বৃহস্পতিবার ১৪ মাঘ ১৪২৮, ২৭ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

কাল সাকরাইন, পুরান ঢাকায় চলছে পূর্বপ্রস্তুতি

কাল সাকরাইন, পুরান ঢাকায় চলছে পূর্বপ্রস্তুতি
  • সাকরাইনের সাজে সাজছে পুরান ঢাকা

জবি সংবাদদাতা ॥ আগামীকাল শুক্রবার পুরান ঢাকায় ঐতিহ্যবাহী ‘সাকরাইন’ উৎসব। ‘পৌষসংক্রান্তি’র দিনটি ‘সংক্রান্তি’ নামেও পরিচিত। মূলত সংক্রান্তি শব্দই লোকমুখে সাকরাইন হয়ে গেছে। এ দিনটিতে গান-বাজনা, বোম ফুটানো ও ঘুড়ি উড়ানোর মধ্য দিয়ে শুরু হবে প্রথম প্রহর। সন্ধ্যা হতেই আতশবাজির আলোয় আলোকিত হয়ে উঠবে পুরান ঢাকার নীল আকাশ। পুরান ঢাকায় দিনটির অন্যতম অনুষঙ্গ ঘুড়ি ওড়ানো বা ঘুড়ি উৎসব। এ উপলক্ষে পুরান ঢাকার অলিগলিতে চলছে সাকরাইন উৎসবের প্রস্তুতি। অনেকের কাছে সাকরাইন ঘুড়ি ওড়ানোর উৎসব নামেও পরিচিত। সাকরাইনকে ঘিরে পুরান ঢাকার অলিতে গলিতে বেড়েছে ঘুড়ি বেচাকেনার ধুম। শিশু, তরুণ, বৃদ্ধরা কিনছে নাটাই, ঘুড়ি। চলছে সুতাই মাঞ্জা দেওয়ার কাজ। ১৪ জানুয়ারি শুক্রবার পালন করা হবে সাকরাইন উৎসব৷ এ উপলক্ষে সাজতে শুরু করেছে পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকা।

সরজমিনে দেখা যায়, সাকরাইন উপলক্ষে সূত্রাপুর, নবাবপুর, শ্যামবাজার, ধূপখোলা, শাঁখারি বাজার, তাঁতীবাজার, লক্ষ্মীবাজার, ফরাশগঞ্জ, সদরঘাট, গেন্ডারিয়া, নারিন্দা, লালবাগ, চকবাজার, মুরগীটোলা, ধোলাইখাল সহ বিভিন্ন এলাকায় শুরু হয়েছে সাকরাইনের আমেজ। বিভিন্ন স্থানে শুরু হয়েছে ঘুড়ি বিক্রি এবং বিভিন্ন এলাকায় শুরু হয়েছে ছাদ সাজানো।

ঘুড়ির দোকানগুলোতে পাওয়া যাচ্ছে চোখদার, রকদার, গরুদার, ভোমাদার, কাউঠাদার, মাছলেঞ্জা, ফিতালেঞ্জা, একরঙা, চানতারা, সাপঘুড়ি, প্রজাপতি ঘুড়ি, পেঁচা ঘুড়ি, বাক্স ঘুড়ি সহ নানান ঘুড়ি। আতশবাজির মধ্যে আছে পাঁচ শট, বারো শট, একুশ শট, বত্রিশ শট, আশি শট, একশ বিশ শট, দেড়শ শট, কদম ফুল, তাঁরা শট, ঝর্ণা, ব্যাটারি বোম, চকলেট বোম, শলতা বোম, রকেট বোম, পাতা বোম / ২৮ বোম, ফ্লেম টর্চ। ফানুশেরও রয়েছে হরেক পদ। যেমন – গোল ফানুস, হার্ট ফানুস, চারকোণা ফানুস।

জানা যায়, পুরান ঢাকায় পুরনো যেসব উৎসব যুগের পর যুগ পালিত হয়ে আসছে, তার মধ্যে এই সাকরাইন ই অন্যতম। এই সংক্রান্তিকে কেন্দ্র করে দক্ষিন এবং দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার অনেক দেশেই এই উৎসব পালিত হয়ে থাকে। দেশ থেকে দেশান্তরে অতিবাহিত হয়ে আসতে আসতে এটি পুরান ঢাকার একটি সার্বজনীন উৎসবে রূপ নিয়েছে।

প্রাচীন ইতিহাস ঘাঁটলে দেখা যায়, ১৭৪০ সালের পৌষ মাসের শেষ এবং মাঘ মাস শুরুর সন্ধিক্ষণে মোঘল আমলে নায়েব-ই-নাজিম নওয়াজেশ মোহাম্মদ খান এর আমলে ঘুড়ি উৎসবের প্রচলন চালু হয়। কালের পরিক্রমায় এই দিনটি পুরান ঢাকাইয়াদের একটি অন্যতম উৎসব এবং আমেজে পরিণত হয়েছে।

সূত্রাপুর অঞ্চলের স্থায়ী বাসিন্দা আরফিন সানজু বলেন, পুরান ঢাকার সাকরাইন একটি ঐতিহ্য যা ১৭০০ সাল পর থেকে প্রচলিত হয়ে আসছে। ১৪ই জানুয়ারি প্রতি বছর উৎসবটি পালন করা হয়ে থাকে। আমরা সবাই প্রস্তুতি নিচ্ছি, এটা আমাদের কাছে এক অন্যতম আনন্দের দিন। আমরা ঢাকাইয়ারা সব সময় এই ঐতিহ্যকে আগামী প্রজন্মের কাছে ছড়িতে দিতে চাই।

শীর্ষ সংবাদ:
লবিস্ট নিয়োগের এত টাকা কোথা থেকে এলো         মেট্রোরেলের পুরো কাঠামো দৃশ্যমান         ইসি গঠন আইন পাস ॥ স্বাধীনতার ৫০ বছর পর         দেশী উদ্যোক্তাদের বিদেশে বিনিয়োগের পথ উন্মুক্ত         এ মাসে নির্মল বাতাস মেলেনি রাজধানীতে         কঠিন হলেও দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনই সমাধান         শাবিতে অহিংস আন্দোলন চলবে ॥ ভিসি সরিয়ে নেয়ার গুঞ্জন         দেশে করোনায় আরও ১৫ জনের মৃত্যু         জাতির পিতা হত্যার পর কবি, আবৃত্তিকাররাই প্রতিবাদ করেছেন         দেশে করোনার চেয়ে অসংক্রামক রোগে মৃত্যু বেশি         নায়ক না ভিলেন-শিল্পীরা কাকে বেছে নেবেন?         রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্রের নেপথ্যে কে- বের হয়ে আসছে         পরপর দু’বছর দেশসেরা, সিএমপির গতি আরও বাড়বে         দেশের সর্বনাশ করতেই বিএনপির লবিষ্ট নিয়োগ : সংসদে প্রধানমন্ত্রী         ৪৪তম বিসিএসের আবেদন ২ মার্চ পর্যন্ত         জমি অধিগ্রহণে আমার লাভবান হওয়ার খবর উদ্দেশ্যপ্রণোদিত : শিক্ষামন্ত্রী         জানুয়ারিতে ‘অস্বাস্থ্যকর বায়ু’ ছিল ঢাকায়         করোনায় আরও ১৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৫৮০৭         গাইবান্ধায় ইভিএম এর মাধ্যমে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হবে ॥ কবিতা খানম