বৃহস্পতিবার ১ বৈশাখ ১৪২৮, ১৫ এপ্রিল ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

হাটহাজারীতে সূর্যমুখী ফুলের চাষে সাফল্য

হাটহাজারীতে সূর্যমুখী ফুলের চাষে সাফল্য

নিজস্ব সংবাদদাতা, ফটিকছড়ি ॥ সূর্যমুখী উৎকৃষ্ট তেল জাতীয় ফসল। সূর্যমুখীর বীজে শতকরা ৪০-৪৫ ভাগ উপকারী লিনোলিক এসিড রয়েছে এবং ক্ষতিকর ইরোসিক এসিড নেই। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে সূর্যমুখীর ব্যাপক চাষ হয়। ১৯৭৫ সাল থেকে বাংলাদেশের চাষীরা এর আবাদ শুরু করে। বর্তমানে রাজশাহী, যশোর, কুষ্টিয়া, নাটোর, পাবনা, দিনাজপুর, গাজীপুর, টাঙ্গাইলসহ বিভিন্ন জেলাগুলোতে এর ব্যাপক চাষ হচ্ছে। সূর্যমুখীর চাষ সারা বছর করা যায়। তবে অগ্রহায়ণ মাসে (মধ্য-নবেম্বর থেকে মধ্য-ডিসেম্বর) চাষ করলে ভাল ফলন পাওয়া যায়। দেশের উত্তর ও পশ্চিম অঞ্চলে তাপমাত্রা ১৫ ডিগ্রী সে. এর নিচে হলে ১০-১২ দিন পরে বীজ বপন করতে হয়। খরিপ-১ মৌসুমে অর্থাৎ জ্যৈষ্ঠ (মধ্য-এপ্রিল থেকে মধ্য-মে) মাসেও এর চাষ করা যায়।

বাংলাদেশে রান্নায় ব্যবহৃত হয় ছয় ধরনের ভোজ্যতেল। এর মধ্যে পঞ্চম অবস্থানে আছে সূর্যমুখী তেল। বছরে গড়ে ৩৭ শতাংশ হারে বাড়ছে এই তেল আমদানি। দেশের বাজারে ভোজ্যতেলের দামে লাগাম টানতে চলছে সূর্যমুখী ফুলের চাষ।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের তথ্যমতে, দেশে বছরে ৩-৪ হাজার টন সূর্যমুখী তেলবীজ উৎপন্ন হয়। উৎপাদন বাড়লে তেলবীজ আর আমদানি করতে হবে না।

এবার চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার পশ্চিম দেওয়ানপুর আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা কেন্দ্র এলাকায় সড়কের পাশে ১ একরের বেশি জমিতে সূর্যমুখী ফুলের চাষ করা হয়েছে। সরেজমিন দেখা গেছে, সূর্যমুখীর হলুদ আভায় ছেয়ে গেছে পুরো এলাকা।

বিস্তীর্ণ মাঠজুড়ে সেই নজরকাড়া দৃশ্য দেখতে বিভিন্ন এলাকা থেকে ছুটে আসছে উৎসুক মানুষ। সূর্যমুখী ফুল সূর্যের দিকেই মুখ ঘুরিয়ে থাকে। তাই, নাম তার সূর্যমুখী।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্ল্যান্ট বায়োলজির অধ্যাপক স্টেসি হারমার এর একটি গবেষণা নিবন্ধের উদ্বৃতিতে জানা যায়, সূর্যের দিকে মুখ ঘুরিয়ে রাখলে সূর্যমুখী গাছের পক্ষে অনেক বেশি ফোটন কণিকা শোষণ করা সম্ভব হয় এবং গাছের জন্য আলো হচ্ছে খাদ্যের মতোই একটা বস্তু। এছাড়া, এই গাছের মধ্যে বায়োলজিক্যাল ঘড়ির মতো প্রক্রিয়া আছে। এতে দিন ও রাতের পার্থক্য, সূর্য ওঠা ও অস্ত যাওয়ার বিষয়টি বুঝতে পারে এই উদ্ভিদ। দিনে সূর্যমুখীর ডাটার পূর্বদিকের কোষ দ্রুত বৃদ্ধি পায়, পশ্চিমদিকের কোষ অতটা বাড়ে না। তাই ভারসাম্যের কারণেই ফুল পশ্চিম দিকে ঘুরতে থাকে। রাতের বেলা দেখা যায় এর ঠিক উল্টো চিত্র। এটাকে উদ্ভিদ বিজ্ঞানের ভাষায় বলা হয় ‘সার্কেডিয়ান ছন্দ’।

আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. জামান বলেন, চলতি মৌসুমে ২য় পর্যায়ে বারি-৩ জাতের সূর্যমুখীর আবাদ হয়েছে। ডিসেম্বরের শেষদিকে রোপণ করা বীজ থেকে ফুল ফোটার পর পরিপক্ক বীজ সংগ্রহ করা যাবে মে মাসে। বপন থেকে পরিপক্ক হওয়া পর্যন্ত ৯০ থেকে ১১০ দিনের মধ্যে বীজ সংগ্রহ করতে হয়।

আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের তথ্যমতে, প্রতি একর জমিতে সূর্যমুখী আবাদে বীজ প্রয়োজন হয় ৫ কেজি। এক বিঘা জমি চাষে কৃষকের খরচ হয় ৪-৫ হাজার টাকা। প্রতি শতকে ৪০-৪৫ কেজি বীজ পাওয়া যায়। রোগবালাই রোধে ও পরিপক্ক বীজ পেতে জমিতে নির্দিষ্ট পরিমাণে প্রয়োগ করতে হয় ইউরিয়া, টিএসপি, এমপি, জিপসাম, জিংক সালফেট, বরিক এসিড ও ম্যাগনেসিয়াম সালফেট সার। বারি-৩ জাতের সূর্যমুখী ফুল উচ্চতায় তিন থেকে সাড়ে তিন ফুট হয়। গাছের কাণ্ড বারি-২ জাতের তুলনায় অনেক শক্ত। তাই প্রাকৃতিক দুর্যোগ অনেকটা সামাল দেওয়া যায়।

গবেষণা কেন্দ্রের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. খলিলুর রহমান ভুঁইয়া বলেন, অলটারনারিয়া হেলিয়াস্থি নামের ছত্রাকের আক্রমণে সূর্যমুখীর পাতা ঝলসানো রোগ, স্কেলেরোশিয়াম রলফসি নামের ছত্রাকের কারণে শেকড় পচা রোগ ও গাছের পাতায় বিছা পোকার আক্রমণ হতে পারে। এজন্য রোভরাল/ইভারোল ৫০ ডব্লিউপি ২ গ্রাম/লিটার পানির সঙ্গে মিশিয়ে ১০ দিন পর পর ২-৩ বার জমিতে প্রয়োগ করতে হয়। ফসল কাটার পর গাছের পরিত্যক্ত অংশ পুড়িয়ে ফেলতে হয়। প্রোভেক্স/অটোস্টিন-২০০ দিয়ে বীজ শোধনের মাধ্যমে শেকড় পচা রোগের বিস্তার রোধ করা যায়। গাছে পোকার আক্রমণ হলে নাইট্রো ২০ ইসি ২ মিলিলিটার বা ডায়াজিনন ৬০ ইসি ২ মিলিলিটার পানিতে মিশিয়ে আক্রান্ত ক্ষতে ১০ দিন পর পর দুইবার জমিতে স্প্রে করতে হয়।

পুষ্টিবিদদের মতে, সূর্যমুখী তেলে মানবদেহের জন্য উপকারী ওমেগা ৬ ও ওমেগা ৯, অলিক অ্যাসিড, ফ্যাট, কার্বোহাইড্রেট প্রোটিন ও পানি বিদ্যমান। এই তেল কোলেস্টেরলমুক্ত, ভিটামিন ‘ই’, ভিটামিন ‘কে’ ও মিনারেল সমৃদ্ধ। হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ ও কিডনি রোগীর জন্যও সূর্যমুখীর তেল নিরাপদ।

হাটহাজারী আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের কর্মকর্তারা জানান, সূর্যমুখী সারা বছর চাষ করা যায়। পরিপক্ক পুষ্পমঞ্জুরি বা শাখার ব্যাস ১৫-১৮ সেন্টিমিটার হয়। বীজের রং কালো। প্রতিটি মাথায় বীজের সংখ্যা থাকে ৫০০-৬৫০টি। রবি মৌসুমে জীবনকাল ৯৫-১০০ দিন এবং খরিফ মৌসুমে ৯০-৯৫ দিন পর্যন্ত হয়।

সূর্যমুখী বীজ সারি করে নির্দিষ্ট দূরত্বে বুনতে হয়। গুণগত মান ও স্বাস্থ্যসম্মত তেল পাওয়ার লক্ষ্যেই সূর্যমুখী চাষ করা হচ্ছে। এখানকার বীজ ভবিষ্যতে কৃষকদের মাঝে বিতরণ করা যাবে। ব্যাপক আবাদের মাধ্যমে সূর্যমুখী দেশের ভোজ্যতেলের ঘাটতি মেটাতে সক্ষম হবে।

শীর্ষ সংবাদ:
করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৯৬         ফের ‘করোনা বুলেটিন’ চালু হচ্ছে         করোনা : ক্রেতাশূন্য ইফতারের দোকান         আব্দুল মতিন খসরু আর নেই         করোনা : চলে গেলেন শামসুজ্জামান খান         করোনা মোকাবেলায় প্রযুক্তির অবকাঠামো সহায়ক ভূমিকা পালন করছে: পলক         বিদেশগামী কর্মীদের জন্য শিগগিরই বিশেষ ফ্লাইট চালু         সম্মিলিত শক্তি দিয়ে করোনা ভাইরাসকে প্রতিহত ও পরাজিত করতে হবে ॥ কাদের         রাজধানীর রাস্তায়-রাস্তায় পুলিশের চেকপোস্ট         ভার্চ্যুয়ালি বর্ষবরণ করল ছায়ানট         যানবাহন পারাপারের ব্যাপারে যা জানাল দৌলতদিয়া ঘাট কর্তৃপক্ষ         করোনা ভাইরাস ॥ একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু ব্রাজিলে         এডভোকেট আব্দুল মতিন খসরু এমপি'র মৃত্যুতে আইনমন্ত্রীর শোক         হেফাজতের কেন্দ্রীয় নেতা মুফতি শরিফ উল্লাহ একদিনের রিমান্ডে         কিছু গণমাধ্যমের সমালোচনা আমাদের মনোবল ভেঙে দিচ্ছে ॥ স্বাস্থ্য ডিজি         নববর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতীকী মঙ্গল শোভাযাত্রা         দৌলতদিয়ায় ফেরি বন্ধ, অপেক্ষায় কয়েকশ পণ্যবাহী ট্রাক         ভারতে একদিনে ১ লাখ ৮৪ হাজারের বেশী করোনা ভাইরাসের রোগী শনাক্ত         বাঙালিদের বৈশাখী শুভেচ্ছা জানালেন জো বাইডেন         ৬০ মাত্রায় ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধি শুরু করছে ইরান