোর বাংলাদেশের অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনে         ‘শেখ হাসিনার কারণেই দেশের চেহারা পাল্টে গেছে’         মাদক ও অপসংস্কৃতি থেকে তরুণ সমাজকে দূরে রাখতে ক্রীড়াই অন্যতম শক্তি : প্রাণিসম্পদমন্ত্রী