মঙ্গলবার ৫ মাঘ ১৪২৮, ১৮ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

পাবনার চরাঞ্চলের হলুদ ফুলে কৃষকের হাসি

পাবনার চরাঞ্চলের হলুদ ফুলে কৃষকের হাসি

নিজস্ব সংবাদদাতা, পাবনা ॥ পদ্মা-যমুনার পলিমিশ্রিত বিস্তীর্ণ চরে এখন হলুদের সমারোহ। চরের আকাশে বাতাস এখন সরিষা ফুলের গন্ধ আর মধু সংগ্রহকারি মৌমাছির গুন গুনে মুখরিত। জেলার পদ্মা-যমুনার ২৫ চরসহ আশ পাশের গ্রামের পর গ্রামের ফসলি জমি এখন দুর থেকে দেখলে মনে হবে কে যেন হলুদ চাদর বিছিয়ে রেখেছে। হলুদের সমারোহে সজ্জিত সরিষার ফুলে যেন দুলছে কৃষকের রঙিন স্বপ্ন। মাঠে মাঠে মধু সংগ্রহে মৌমাছির বাক্স সাজিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন মৌচাষিরা। চরাঞ্চলে সরিষা আবাদ গ্রামীণ অর্থনীতিতে দেখা দিয়েছে সম্ভাবনার হাতছানি।

সরিষা চাষিরা জানান, অনুকুল আবহাওয়া এবং সার, বীজ সঙ্কট না থাকায় সরিষায় তারা এবার ভাল ফলন আশা করছেন। সুজানগর উপজেলার সরিষা চাষি আব্দুল জব্বার জানান তিনি ৪ বিঘা জমিতে ৩ ধরনের সরিষা আবাদ করেছেন। ক্ষেতে হলুদ ফুলে ভওে গেছে। তিনি সরিষায় ফলন ভাল পাবেন বলে আশা করছেন।

বেড়া উপজেলার চরনাগদা গ্রামের আবুল, হাসেম আলী, আফতাব প্রামানিকসহ কয়েকজন কৃষক জানান, এবার সরিষার বাম্পার ফলন হওয়ার সম্ভাবনা দেখছেন তারা। মাঠের পর মাঠজুড়ে বিরাজ করছে থোকা থোকা হলুদ ফুলের দৃষ্টিনন্দন দৃশ্য। সরিষা ফুল আকৃষ্ট করছে মৌমাছিসহ প্রকৃতিপ্রেমীদের। আর এক মাস পরই সরিষা উঠবে তাদের ঘরে। তিনি আরও জানান, সরিষা চাষ লাভজনক হওয়ায় এলাকার কৃষকদের মধ্যে সরিষা আবাদে বেশ আগ্রহ বাড়ছে।

সদর উপজেলার চরতারাপুর গ্রামের সরিষা চাষি আজিজ জানান, তিনি ১০ বিঘা জমিতে সরিষা চাষ করেছেন। প্রতি বিঘায় এক হাজার টাকা কওে ব্যয় হয়েছে। তিনি প্রতি বিঘায় ৫ মণ সরিষা পাবেন বলে আশা করছেন। গত বছর প্রতি মণ সরিষা বিক্রি করেছেন ৩ হাজার থেকে ৩ হাজার ৩০০ টাকা দরে। বাজার দর ভালো পেলে এবারও তিনি সরিষা বিক্রি করে লাভবান হবেন। একই এলাকার আরেক চাষি গুলজার জানান, দেড় বিঘা জমিতে সরিষা চাষ করেছেন। প্রতি বিঘায় এক হাজার ২০০ টাকা করে ব্যয় হয়েছে। তিনি ও আশা করছেন বিঘা প্রতি সাড়ে চার থেকে ৫ মণ সরিষা ফলন পাবেন।

