বুধবার ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০১ ডিসেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

চার শ’ কোটি টাকার ঋণ জালিয়াতির অভিযোগ

  • এসবিএসি ব্যাংক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সাউথ-বাংলা এগ্রিকালচার এ্যান্ড কমার্স (এসবিএসি) ব্যাংক লিমিটেডের সাবেক চেয়ারম্যান এসএম আমজাদ হোসেনের বিরুদ্ধে প্রায় ৪০০ কোটি টাকার ঋণ জালিয়াতির অভিযোগ রয়েছে। আর বিশাল অংকের অর্থ চারটি দেশে পাচার করেছেন তিনি। ইতোমধ্যে জালিয়াতির প্রমাণ পাওয়ায় তার বিরুদ্ধে ২০ কোটি ৬০ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মামলা দায়ের করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গোয়েন্দা অনুসন্ধানে পাওয়া নথিপত্র যাচাই-বাছাই করছেন দুদকের তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিচালক মোঃ গুলশান আনোয়ার প্রধান। এদিকে ৫ জানুয়ারি আমজাদ হোসেনের নামে থাকা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শেয়ার হস্তান্তরে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে চিঠি দিয়েছে দুদক।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দুদক উপ-পরিচালক মোঃ গুলশান আনোয়ার প্রধান জনকণ্ঠকে জানান, ঋণ জালিয়াতির অভিযোগে এসবিএসি ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেনসহ সাতজনকে আসামি করে বৃহস্পতিবার মামলা দায়ের করা হয়েছে। তদন্ত কাজ চলমান। এছাড়া আরও বেশকিছু অভিযোগের অনুসন্ধান চলছে। অর্থপাচারের বিষয় নিয়ে এখনও তদন্ত চলছে। তবে তিনি চারটি দেশে বিশাল অংকের টাকা পাচার করেছেন বলে জানতে পেরেছি। বলার মতো সময় আসেনি। খুলনা অঞ্চলের অন্যতম শিল্প প্রতিষ্ঠান ‘লকপুর’ গ্রুপের মালিক এস এম আমজাদ হোসেন। তার মালিকানাধীন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ‘খুলনা বিল্ডার্স লিমিটেড’ অন্যতম। ওই প্রতিষ্ঠানের ঋণ জালিয়াতিতে মামলাটি হয়েছে। মামলার আসামিরা হচ্ছে, এসবিএসি ব্যাংক সাবেক চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন, ব্যাংকটির ফার্স্ট এ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট মোহাঃ মঞ্জুরুল আলম, ভাইস প্রেসিডেন্ট ও সাবেক শাখা প্রধান এস এম ইকবাল মেহেদী, এক্সিকিউটিভ অফিসার ও ক্রেডিট ইনচার্জ মোঃ নজরুল ইসলাম, ব্যাংকটির খুলনার শাখার সাবেক এমটিও ও ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার তপু কুমার সাহা, সিনিয়র অফিসার বিদ্যুত কুমার ম-ল ও সিনিয়র অফিসার মারিয়া খাতুন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে ‘খুলনা বিল্ডার্স লিমিটেড’ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের বিপরীতে ঋণ অনুমোদন করে ব্যাংক থেকে পুরো টাকাই উত্তোলন করে আত্মসাত করেন আমজাদ। কাগুজে ওই প্রতিষ্ঠানের প্রকৃত মালিক তিনি নিজেই। এছাড়া তার বিরুদ্ধে ‘রূপসা ফিশ কোম্পানি’ নামে অপর এক প্রতিষ্ঠানের ৩৭৪ কোটি টাকার ঋণপত্র লুটপাটের অভিযোগ। দুদকের কাছে তথ্য-প্রমাণ রয়েছে যে তিনি যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, সিঙ্গাপুর ও ভারতের কলকাতায় আত্মসাত করা অর্থের বড় একটি অংশ পাচার করেছেন।

মামলার তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১০ সালের ৮ আগস্ট রেজিস্টার অব জয়েন্ট স্টক কোম্পানিজ এ্যান্ড ফার্মস থেকে খুলনা বিল্ডার্স লিমিটেড নামে প্রতিষ্ঠানটির নিবন্ধন নেয়া হয়। প্রতিষ্ঠানটির ৫১ শতাংশ শেয়ার আমজাদ হোসেন এবং ৪৯ শতাংশের মালিকানা তার স্ত্রী সুফিয়া খাতুনের। খুলনা বিল্ডার্স লিমিটেডের চেয়ারম্যান সুফিয়া আমজাদ হলেও মূলত ওই প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমজাদ হোসেনের একক স্বাক্ষরে সবকিছু পরিচালনা হতো। মঞ্জুরি করা ঋণের অর্থ তার স্বাক্ষরেই তোলা হয়।

