মঙ্গলবার ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০২ জুন ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

আমফানে উঠতি বোরো ও মৌসুমি ফলের ব্যাপক ক্ষতি

আমফানে উঠতি বোরো ও মৌসুমি ফলের ব্যাপক ক্ষতি
  • বাঁধ ভেঙ্গে ভেসে গেছে চিংড়ি ঘের

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ ভারত ও বাংলাদেশের ওপর দিয়ে মঙ্গলবার বিকেল থেকে বুধবার রাত পর্যন্ত দ্রুত বেগে বয়ে যাওয়া প্রচ- ঘূর্ণিঝড় আমফানের তীব্র আঘাতে দেশের দক্ষিণ অঞ্চলসহ বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন জেলায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে উঠতি বোরো ফসল এবং সবজি খেতসহ আম ও লিচুর। সাতক্ষীরায় আমফানের তা-বে ২২ হাজার ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। কৃষি, মৎস্য ও পশু সম্পদের ক্ষতির পরিমাণ ৪শ’ কোটি টাকার। বাঁধ ভেঙ্গে রাস্তা উপচে গ্রামে পানি ঢুকেছে। নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে ৪ গ্রামের মানুষ। ভাঙ্গা বাঁধ মেরামতের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে সেনাবাহিনীকে।

খুলনায় ১০০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধসহ মৎস্য, কৃষি, বিদ্যুত ও অবকাঠামোর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। কলাপাড়ায় ছয় হাজার সবজিচাষীর সর্বনাশ হয়ে গেছে। পানিতে তাদের কয়েক কোটি টাকার ফসলহানি হয়েছে। নষ্ট হয়ে গেছে সবজির লাখ লাখ চারা গাছ। যাদের বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়েছে তাদের ঠিকানা এখন চারিপাড়া আশ্রয়কেন্দ্র। বাগেরহাটে ৪ হাজার ৬৩৫টি মাছের ঘের ভেসে গেছে। এতে কমপক্ষে দুই কোটি ৯০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। আমফানের প্রচন্ড আঘাতে উপড়ে পড়েছে ঐতিহাসিক যশোর রোডের ৫টি শতবর্ষী রেইনট্রি। ‘মহাদুর্যোগ রক্ষায় এতদিন যশোর রোডের শতবর্ষী গাছগুলো ঢাল হয়েছিল’। এছাড়া মঠবাড়িয়ার মাঝেরচড়ে ঘূর্ণিঝড়ে বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

কুড়িগ্রামে ঘূর্ণিঝড় আমফানের প্রভাবে উঠতি বোরো ও সবজি খেতসহ আম-লিচুর ব্যাপক ক্ষতি। আমফানের তা-বে যশোরে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১২তে উন্নীত হয়েছে। আমফানের এই আঘাতের ফলে ব্যাপকভাবে ক্ষতির অসহায় শিকার গৃহহারা হাজার হাজার মানুষের ঈদের আনন্দ এবার মাটি হয়ে গেছে! এছাড়া,মাগুরায় বিদ্যুত লাইনের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ৭০ হাজার গ্রাহক অন্ধকারে রাত কাটাচ্ছে। খবর স্টাফ রিপোর্টার ও নিজস্ব সংবাদদাতার পাঠানো।

