সোমবার ১০ কার্তিক ১৪২৮, ২৫ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা

৫ মাসে কোন রায় আসেনি, কাজ চলছে সীমিত আকারে

  • যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল

বিকাশ দত্ত ॥ করোনার কারণে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে গত ৫ মাসে একটিও রায় আসেনি। সর্বশেষ রায়টি প্রদান করা হয় চলতি বছরের ১১ ফেব্রæয়ারি। মূলত দুটি কারণে ট্রাইব্যুনাল থেকে এ মামলাগুলোর রায় পাওয়া যায়নি। রায় না এলেও করোনার ধাক্কায় ট্রাইব্যুনালের কাজ সীমিত আকারে চলছে। প্রসিকিউশন পক্ষ আশা করছে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হলেই ট্রাইব্যুনালের বিচার প্রক্রিয়া পুরোপুরি শুরু হবে। এদিকে ট্রাইব্যুনালের বেশ কয়েকজন প্রসিকিউটরসহ কর্মকর্তারাও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুমের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মধ্যে মারা গেছেন ৮ জন। করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৯৩৬ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৭৩১ জন। বর্তমানে আক্রান্ত আছে ১৯৭ জন।

পাঁচ মাসেও রায় না আসা প্রসঙ্গে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তাপস কান্তি বল জনকণ্ঠকে বলেন, গত ৫ মাসেও ট্রাইব্যুনাল থেকে একটি রায়ও আসেনি এটা ঠিক। এর অন্যতম কারণ ট্রাইব্যুনালের একজন সদস্য অসুস্থ। আর দ্বিতীয় কারণ করোনার কারণে ট্রাইব্যুনালের আসামিদের বিচারের জন্য কোন সাক্ষীকে আনা যায়নি। বিশ্বের করোনার প্রাদুর্ভাবে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে সীমিত আকারে বিচার কাজ চলছে। বর্তমানে ট্রাইব্যুনালে ৩৮টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। এর মধ্যে ৩৪টি মামলা সাক্ষী পর্যায়ে রয়েছে। আমি আশা করছি করোনা পরিস্থিতি উন্নতি হলে শীঘ্রই ট্রাইব্যুনাল থেকে আমরা রায় পাব।

চলতি বছরের ১১ ফেব্রæয়ারি ট্রাইব্যুনাল হত্যা, লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগ, অপহরণ, আটক, নির্যাতন ও মুক্তিপণের মতো মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে ময়মনসিংহের গফরগাঁও ও ভালুকার ৯ রাজাকারের মধ্যে ৩ রাজাকারকে আমৃত্যু করাদণ্ড প্রদান করে। অন্যদিকে ৫ রাজাকারকে ২০ বছর করে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। অন্য একজনকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়। এরপর আর কোন রায় আসেনি। যদিও বর্তমানে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে ৩৮টি মামলায় ২৩২ জনের বিভিন্ন পর্যায়ে বিচার কাজ চলছে।

করোনা শুরু হওয়ার পর আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের বেশ কয়েকজন প্রসিকিউটর ও আর্মড পুলিশ করোনায় আক্রান্ত হয়। বর্তমানে ট্রাইব্যুনালের কর্মকর্তা ও প্রসিকিউটর করোনায় আক্রান্ত হয়েছে বলে জানা গেছে। সুপ্রীমকোর্টের মুখপাত্র সাইফুর রহমান জনকণ্ঠকে বলেছেন, করোনায় বিচারবিভাগীয় কর্মকর্তাদের মধ্যে আক্রান্ত হয়েছেন ৩০৮ জন। সুস্থ হয়েছেন ২৫০ জন। এবং বর্তমানে আক্রান্ত আছেন ৫৭ জন। এর মধ্যে একজন মারা গেছেন। অন্যদিকে কর্মচারীদের মধ্যে আক্রান্ত হয়েছে ৬২৮ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৪৮১ জন। মারা গেছেন ৭ জন। বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ১২ জন, চট্টগ্রামে ৭, রাজশাহীতে ৭, খুলনায় ১৮, বরিশালে ৬, সিলেটে ৩, রংপুরে ২ এবং ময়মনসিংহে ২ জন রয়েছেন। পাশাপাশি বিচার বিভাগীয় কর্মচারীদের মধ্যে বিভাগ ওয়ারি আক্রান্ত হয়েছে ঢাকা ২১, চট্টগ্রাম ১০, রাজশাহী ৩৭, খুলনা ৩৩, বরিশাল ৬, সিলেট ৭, রংপুর ১৮ এবং ময়মনসিংহে ৮ জন।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে ৩৮টি মামলা বিচারাধীন। সাক্ষ্যগ্রহণ পর্যায়ে রয়েছে কক্সবাজারের মহেশখালীর সালামত উল্লাহ খানসহ ২১ আসামির বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলা। এ ছাড়া ময়মনসিংহের এমএ হান্নানসহ আট আসামি, একই জেলার মোঃ রেজাউল করিম ওরফে এএসএম রেজাউল হক ওরফে আক্কাস মৌলভীসহ আট আসামির মামলাটিও সাক্ষ্যগ্রহণ পর্যায়ে রয়েছে। নড়াইলের আবদুল ওয়াহাবসহ ১২ আসামির বিরুদ্ধে মামলা, বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ ও কচুয়ার খান আশরাফ আলীসহ ১৪ আসামির মামলা, শেরপুরের নকলার এসএম আমিনুজ্জামান ফারুকসহ চার আসামির বিরুদ্ধে করা মামলা সাক্ষ্যগ্রহণ পর্যায়ে রয়েছে। এছাড়া কুমিল্লার দাউদকান্দির মোহাম্মদ শহিদুল্লাহর বিরুদ্ধে মামলা, নেত্রকোনার মোঃ খলিলুর রহমানসহ পাঁচ আসামির মামলা, ময়মনসিংহের মুক্তাগাছার আব্দুস সালামসহ ৯ আসামির বিরুদ্ধে মামলা, মৌলভীবাজারের বড়লেখার আব্দুল আজিজ ওরফে হাবুলসহ তিন আসামির বিরুদ্ধে মামলা, যশোরের মনিরামপুরের সিদ্দিকুর রহমান গাজীসহ চার আসামির বিরুদ্ধে মামলা, ময়মনসিংহের ত্রিশালের আনিসুর রহমান মানিকসহ ৯ আসামির বিরুদ্ধে মামলা, নওগাঁর বদলগাছির রেজাউল করিম মন্টুসহ চার আসামির বিরুদ্ধে মামলা, খুলনার আমজাদ হোসেন হাওলাদারসহ আট আসামির বিরুদ্ধে মামলার বিচার চলছে ট্রাইব্যুনালে।

