ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯

পদ্মা সেতুর ৩৪তম স্প্যান বসছে আজ

প্রকাশিত: ২২:৫৪, ২৫ অক্টোবর ২০২০

পদ্মা সেতুর ৩৪তম স্প্যান বসছে আজ

সংবাদদাতা, মুন্সীগঞ্জ, ২৪ অক্টোবর ॥ মাওয়া প্রান্তের মূল পদ্মায় ৭ ও ৮ নম্বর খুঁটির ওপর রবিবার বসছে ৩৪তম স্প্যান। শনিবার সকাল থেকে প্রস্তুতি নিয়ে বিকেল সাড়ে চারটায় স্প্যানটি নিয়ে তিন হাজার ৬০০ টন ধারণক্ষমতার ভাসমান ক্রেনবাহী জাহাজ ‘তিয়ান ই’ রওনা দেয়। কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে স্প্যানটি দুই খুঁটির ওপর বসানোর প্রস্তুতি সম্পন্ন হয় শনিবার দুপুরে। আর এ স্প্যানটি বসানোর পর স্বপ্নের পদ্মা সেতুর অগ্রগতি আরও একধাপ এগিয়ে সেতুর মূল অবকাঠামো পাঁচ হাজার ১০০ মিটার বা পাঁচ কিলোমিটারের অধিক দৃশ্যমান হবে। পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান মোঃ আবদুল কাদের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এর আগে ১০ অক্টোবর দুই দিনে মাওয়া প্রান্তের মূল পদ্মার মাঝে থাকা ৪ ও ৫ নম্বর খুঁটির ওপর বসানো হয় ১৫০ ফুট দৈর্ঘ্যরে ৩২তম স্প্যান। এর আটদিনের মাথায় ১৯ অক্টোবর বসানো হয় ৩৩তম স্প্যান। আর রবিবার বসছে ৩৪তম স্প্যান। ফলে ১৫ দিনের মধ্যে তিনটি স্প্যান বসানো হচ্ছে। আগামী ৩০ অক্টোবর মাওয়ায় পদ্মা তীরে ২ ও ৩ নম্বর খুঁটির ওপর ৩৫তম স্প্যান এবং ৪ নবেম্বর ৩৬তম স্প্যান বসানোর পরিকল্পনা রয়েছে বলে দায়িত্বশীলরা জানান। মূল সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান মোঃ আবদুল কাদের জানান, ৭ ও ৮ নং খুঁটির ওপর ২ নম্বর মডিউলের প্রথম স্প্যানটি বসানো হবে। পদ্মা সেতুর দায়িত্বশীল প্রকৌশলীরা আরও জানান, বর্তমান সময় পর্যন্ত মূল সেতুতে ৪২টি খুঁটির ওপর বসবে ৪১টি স্প্যান। ৩৩টি স্প্যান ইতোমধ্যে বসানো হয়ে গেছে। একটি বসানোর জন্য প্রস্তুতি সম্পন্ন। বাকি সাতটি স্প্যান মাওয়া প্রান্তের কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে রয়েছে। সম্পূর্ণ প্রস্তুত রয়েছে আরও ছয়টি স্প্যান। সর্বশেষ স্প্যানের চূড়ান্ত রঙের কাজ চলছে এখন। অন্যদিকে মূল সেতুর দুই হাজার ৯১৭টি রোডওয়ে স্লাবের মধ্যে স্থাপন হয়েছে এক হাজারের বেশি এবং দুই হাজার ৯৫৯টি রেলওয়ে স্লাবের মধ্যে স্থাপন হয়েছে এক হাজার ৫০০টির বেশি। মাওয়া ও জাজিরা প্রান্তে ভায়াডাক্টের মধ্যে ৪৮৪টি সুপার গার্ডারের মধ্যে প্রায় ২০০টি স্থাপন করা হয়েছে। করোনাভাইরাসের পর পদ্মার পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত এবং প্রচ- স্রোতের কারণে থেমে ছিল পদ্মা সেতুর কাজের গতি। ফলে কুমারভোগ কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে পাঁচটি স্প্যান শতভাগ প্রস্তুত রেখে অপেক্ষার প্রহর গুনছিলেন প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা। উল্লেখ্য, ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে দ্বিতল পদ্মা সেতুতে সব মিলিয়ে ৪২টি খুঁটি নির্মাণ করা হয়। এর মধ্যে মাওয়া প্রান্তে ২১টি ও জাজিরা প্রান্তে ২১টি। আর ৪২টি খুঁটির ওপর বসবে ৪১টি স্প্যান। এর মধ্যে ৪০টি খুঁটি থাকবে পানিতে আর ২টি ডাঙ্গায়। ডাঙ্গায় থাকা দুটি খুঁটি সংযোগ সড়কের সঙ্গে মূল সেতুকে যুক্ত করবে। ৬টি মডিউলে বিভক্ত থাকবে পদ্মা সেতুর মাওয়া প্রান্তে এক হাজার ৪৭৮ মিটার ভায়াডাক্ট বা ঝুলন্ত পথ ও জাজিরা প্রান্তে থাকবে এক হাজার ৬৭০ মিটার। বর্তমান সরকারের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী নিজস্ব অর্থায়নে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে দ্বিতল পদ্মা সেতুর পুরোটাই নির্মিত হবে স্টিল ও কংক্রিট স্ট্রাকচারে। সেতুর ওপরে থাকবে কংক্রিটিং ঢালাইয়ের চাল লেনের মহাসড়ক আর তার নিচ দিয়ে যাবে রেললাইন। নির্ধারিত সময়েই পদ্মা সেতু সম্পন্ন করার লক্ষ্য নিয়ে দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে কাজ। ২০২১ সালেই যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হবে বলে আশা করা যাচ্ছে।