মিজানুর রহমান সুন্দরবনের বুড়িগোয়ালিনি থেকে ফিরে এসে জানান, ঘূর্ণিঝড় আমফানের তান্ডব শেষ হয়েছে বুধবার রাতে। কিন্তু রেখে যাওয়া ক্ষত চিহ্ন নিয়ে এখন সুন্দরবন উপকূলীয় এলাকার মানুষের দিন কাটছে অজানা আতঙ্কে। ঝড়ে বিধ্বস্ত হয়েছে আধাপাকা ঘর। আর বাঁধভাঙ্গা জোয়ারের পানিতে ডুবে আছে অবশিষ্ট বাড়ির অংশ। সেখানে বসবাসের সুযোগ নেই । ঘটনার দুইদিন পরও বুড়িগোয়ালিনি ইউনিয়নের দাতিনা খালি এলাকায় ভেঙ্গে যাওয়া বেড়িবাঁধের দুটি অংশ মেরামত করা সম্ভব হয়নি। বাঁধের ভেঙ্গে যাওয়া অংশ দিয়ে মালঞ্চ নদীর পানি প্রবল বেগে ঢুকছে এক গ্রাম থেকে অন্য গ্রামে। বুড়িগোয়ালিনির প্রধান পাকা সড়কের প্রায় ১ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে প্রায় এক থেকে দেড়ফুট উচ্চতায় পানি ওভারফ্লো করে গ্রামে ঢুকছে। এই অবস্থা থেকে বাঁচতে দাতিনাখালি, ভামিয়াসহ আরও দুটি গ্রামের মানুষ এখন পরিবার পরিজন নিয়ে ছুটছেন নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে। আশ্রয় কেন্দ্র ছাড়াও অনেকে চলে যাচ্ছেন আত্মীয়ের বাড়ি। শুক্রবার সাতক্ষীরা শহর থেকে প্রায় ৯০ কিলোমিটার দূরের এই জনপদে যেয়ে দেখা যায় এই চিত্র। অনেক পরিবার স্বজনদের নিয়ে ডুবে থাকা বাড়ির সামনেই নৌকায় আশ্রয় নিয়েছেন।

এদিকে আমফানের আঘাতে ভেঙ্গে যাওয়া বড় বড় বাঁধ মেরামতের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ার কোরকে। এ কাজে সেনাবাহিনী টেকনিক্যাল সাপোর্ট দিবে। পানি কমলে পানি উন্নয়ন বোর্ড স্থানীয় মানুষের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে সেনাবাহিনীকে সহযোগিতা করে সমন্বয়ের মাধ্যমে এই বাঁধ টেকসই হিসাবে নির্মাণ করা হবে। খুলনা বিভাগীয় কমিশনার ড. মোহাম্মদ আনোয়ার হোসে হাওলাদার শুক্রবার দুপুরে ক্ষতিগ্রস্ত সাতক্ষীরার শ্যামনগরের সুন্দরবন সংলগ্ন বুড়িগোয়ালিনি এলাকা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এই তথ্য জানান। আমফানে ক্ষতিগ্রস্ত সাতক্ষীরা, খুলনা ও বাগেরহাটের শ্যামনগর, কয়রা ও শরণখোলা এলাকার ভেঙ্গে যাওয়া বাঁধগুলো মেরামতের জন্য সেনাবাহিনীকে মন্ত্রণালয় থেকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে বলে জানিয়ে তিনি বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত গৃহহীনদের পুনর্বাসন চলবে তালিকা প্রস্তুত ও বাছাইয়ের পর। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় ক্ষতিগ্রস্ত কেউ বঞ্চিত হবে না উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, করোনার কারণে যে খাদ্য সহযোগিতা চলছে তা অব্যাহত থাকবে। এ সময় সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক এম এম মোস্তফা কামাল, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় আমফানের তা-বে সাতক্ষীরায় ২২ হাজার ৭১৫টি ঘরবাড়ি সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত ও প্রায় ৬১ হাজার ঘরবাড়ি আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে। কৃষি, মৎস্য ও পশু সম্পদ বিভাগ মিলিয়ে ক্ষতির পরিমাণ প্রায় এছাড়া কৃষিবিভাগের যে ক্ষতি হয়েছে তাতে টাকার পরিমাণ ১৩৭ কোটি ৬১ লাখ ৩০ হাজার টাকা। মৎস্য বিভাগের ক্ষতি হয়েছে ১৭৬ কোটি ৩ লাখ টাকা। প্রাণিসম্পদের ৭৭ লাখ ৬৭ হাজার টাকা। ৮১ কিলোমিটার রাস্তা ও ৫৭.৫০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া দেড় শতাধিক বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে পড়েছে। গাছপালা ভেঙ্গে পড়েছে অসংখ্য। সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসন সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