অন্যদিকে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ এলাকার আবুল খায়ের গোলাপ ওরফে গোলাপ মিয়াসহ দুই আসামির মামলা, খুলনার ডুমুরিয়ার শেখ আব্দুর রহিমসহ ১১ আসামির মামলা, যশোরের আজমত হোসাইন মোল্লাসহ পাঁচ আসামির মামলা, বগুড়ার বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল মোমিন তালুকদারের বিরুদ্ধে মামলা, সাতক্ষীরার জামায়াতের সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল খালেক মÐলসহ চার আসামির বিরুদ্ধে মামলার বিচারও চলছে। এছাড়া হবিগঞ্জের লাখাইয়ের সাফিউদ্দিন মাওলানার বিরুদ্ধে মামলা, মাদারীপুরের মোহাম্মদ ওয়াহিদুল হকের বিরুদ্ধে মামলা, পিরোজপুরের বন্দরবাড়ির আব্দুল মান্নান হাওলাদারসহ পাঁচ আসামির বিরুদ্ধে মামলা, হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ের মধু মিয়া তালুকদার ওরফে মধু মিয়ার বিরুদ্ধে মামলা, ময়মনসিংহের কিতাব আলী ফকিরসহ পাঁচ আসামির বিরুদ্ধে মামলা, সুনামগঞ্জের দিরাই ও শাল্লার মুক্তি মনির ওরফে মুক্তি মিয়াসহ ১১ আসামির মামলা, গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের মোফাজ্জল হক প্রধানসহ ৯ আসামির মামলার বিচারকাজ চলমান।

ময়মনসিংহের ফুলপুরের গিয়াস উদ্দিন খানসহ ১৫ আসামির মামলা, ফেনী সদরের মোফাজ্জল হোসাইন ওরফে তাজুসহ তিন আসামির মামলা, ঠাকুরগাঁওয়ের আবেদ হোসেনের বিরুদ্ধে মামলা, নীলফামারীর একরামুল হকসহ ছয় আসামির মামলা, ঝিনাইদহের আব্দুর রশিদসহ তিন আসামির বিরুদ্ধে মামলা, গোপালগঞ্জের নিজামুল হক মিয়া ওরফে লুৎফর রহমান ওরফে লুতু মোল্লাসহ চার আসামির বিরুদ্ধে মামলার বিচার চলছে ট্রাইব্যুনালে। এছাড়া সাতক্ষীরার কালীগঞ্জের আকবর আলী শেখের বিরুদ্ধে মামলা, বরগুনার আব্দুল মান্নান হাওলাদারসহ পাঁচ আসামির বিরুদ্ধে মামলা এবং কুড়িগ্রামের নজরুল ইসলামসহ ১৩ আসামির বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে বিচার চলছে। নোয়াখালীর আব্দুল খায়েরসহ দুই জন এবং চট্টগ্রামের ওমর ফারুকসহ দু’জনের মামলা বিচারাধীন রয়েছে।

করোনাভাইরাস আপডেট
বিশ্বব্যাপী
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
২৪৩৮৫১৮০৫
আক্রান্ত
১৫৬৭৪১৭
সুস্থ
২২০৯৪৬৭৫৬
সুস্থ
১৫৩০৯৪১
শীর্ষ সংবাদ: