শনিবার ১৯ আষাঢ় ১৪২৭, ০৪ জুলাই ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স যশোর অফিসের ৫ বছরে ৪৭ কোটি টাকার গৃহঋণ বিতরণ

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর অফিস ॥ যশোর শহরের শংকরপুর এলাকার ব্যবসায়ী হাফিজুর রহমান ১৬ শতক জমির ওপর বাড়ি নির্মাণ করেছেন সম্প্রতি। এজন্য তার কিছু টাকা সঙ্কট দেখা দেয়। পরে তিনি সরকারের হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স অফিস থেকে ৯ লাখ টাকার ঋণ গ্রহণ করেন। এতে তার দ্বিতল ভবন সম্পন্ন হয়। শহরতলীর আরবপুর বাইপাস সড়কের বাসিন্দা আমিনুল ইসলাম আড়াই কাঠা জমি মর্টগেজ রেখে একই প্রতিষ্ঠান থেকে ২০ লাখ টাকার গৃহঋণ নেন। যা দিয়ে তার দ্বিতল ভবন নির্মিত হয়েছে। ২০ বছর মেয়াদী এই ঋণ তারা প্রাপ্তির এক বছর পর কিস্তি শোধ করেন।

শুধু ওই দু’জন নয়, বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স যশোর অফিস বছরে সাড়ে ৪শ’ গ্রাহক গৃহঋণ নিয়ে বাড়ি নির্মাণ করছেন। গত ৫ বছরে প্রতিষ্ঠানটি ৪৭ কোটি টাকার ঋণ বিতরণ করেছেন। এ সময় তাদের আদায় হয়েছে ৩৭ কোটি টাকা।

শহরের বেজপাড়া এলাকার দিদার বক্স বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স যশোর অফিস থেকে ৪০ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে বাড়ি নির্মাণ করেন আরও ৫ বছর আগে। তিনি বলেন, আমার সাধ্য ছিল না বাড়ি করার, গৃহঋণ নিয়ে সাহস দেখিয়েছি বাড়ি নির্মাণের। এখন ঋণের কিস্তি দিতে আমার সমস্যা হচ্ছে না।

বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স যশোর অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে তাদের গৃহঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮ কোটি টাকা। সেখানে বিতরণ করেন ৪ কোটি টাকা। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৬ কোটি টাকা, বিতরণ করা হয় ৬ কোটি ৩১ লাখ টাকা। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮ কোটি টাকা, দেয়া হয় ১২ কোটি ৭২ লাখ টাকা। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১০ কোটি টাকা, বিতরণ হয়েছে ১৮ কোটি ৫ লঅখ টাকা। এবং ২০১৯-২০ অর্থবছরে ঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১২ কোটি টাকা। সেখানে বিতরণ হয়েছে চলতি বছরের মে মাস পর্যন্ত ৬ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স যশোরাঞ্চলের রিজিওন ম্যানেজার কালিদাস রায় জানান, সব নিয়ম মেনে গ্রাহক আবেদন করলে জমির পরিমাণ অনুযায়ী সবোর্চ্চ ২ মাসের মধ্যে ঋণ বিতরণ করা হয়। ঋণ পাবার এক বছর পর থেকে গ্রাহক কিস্তির টাকা পরিশোধ করা শুরু করবেন। সবোর্চ্চ ৬০ লাখ টাকা আমরা দিয়ে থাকি। ৮ শতাংশ সুদে গ্রাহক ঋণ পরিশোধ করবেন।

যশোর চেম্বার অব কমার্সের সাবেক সভাপতি মিজানুর রহমান খান জানান, বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্সের ঋণ আরও সহজ করা প্রয়োজন। যাদের জমি আছে, অথচ বাড়ি করার সাধ্য নেই তাদেরকে ঋণ দিয়ে সহযোগিতা করতে হবে। আবার দেখতে হবে কেউ যেন এই ঋণ নিয়ে অন্যখাতে নিয়ে না যায়। তাহলে এর উদ্দেশ্য সফল হবে না।

শীর্ষ সংবাদ:
করোনার মধ্যে বন্যা মোকাবেলায় মানুষ হিমশিম         পাটকল শ্রমিকদের ন্যায্য পাওনা পরিশোধ করা হবে         অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজিতে চালের দাম বাড়ছে         করোনা মোকাবেলায় এখন নজর চীনা ভ্যাকসিনে         করোনা মোকাবেলায় বহুপাক্ষিক উদ্যোগ জোরদারে গুরুত্বারোপ         ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার রায় আগস্টে         আগামী মাসে করোনা টিকা বাজারে আনবে ভারত         আন্তর্জাতিক বিমান চলাচলে ভারত নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়াল         দক্ষিণ সুদানে ‘বাংলাদেশ রোড’ ব্যাপক পরিচিতি পেয়েছে         মিয়ানমার থেকে ইয়াবা আসা থামছেই না         এবার রাজধানীর ওয়ারী লকডাউন         করোনার নকল সুরক্ষা পণ্যে বাজার সয়লাব!         সুন্দরবনে বিষ প্রয়োগকারী দস্যুদের বিরুদ্ধে পুলিশের অভিযান শুরু         কাল থেকে ওয়ারী ‘লকডাউন’         প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ‘ডেল্টা গভর্ন্যান্স কাউন্সিল’ গঠন         সোমবার থাইল্যান্ডে নেওয়া হচ্ছে সাহারা খাতুনকে         এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে শনিবার থেকে ফের চিরুনি অভিযান ॥ আতিকুল         করোনা ভাইরাসে একদিনে আরও ৪২ মৃত্যু, শনাক্ত ৩১১৪         নিম্ন আদালতের ৪০ বিচারক সহ ২২১ জন করোনায় আক্রান্ত         সৌদি থেকে ফিরলেন ৪১৫ জন, মিসর গেলেন ১৪০ বাংলাদেশি        
//--BID Records