খুলনা ॥ অমল সাহা জানান, আমফানের তা-বে এবং জলোচ্ছ্ব্াসে প্রায় ১০০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে সম্পূর্ণ ভেঙ্গে গেছে প্রায় ১০ কিলোমিটার এবং আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অন্তত ১০০ কিলোমিটার বাঁধ। ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রায় ৪ লাখ মানুষ। সম্পূর্ণ ও আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে প্রায় ৮২ হাজার ঘরবাড়ি। প্রায় ২ লাখ গাছপালা ভেঙ্গে গেছে ও উপড়ে পড়েছে। ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে ফসলি জমির। শত শত পুকুর ও মাছের ঘের ভেসে গেছে। বেড়িবাঁধ, মৎস্য, কৃষি, বন, বিদ্যুত ও অবকাঠামোর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা সার্বিক ক্ষতি নিরূপণে কাজ করছেন।

প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী খুলনার ৬৮ ইউনিয়নেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে কয়রা, পাইকগাছা, দাকোপ, বটিয়াঘাটা উপজেলায় বেশি ক্ষতি হয়েছে। জেলায় আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রায় ৪ লাখ মানুষ। ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে প্রায় ৮২ হাজার। সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে জেলার সুন্দবরন সংলগ্ন কয়রা উপজেলায়। এই উপজেলায় বেড়িবাঁধের প্রায় ১০-১২টি স্থান ভেঙ্গে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। শুক্রবার সকালে স্থানীয় জনগণ স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে ভেঙ্গে যাওয়া বাঁধ আটকানোর কাজ শুরু করে। খুলনা-৬ আসনের সংসদ (কয়রা-পাইকগাছা) সদস্য মোঃ আক্তারুজ্জামান বাবু জানান, কয়রা উপজেলা ১২১ কিলোমিটার বেড়িবাঁধের মধ্যে প্রায় ১০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করেছে। এছাড়াও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৪০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ। কমপক্ষে ৫০ কোটি টাকার মাছের ক্ষতি হয়েছে। কয়েক হাজার হেক্টর মৎস্য ঘেরের ক্ষতি হয়েছে। অন্তত ১৫ হাজার বাড়ি ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, খুলনায় ৪০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে ১০ কিলোমিটার সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়েছে, এগুলো সবই কয়রা উপজেলায়। এছাড়াও দাকোপ, বটিয়াঘাটা, পাইকগাছা ও ডুমুরিয়া উপজেলায় আংশিক ক্ষতি হয়েছে অন্তত ৩০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ। এছাড়াও কয়রা উপজেলার ভেঙ্গে যাওয়া বেড়িবাঁধের মধ্যে দক্ষিণ বেদকাশি ইউনিয়নের ছোটো আংটিহারা বাকেরগাজীর বাড়ির পাশে শাকবাড়িয়া নদীর প্রায় ১২০ গজ বেড়িবাঁধ, আংটিহারা মজিদ গাজীর পাশে ৩০০ গজ বেড়িবাঁধ, জোড়শিং বাজারের পাশে ৫০০ গজ বেড়িবাঁধ, কপোতাক্ষ নদের চোরামুখা খেয়াঘাটের কাছে ৫০০ গজ বেড়িবাঁধ ও গোলখালী তসলিম মোল্লার বাড়ির পাশে ৫০০ গজ বেড়িবাঁধ, উত্তর বেদকাশি ইউনিয়নের গাজীপাড়া গ্রামের মাথায় কপোতাক্ষ নদের ৬০০ গজ বেড়িবাঁধ, কাটকাটা বাজারের শাকবাড়ীয়া নদীর ৩০০ গজ বেড়িবাঁধ, মহারাজপুর ইউনিয়নের দশালিয়া গ্রামে কপোতাক্ষ নদের ৭০০ গজ বেড়িবাঁধ এবং কয়রা সদর ইউনিয়নের হরিণখোলা ও গোবরা ঘাটাখালি গ্রামে কপোতাক্ষ নদের আধা কিলোমিটার এলাকাসহ ১০টি জায়গার বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে এবং মহেশ্বরীপুর ইউনিয়নের কয়রা নদীর পানি পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বাঁধ উপচে লবণ পানি লোকালয়ে প্রবেশ করেছে।

যশোর ॥ সাজেদ রহমান জানান, যশোরে আমফান তা-বে যশোরে গাছ চাপা, ঘর ভেঙ্গে ও দেয়াল চাপায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১২ তে দাঁড়িয়েছে। বুধবার রাতে যশোরের বিভিন্ন উপজেলায় বিপুল পরিমাণ গাছপালা ভেঙ্গে ও ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়ে এই মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। ঝড়ের পর যোগাযোগ ব্যবস্থা ফোন নেটওয়ার্ক বিপর্যস্ত হয়ে পড়ায় হতাহতের তথ্য প্রশাসন ও সংবাদকর্মীদের কাছে দেরিতে এসে পৌঁছাচ্ছে। বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসন ৬ জনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে। শুক্রবার বাকি ছয়জনের মৃত্যুর বিষয়টিও নিশ্চিত করা হয়। এদিকে জেলার কেশবপুরে একজন নিহত হয়েছে।

সূত্র মতে, গোটা জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে বিপুল পরিমাণ গাছপালা, ঘরবাড়ি ভেঙ্গে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে। চৌগাছায় গাছচাপা পড়ে মা ও মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। এরা হলেন চৌগাছা পৌরসভার হুদো চৌগাছা এলাকার ওয়াজেদ হোসেনের স্ত্রী চায়না বেগম (৪৫) ও মেয়ে রাবেয়া খাতুন (১৩)। ঝড়ে ঘরের ওপরে গাছ ভেঙ্গে পড়লে এ দু’জন নিহত হন। আহত হন চায়না বেগমের ছেলে আলামিন (২২)। ঝড়ের সময় তারা ঘরে ছিলেন। এছাড়া গাছচাপা পড়ে শার্শা উপজেলার মালোপাড়ার সুশীল বিশ্বাসের ছেলে গোপাল চন্দ্র বিশ্বাস, গোগা পশ্চিমপাড়ার শাহজাহানের স্ত্রী ময়না খাতুন (৪০) ও বাগআঁচড়া জামতলা এলাকার আব্দুল গফুর পলাশের ছেলে মুক্তার আলী (৬৫) এবং বাঘারপাড়া উপজেলার দরাজহাট বুদোপাড়া এলাকার সাত্তার মোল্লার স্ত্রী ডলি খাতুন (৪৫) নিহত হয়েছেন। আর বাঘারপাড়ার নিহত গৃহবধূ নামাজ পড়ার পর কোরান তেলাওয়াত করছিলেন। ঝড়ে একটি আমগাছের ডাল টিনের ঘরের চালার ওপর ভেঙ্গে পড়লে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। শার্শায় নিহতদের মধ্যে মুক্তার আলী ও গোপাল চন্দ্র বিশ্বাস নিজেদের ঘরের মধ্যেই গাছ ভেঙ্গে পড়লে মারা যান। আর ময়না খাতুন স্বামীর সঙ্গে এক ঘর থেকে আরেক ঘরে যাওয়ার সময় গাছ পড়ে মারা যান। তবে স্বামী বেঁচে যান। যশোরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শফিউল আরিফ এই ছয় জনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

যশোর রোডের ৫টি শতবর্ষী রেইনট্রি গাছ উপড়ে গেছে ॥ ঐতিহাসিক যশোর রোডের ৫টি শতবর্ষী রেইনট্রি গাছ উপড়ে পড়েছে এই অঞ্চলের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ঘূর্ণিঝড় আমফানের তান্ডবে। আর কিছু কিছু গাছের ডালপালা ভেঙ্গেছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই রোডের দুই সহস্রাধিক রেইনট্রি গাছ মহাদুর্যোগ রক্ষায় ঢাল হয়ে বেশ ভূমিকা রেখেছে। মানুষ রক্ষা করতে গিয়ে এক রাতেই প্রাণ দিল ৫টি বৃক্ষ। যশোর জেলা পরিষদের হিসাবে বুধবার রাতে ঘূর্ণিঝড় আমফানের তান্ডবে যশোর রোডের যশোর-বেনাপোল ৩৮ কিলোমিটার অংশে ৫টি শতবর্ষী রেইনট্রি গাছ উপড়ে পড়েছে রাস্তায়।

বাগেরহাট॥ বাবুল সরদার জানান, সুপার সাইক্লোন ‘আমফান’র তান্ডবে সুন্দরবন সন্নিহিত উপকূলীয় জেলা বাগেরহাটে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকেরা হাঁসফাস করছেন। ‘আমফানের’ ছোবলে জেলার প্রায় ৫ হাজার চিংড়ি ঘের ও পুকুর ভেসে গেছে। মাঠে থাকা সবজি, আমনের বীজতলা, পাকা ধানসহ ১৭শ’ হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হয়েছে। এতে কৃষকদের কমপক্ষে সাড়ে ৬ কোটি ৪০ লাখ ৭৫ হাজার টাকার ক্ষতি হয়েছে। বাগেরহাটে ৪ হাজার ৬৮৬টি কাঁচাঘর বিধ্বস্থ হয়েছে। বিধ্বস্থ ঘরগুলোর মধ্যে চার হাজার ৩৩৯টি ঘর আংশিক এবং ৩৪৭টি ঘর সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। জেলার শরণখোলা, মোংলা, রামপাল ও সদর উপজেলার নদী সংলগ্ন ৮ স্থানে বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে ১২ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। বৃহস্পতিবারও জোয়ারের পানি প্রবেশ করায় এসব এলাকায় মানবেতর অবস্থার সৃষ্টি হয়। এঅবস্থায় ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকা তৈরী করে পুণর্বাসন কার্যক্রম শুরু করেছে প্রশাসন।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা খালেদ কনক বলেন,জলোচ্ছ্বাসে বাগেরহাটে ৪ হাজার ৬৩৫টি মাছের ঘের ভেসে গেছে। এতে কমপক্ষে দুই কোটি ৯০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। বাগেরহাটে ৭৮ হাজার ১’শ মাছের ঘের রয়েছে।’

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ দফতরের উপ-পরিচালক রঘুনাথ কর বলেন, জলোচ্ছ্বাস ও অতিবর্ষণে মাঠের গ্রীষ্মকালীন সবজি ও আউশ ধানের বেশি ক্ষতি হয়েছে। কমপক্ষে সাড়ে ৬ কোটি ৪০ লাখ ৭৫ হাজার টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

কলাপাড়া, পটুয়াখালী ॥ মেজবাহ উদ্দিন জানান, ৫০ শতক জমি বছরে ১৬ মন ধানের চুক্তিতে বন্দকী নিয়ে সবজির আবাদ করেছেন কৃষক আব্দুর রাজ্জাক হাওলাদার। প্রায় আট হাজার টাকা খরচ করে বেড (কান্দি) করেছেন। বীজ কিনেছেন ১০ হাজার টাকার। সব মিলিয়ে প্রায় ৫০ হাজার টাকা খরচ করেছেন। বর্ষাকালীন আগাম সবজি চিচিঙ্গা, ঝিঙে, শসার আবাদ করেছেন। চারা গাছগুলে কেবল ৫/৬ ইঞ্চি বড় হয়েছে। টানা খরায় সেচ দিয়ে রক্ষা করেছেন ঝিঙের পাঁচ শতাধিক, চিচিঙ্গার দুই শতাধিক এবং শসার তিন শতাধিক মাদা। কিন্তু আমফানের ঝড়োহাওয়ায় ইতোমধ্যে এক চতুর্থাংশ চারা নষ্ট হয়ে গেছে। এসব চারগাছ নেতিয়ে পড়েছে। রোদ উঠলে শুকিয়ে যাবে। এক্ষেত দিয়ে দুই লাখ টাকার সবজি বিক্রির স্বপ্ন ছিল মানুষটির। কৃষক রাজ্জাক আরও জানালেন, ১০ হাজার টাকা বিক্রি করতে পারতেন, এমন লাউক্ষেত সম্পুর্ণ ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে।

ঝালকাঠি॥ জেলার ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে আঘাতে বিভিন্ন সেক্টরে ১৭ কোটি ১৫ লক্ষ ৬৩ হাজার টাকার ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে। জেলার ৪টি উপজেলা ও ২টি পৌরসভা এলাকা থেকে জেলা প্রশাসনকে ক্ষয় ক্ষতির বিবরণসহ শুক্রবার এ তথ্য প্রদান করা হয়েছে। ঝালকাঠির ১৩৪টি বসতঘর সম্পূর্ণ বিনষ্ট হয়েছে, যার ক্ষতির পরিমান ১ কোটি ১৬ লক্ষ টাকা এবং আংশিক ১৯৯৪ ঘর বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায়ে ৯ কোটি ২৬ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার ক্ষতি হয়েছে। জেলায় ২৬২ টি হাসের খামার আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় ১ লক্ষ ৫১ হাজার টাকা এবং মুরগীর খামার ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় ১৮ লক্ষ ৭৩ হাজার টাকার ক্ষতি হয়েছে।