একই গ্রামের বর্গাচাষি আশরাফ জানান, চার বিঘা জমিতে সরিষা চাষ করেছি। সরিষা ফুলে ক্ষেত ভরে গেছে। আশা করছি আবহাওয়া ভালো থাকলে ও জাত পোকার আক্রমন থেকে সরিষা ক্ষেত রক্ষা করতে পারলে সরিষার ব্যাপক ফলন হবে। বিক্রি করে লাভবান হতে পারবেন। এদিকে সরিষার হলুদ ফুলে দুলছে কৃষকের রঙিন স্বপ্ন বাম্পার ফলনের হাতছানিতে কৃষকের চোখেমুখে আনন্দের আভাস দেখা যাচ্ছে। কৃষি বিভাগ ও জেলায় এবার সরিষার বাম্পার ফলনের আশা করছে।

পাবনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় চলতি মৌসুমে জেলায় সরিষার ভালো ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। নিম্নচাপের প্রভাবে সারা দেশে বৃষ্টি হওয়ায় সরিষার ফলনে কিছুটা প্রভাব পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

সূত্র মতে, গত বছর জেলায় ৩২ হাজার ৯৪২ জেক্টর জমিতে সরিষা আবাদ হয়েছিল। গত মৌসুমে সষিার ভালো দাম পাওয়ায় এবার চাষিরা সরিষা চাষে ঝুকে পড়ে।জেলা সদর, বেড়া, সাঁথিয়া, সুজানগর, ঈশ্বরদী, আটঘড়িয়া, চাটমোহর, ফরিদপুর, ভাঙ্গুড়া উপজেলায় সরিষা আবাদ বেড়ে দাড়িয়েছে প্রায় ৩৫ হাজার হেক্টরে। আর এক মাসের মধ্যেই ক্ষেত থেকে সরিষা তোলা ও মাড়াইয়ে ব্যস্ত সময় পার করবেন চাষিরা। উন্নত জাতের বীজ, সারের সরবরাহ নিশ্চিত করাসহ বিভিন্ন পরামর্শদানে কৃষি বিভাগ সর্বাত্মক সহযোগিতা করেছে বলে বেড়া উপজেলা কৃষিকর্মকর্তা মোঃ মশকর আলী জানিয়েছেন।

শীর্ষ সংবাদ:
মেসি-সালাহকে হারিয়ে ফিফা বর্ষসেরা জিতলেন লেভানদোভস্কি         বাড়তে পারে শৈত্যপ্রবাহ         নাইকো দুর্নীতি মামলা ॥ খালেদার বিরুদ্ধে চার্জ শুনানি ৮ মার্চ         শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আশ্বাস         অভিনেত্রী শিমু হত্যা ॥ স্বামী ও গাড়িচালককে নিয়ে অভিযানে র্যাব-পুলিশ         অভিনেত্রী শিমু হত্যা ॥ স্বামীসহ আটক ২         উখিয়ার ক্যাম্পে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে সন্ত্রাসী রোহিঙ্গারা         তৃণমূলের প্রকল্প বাস্তবায়নে আরও মনোযোগী হোন ॥ ডিসিদের প্রধানমন্ত্রী         বিচারকাজ ফের ভার্চ্যুয়ালি পরিচালনা করতে হবে ॥ প্রধান বিচারপতি         আফগানিস্তান শক্তিশালী ভূমিকম্পের আঘাতে নিহত ২৬         ডিসি সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী         হাতিয়ার সংরক্ষিত বনের গাছ কেটে পাচার, চক্রের এক সদস্য আটক         হত্যা মামলায় বিজিবির বরখাস্ত সদস্যের মৃত্যুদন্ড         মরক্কো উপকূলে নৌকাডুবিতে ৪৩ অভিবাসীর মৃত্যু         ইসি গঠনে আইন হচ্ছে ॥ সরকারের যুগান্তকারী পদক্ষেপ         সংলাপে আওয়ামী লীগের ৪ প্রস্তাব         নেতিবাচক রাজনীতির ভরাডুবি হয়েছে ॥ কাদের         আগামী সংসদ নির্বাচনও চমৎকার হবে ॥ তথ্যমন্ত্রী         ইভিএমে ভোট দ্রুত হলে জয়ের ব্যবধান বাড়ত ॥ আইভী         পন্ডিত বিরজু মহারাজ নৃত্যালোক ছেড়ে অনন্তলোকে