তদন্ত সংশ্লিষ্টরা জানান, ঋণ জালিয়াতির ওই ঘটনার শুরু ২০১৬ সালে। ওই বছরের ১ জুন জামানত ছাড়া খুলনা বিল্ডার্স লিমিটেডের অনুকূলে ১৯ কোটি টাকা এসওডি (জেনারেল) ঋণসীমা প্রদানের জন্য সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার এ্যান্ড কমার্স ব্যাংক লিমিটেডের খুলনা শাখায় আবেদন করেন আমজাদ হোসেন। ১২ শতাংশ সুদে আমজাদের নির্দেশে প্রতিষ্ঠানের অস্তিত্ব যাচাই না করে, ভুয়া ভিজিট রিপোর্ট প্রস্তুত করে এবং গ্রাহকের প্রদেয় স্টক লটের বাস্তবতা যাচাই ছাড়াই আবেদনের কয়েক ঘণ্টার মধ্যে ঋণ প্রপোজাল তৈরি করেন খুলনা শাখার কর্মকর্তা এমটিও তপু কুমার সাহা। যেখানে ওই শাখার সিনিয়র অফিসার বিদ্যুত কুমার ম-ল, এফএভিপি ও অপারেশন ম্যানেজার মোহাঃ মঞ্জুরুল আলম এবং ভিপি ও শাখা প্রধান এস এম ইকবাল মেহেদী সুপারিশ করেন।

২০১৬ সালের ২ জুন ৪৮তম পরিচালনা পর্ষদের সভায় খুলনা বিল্ডার্সের অনুকূলে ১৫ কোটি ৫৩ লাখ টাকার এসওডি ঋণ অনুমোদিত হয়। ঋণ প্রস্তাব অনুমোদনের পর ওই বছরের ২ জুলাই খুলনা শাখা থেকে ১৫ কোটি টাকা তোলা হয়। ২০১৭ সালের ৫ আগস্ট ঋণের সীমা ১৫.৫৩ কোটি থেকে ২২.৪২ কোটি টাকা বাড়ানোর আবেদন করা হয়। এবারও কয়েক ঘণ্টার মধ্যে ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে কোন প্রকার ক্রেডিট মিটিং ছাড়াই ৬৬তম সভায় (৮ আগস্ট) ঋণসীমা ২০ কোটি ৬০ লাখ টাকা করে নেন তিনি। অথচ প্রতিষ্ঠানটি অস্তিত্বহীন ছিল। এদিকে দুদক খুলনা বিল্ডার্স লিমিটেডের ঠিকানায় একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারের অস্তিত্ব পায়। এর পাশের প্লটে হোটেল ওয়েস্টার্ন ইন ইন্টারন্যাশনাল অবস্থিত। দুদকের সার্বিক পর্যালোচনায় ‘খুলনা বিল্ডার্স’ নামসর্বস্ব ও কাগুজে প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিবেচিত হয়। ভুয়া ওই প্রতিষ্ঠানের নামে ২০ কোটি ৬০ লাখ টাকা আত্মসাত করা হয়। যার মূল কারিগর আমজাদ হোসেন। তিনি শুধু অর্থ আত্মসাত করেননি, ঋণের সমুদয় অর্থ আড়াল করে গতিপথ পাল্টানোর চেষ্টাও করেন। মামলায় আমজাদ হোসেন ছাড়াও ব্যাংকটির ফার্স্ট এ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট মোহা. মঞ্জুরুল আলম, ভাইস প্রেসিডেন্ট ও সাবেক শাখা প্রধান এস এম ইকবাল মেহেদী, এক্সিকিউটিভ অফিসার ও ক্রেডিট ইনচার্জ মোঃ নজরুল ইসলাম, ব্যাংকটির খুলনার শাখার সাবেক এমটিও ও ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার তপু কুমার সাহা, সিনিয়র অফিসার বিদ্যুত কুমার ম-ল, সিনিয়র অফিসার মারিয়া খাতুনকে আসামি করা হয়েছে। গত ২১ সেপ্টেম্বর অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে ব্যাংকের চেয়ারম্যানের পদ ছাড়েন আমজাদ হোসেন।

এর আগে ৫ জানুয়ারি ঋণ জালিয়াতি, অর্থ আত্মসাত ও পাচারের অভিযোগে আমজাদ হোসেনের নামে থাকা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শেয়ার হস্তান্তরে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে চিঠি দেয় দুদক। চিঠিতে বলা হয়, আমজাদ হোসেন সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার এ্যান্ড কমার্স ব্যাংকের শেয়ারসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের শেয়ার বিক্রির চেষ্টা করছেন। এসব অর্থ অবৈধ প্রক্রিয়ায় দেশের বাইরে পাচারের চেষ্টা করছেন, যা মানি লন্ডারিংয়ের অপরাধ। ২০২০ সালের জানুয়ারিতে এস এম আমজাদ হোসেন, স্ত্রী সুফিয়া আমজাদ ও মেয়ে তাজরির বিদেশে যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয় দুদক। দেশে-বিদেশে বিভিন্ন কোম্পানি খুলে ‘বিপুল পরিমাণ অর্থ’ আত্মসাতের অভিযোগে এস এম আমজাদ হোসেনের বিষয়ে অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয় দুদক। এর আগেও তার বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ জমা হয় দুদকে। এসব অভিযোগ অনুসন্ধানে ২০১৭ সালের ২৩ জুলাই আমজাদ হোসেন, ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোঃ রফিকুল ইসলাম ও সাবেক উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ শওকত আলীকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক। যদিও জিজ্ঞাসাবাদে অধিকাংশ অভিযোগ অস্বীকার করেন তিনি।

বিভিন্ন সময়ে দুদকে আসা অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, আমজাদ হোসেন ক্ষমতার অপব্যবহার করে নামে-বেনামে দেশে ও বিদেশে বিভিন্ন কোম্পানি খুলে সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার এ্যান্ড কমার্স ব্যাংকের খুলনা সদর ও কাটাখালী শাখা ব্যবহার করে আমদানি-রফতানি ও ঋণের আড়ালে নানাবিধ দুর্নীতি, অনিয়ম, জালিয়াতির মাধ্যমে আমানতকারীদের বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাত করেছেন। এর মধ্যে খুলনা অঞ্চলের অন্যতম শিল্প প্রতিষ্ঠান লকপুর গ্রুপের মালিক এস এম আমজাদ হোসেন। তার মালিকানাধীন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে, লকপুর ফিশ প্রসেস কোম্পানি লিমিটেড, বাগেরহাট সিফুড ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেড, শম্পা আইস এ্যান্ড কোল্ড স্টোরেজ লিমিটেড, রূপসা ফিশ এ্যান্ড এ্যালাইড ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেড, মুন স্টার ফিশ লিমিটেড। এছাড়া খুলনা প্রিন্টিং এ্যান্ড প্যাকেজিং লিমিটেড, খুলনা এগ্রো এক্সপোর্ট প্রাইভেট লিমিটেড, ইস্টার্ন পলিমার লিমিটেড, মেট্রা অটো ব্রিকস লিমিটেড, খুলনা বিল্ডার্স লিমিটেডসহ বেশকিছু প্রতিষ্ঠান রয়েছে এ শিল্প গ্রুপে।

শীর্ষ সংবাদ:
রোহিঙ্গাদের উচিত এখন নিজ দেশে ফিরে যাওয়া         জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম আর নেই         জাপানে ওমিক্রন শনাক্ত         শতবর্ষের আলোয় আলোকিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়         রিটার্ন দাখিলের সময় বাড়ল এক মাস         আগাম জামিন নিতে আসা শংক দাস বড়ুয়া কারাগারে         করের টাকাই দেশের উন্নয়নের মূল চালিকাশক্তি         সারা দেশে হাফ ভাড়া দাবিতে ৯দফা কর্মসূচি শিক্ষার্থীদের         বাংলাদেশকে ২০ লাখ টিকা দিলো ফ্রান্স         ডিআরইউ’র সভাপতি মিঠু, সম্পাদক হাসিব         আরও একমাস বাড়লো আয়কর রিটার্ন দাখিলের সময়         জাতীয় অধ্যাপক রফিকুলের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক         ৬০ বছরের বেশি বয়সী নাগরিকদের বুস্টার ডোজ দেওয়া হবে ॥ স্বাস্থ্যমন্ত্রী         করোনা : ২৪ ঘণ্টায় একজনের মৃত্যু, শনাক্তের হার ১.৩৪         দিনে ময়লার গাড়ি চালানো যাবে না : মেয়র আতিক         আগামী ১৬ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচন         দক্ষিণ সিটি’র আরেক গাড়িচালক বরখাস্ত         গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া কার্যকর ১ ডিসেম্বর থেকে         জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম আর নেই         কেউ অপরাধ করে পার পাবে না ॥ সেতুমন্ত্রী