মঠবাড়িয়া, পিরোজপুর ॥ জেলার মঠবাড়িয়ায় ঘূর্ণিঝড় আমফানের প্রভাবে উপজেলার আমড়াগাছিয়া ইউনিয়নের মাঝেরচড় এলাকায় বেড়ীবাঁধ ভেঙে লোকালয় ও ফসেেলর মাঠ প্লাবিত হয়ে কৃষকের বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। সুন্দরবন ও মঠবাড়িয়ার মধ্যবর্তী স্থানে নদীর মাঝখানে এ চরে প্রায় দুই শতাধিক পরিবারের বসবাস। গত বুধবার ঘূর্ণিঝড় আমফানের প্রভাবে ওই এলাকার কৃষকদের ক্ষতিগ্রস্থ বিভিন্ন ফসল গত দুইদিন ধরে গ্রামের বিভিন্ন স্থানে ¯ু‘প করে রেখে দিতে দেখাগেছে।

কুড়িগ্রাম ॥ গত দুইদিন ধরে কুড়িগ্রামে ঝড়ো হাওয়া ও বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে। বৃহস্পতিবার মধ্যরাত থেকে দিনভর প্রচন্ড বাতাস ও বৃষ্টিপাত হয়। সকাল থেকে গুঁড়ি গুঁড় বৃষ্টি আর প্রবল বাতাসে ঘর থেকে বাইরে বের হতে পারেনি এখানকার মানুষজন। বাতাস ও বৃষ্টির কারনে বৃহস্পতিবার সারাদিন জেলায় বিদ্যুত সংযোগ বিচ্ছিন্ন থাকে।ফলে এখানকার মানুষকে রোজায় অনেক কষ্ট পোহাতে হয়।

শীর্ষ সংবাদ:
নটর ডেমসহ ৪ কলেজে নিজস্ব প্রক্রিয়ায় ভর্তির অনুমতি         দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও ৩৭ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৯১১         ন্যাশনাল ব্যাংকের ৬০ লাখ টাকা উদ্ধার, গ্রেফতার ৪         করোনা ভাইরাস দুর্বল হওয়ার প্রমাণ নেই ॥ ডব্লিউএইচও         আইসিইউতে ভর্তি মোহাম্মদ নাসিম, শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল         দক্ষিণ আফ্রিকায় সন্ত্রাসীদের হাতে বাংলাদেশি নিহত         কঙ্গোতে ছয়জনের ইবোলা শনাক্ত, চারজনের মৃত্যু         জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যু শ্বাসকষ্টে হয়েছে         উপগ্রহ চিত্রে ধরা পড়ল লাদাখ সীমান্তে মোতায়েন করা চীনের যুদ্ধবিমানের ছবি         হোয়াইট হাউসের সামনে সংঘর্ষ, সেনা নামানোর হুমকি ট্রাম্পের         পশ্চিম তীর দখল নিয়ে ইসরাইলকে সতর্ক করল আরব আমিরাত         রেড, ইয়েলো, গ্রীন ॥ করোনা ঠেকাতে তিন জোনে ভাগ হচ্ছে         মানব পাচারকারী চক্রের অন্যতম হোতা হাজী কামাল গ্রেফতার         করোনায় আয় কমেছে ৭৪ শতাংশ পরিবারের ॥ ১৪ লাখের বেশি প্রবাসী শ্রমিক বেকার         পরিস্থিতির অবনতি হলে কঠিন সিদ্ধান্ত ॥ কাদের         ৬০ বছরের বেশি বয়সী রোগীর মৃত্যুহার সর্বোচ্চ         করোনা মোকাবেলায় ৪ প্রকল্প একনেকে উঠছে আজ         ১০ হাজার কোটি টাকার জরুরী তহবিল         স্বাস্থ্যবিধি মানা না মানার চিত্র         একসঙ্গে ২৫ শতাংশের বেশি কর্মীর অফিসে থাকা মানা        
//--BID Records